ব্যবস্থা নেয়া সংক্রান্ত সংবাদের প্রভাব

দুর্বল শেয়ারের দরপতন

গত সপ্তাহের তুলনায় প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬১ পয়েন্ট ও লেনদেন কমেছে ৪১ কোটি টাকা

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দরপতন

শেয়ারবাজারে ৩০ দুর্বল কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, এ ধরনের সংবাদ প্রকাশের পর ওইসব কোম্পানির শেয়ারমূল্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ওই তালিকায় থাকা সব কোম্পানির দাম বৃহস্পতিবার কমেছে। তবে এসব কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন কম হওয়ায় সামগ্রিকভাবে বাজারে এর তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি। দিনশেষে বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ৯৩২ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে।

আর ডিএসই’র মূল্যসূচক বেড়েছে ১ পয়েন্ট। জানা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে দুর্বল কোম্পানি চিহ্নিত করেছে ডিএসই। এসব কোম্পানিগুলো দুর্বল মৌলভিত্তির কিন্তু অতিমূল্যায়িত। এসব কোম্পানির আর্থিক অবস্থা, উৎপাদন পরিস্থিতি বিবেচনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডিএসই। এক্ষেত্রে বিএসইসির অনুমোদন চাওয়া হয়েছে। গণমাধ্যমে বৃহস্পতিবার এই সংবাদ প্রকাশের পর কোম্পানিগুলো শেয়ারে প্রভাব পড়েছে।

ওইদিন যেসব কোম্পানির শেয়ারের দাম সবচেয়ে বেশি কমেছে, এর মধ্যে সবগুলো ওই তালিকায় থাকা কোম্পানি। বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ডিএসইতে বৃহস্পতিবার ৩৪৭টি কোম্প্রানির ২৫ কোটি ২৫ হাজার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার মোট মূল্য ৯৩২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে দাম বেড়েছে ১৬০টি কোম্পানির শেয়ারের, কমেছে ১৪৮টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৯টি কোম্পানির শেয়ারের দাম।

ডিএসইর তালিকায় থাকা কোম্পানিগুলো হল- প্রকৌশল খাতের কোম্পানি কে অ্যান্ড কিউ, খাদ্য খাতের কোম্পানি মেঘনা পেট ইন্ডাস্ট্রিজ, আবদুল আউয়াল মিন্টুর মালিকানাধীন বস্ত্র খাতের কোম্পানি দুলামিয়া কটন এবং সালমান এফ রহমানের মালিকানাধীন একই খাতের কোম্পানি বেক্সিমকো সিনথেটিক অন্যতম। এ ছাড়াও রয়েছে সমতা লেদার, সরকারি মালিকানাধীন কোম্পানি শ্যামপুর সুগার, জিল বাংলা সুগার এবং বস্ত্র খাতের আরেক কোম্পানি ইমাম বাটন। মেঘনা কনডেন্স মিল্ক, বিডি ওয়েল্ডিং, জুট স্পিনার্স, সাভার রিফেক্টরিজ, বেক্সিমকো সিনথেটিকস, সুরিদ ইন্ডাস্ট্রিজ, বিডি অটোকারস, এমারেল্ড ওয়েল, বাংলাদেশ সার্ভিস, বিচ হ্যাচারি, ঢাকা ডাইং অ্যান্ড ম্যানুফেকচারিং, হক্কানি পাল্প, খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং, মিথুন নিটিং, সোনারগাঁও টেক্সটাইল, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, তাল্লু স্পিনিং, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার, মুন্নু সিরামক, মুন্নু জুট স্টাফলার, সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল এবং তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডাইং।

জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, দুর্বল এসব কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়াটা যৌক্তিক। না হলে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা এসব কোম্পানির শেয়ার কিনে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি বলেন, এসব কোম্পানি বছরের পর বছর কোনো লভ্যাংশ দেয় না। হঠাৎ করে দাম বাড়ে। কয়েকদিন পর আবার বড় দরপতন হয়। ফলে এগুলো তালিকাচ্যুত করে বাজারে একটি বার্তা দেয়া দরকার।

বৃহস্পতিবার ডিএসই ব্রডসূচক আগের দিনের চেয়ে ১ দশমিক ৯৮ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৭৫০ দশমিক ২৯ পয়েন্টে নেমে এসেছে। ডিএসই-৩০ মূল্যসূচক ৪ দশমিক ২৪ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৯৯৯ দশমিক ৮ পয়েন্টে নেমে এসেছে। ডিএসই শরিয়াহ সূচক দশমিক ১৩ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৩১১ দশমিক ৪৫ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। ডিএসইর বাজারমূলধন আগের দিনের চেয়ে বেড়ে ৪ লাখ ১৫ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে।

শীর্ষ ১০ কোম্পানি : বৃহস্পতিবার ডিএসইতে যেসব কোম্পানির শেয়ার বেশি লেনদেন হয়েছে সেগুলো হল- ফরচুন সুজ, ইউনাইটেড পাওয়ার, সিমটেক্স ইন্ডস্ট্রিজ, নূরানী ডাইং, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, এসকে ট্রিমস, মুন্নু সিরামিক, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স এবং সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ। এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে সূচক ও লেনদেন কমেছে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)। চলতি সপ্তাহে গত সপ্তাহের চেয়ে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৬১ পয়েন্ট। গত সপ্তাহের তুলনায় লেনদেন কমেছে ৪১ কোটি টাকা। চলতি সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে মোট লেনদেন হয়েছে ৪ হাজার ৭৬ কোটি টাকা, গত সপ্তাহে যা ছিল ৪ হাজার ১১৭ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×