রাষ্ট্রদূত-বাণিজ্যমন্ত্রী বৈঠক

কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণে সহায়তা দেবে জাপান

কৃষি, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, কৃষিপণ্যের মূল্য সংযোজন ও ইরিগেশন, প্রশিক্ষণ ও অবকাঠামো উন্নয়নে জাপানি সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কৃষিপণ্য

বাংলাদেশে কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণ ও খাদ্য প্রক্রিয়াজাতে সহায়তা করতে জাপান আগ্রহী বলে জানিয়েছেন দেশটির রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমি। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাকের সঙ্গে দেখা করে জাপানের এ আগ্রহের কথা জানান রাষ্ট্রদূত। এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রীকে রাষ্ট্রদূত বলেন, অবকাঠামো উন্নয়নে সহযোগিতা করতে চায় জাপান। অতীতের মতো বাংলাদেশের সব ক্ষেত্রে জাপানের সহযোগিতা থাকবে। স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলাদেশের অবকাঠামো উন্নয়নে পাশে থাকা জাপান এবার কৃষি উন্নয়নেও কাজ করতে চায়।

এ সময় কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক বলেন, জাপান বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে, অংশীদারিত্ব গড়ে তুলছে, বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নিবিড় করেছে। জাপান শুধু বাংলাদেশের উন্নয়নের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদারই নয়, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে দুই দেশ পরস্পরকে সহযোগিতা দিয়ে আসছে। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের দুর্দিনে যেসব দেশ উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে এগিয়ে এসেছে, জাপানের স্থান সবার ওপরে। বাংলাদেশের কৃষি উন্নয়নে জাপানের সহযোগিতা দ্রুত উন্নয়নের পথ দেখাবে। বাংলাদেশের কৃষি, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, কৃষিপণ্যের মূল্য সংযোজন ও ইরিগেশনে, সোলার ইরিগেশনসহ ও প্রশিক্ষণ এবং অবকাঠামো উন্নয়নে জাপানি সহযোগিতা থাকবে বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আমাদের পোলট্রি শিল্প এখন ঘুরে দাঁড়িয়েছে, যদিও মূল্য যথেষ্ট পাচ্ছে না, আন্তর্জাতিক বাজারে প্রবেশেও সমস্যা রয়েছে। আমাদের দুধ, সবজি ও ফলেও উৎপাদন ভালো, কিন্তু সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাত ব্যবস্থা না থাকায় স্থানীয় বাজারের মূল্য পাচ্ছি না এবং আন্তর্জাতিক বাজারে প্রবেশও সহজ হচ্ছে না।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের ভুট্টা উৎপাদনও ভালো, তারপরও উৎপাদিত ভুট্টা সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ ব্যবস্থা না থাকায় আমদানি করতে হয়। এক্ষেত্রে জাপান আমাদের সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

বিনিয়োগ বাড়াতে জাপানের প্রতি বাণিজ্যমন্ত্রীর আহ্বান : জাপানি বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে আরও বিনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে তার কার্যালয়ে ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমির সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এই আহ্বান জানান।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, জাপান বাংলাদেশের বন্ধুরাষ্ট্র। যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনর্গঠনে জাপান বাংলাদেশকে অনেক সহযোগিতা দিয়েছে। জাপানি সাহায্য সংস্থা এখনও বাংলাদেশে কাজ করছে। অনেক জাপানি নাগরিক বাংলাদেশে কর্মরত আছেন। জাপানের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলা হচ্ছে। জাপান নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় এবং চট্টগ্রামের মীরেরসরাই উপজেলায় দুটি স্পেশাল ইকোনমিক জোনে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এজন্য জাপানের প্রতি বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। জাপানি বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশ সফর করলে এবং বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা জাপান সফর করলে উভয় দেশের ব্যবসায়ীরা বেশি আত্মবিশ্বাসী হবেন। এতে করে বাণিজ্য ক্ষেত্রে উভয় দেশ লাভবান হবে।

এ সময় হিরোয়াসু ইজুমি বলেন, জাপান ও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। জাপান বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে আগ্রহী। বাংলাদেশ সব ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। এতে জাপান খুশি। জাপান বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়াবে। বাণিজ্যের জন্য বাংলাদেশ বেশ ভালো। জাপান বাংলাদেশে অনেক গাড়ি রফতানি করে। এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×