১ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকার সংশোধিত এডিপি অনুমোদন

বাড়তি বরাদ্দ ২ হাজার কোটি টাকা * আইএমইডির সক্ষমতা বাড়াতে বিভাগীয় অফিস স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  যুগান্তর রিপোর্ট ২০ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এডিপি

মূল বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি থেকে ৮ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে ১ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকার সংশোধিত এডিপি (আরএডিপি) অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনেতিক পরিষদ (এনইসি)। মূল এডিপি থেকে বৈদেশিক সহায়তা অংশে ৯ হাজার কোটি টাকা কাটছাঁট করা হয়েছে।

অন্যদিকে সরকারি তহবিলের অংশে এক হাজার কোটি টাকা বাড়িয়ে সংশোধিত এডিপির এ আকার নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে সভায় মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও ২ হাজার কোটি টাকা বাড়িয়ে দিয়েছেন বলে জানা গেছে। সব মিলিয়ে সংশোধিত এডিপির আকার দাঁড়াবে ১ লাখ ৬৭ হাজার কোটি টাকা। মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও এনইসি চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। এ সময় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম, পরিকল্পনা সচিব নুরুল আমিন, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীসহ পরিকল্পনা কমিশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রকল্পের তদারকি নিশ্চিত করতে বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যয়ন বিভাগকে (আইএমইডি) শক্তিশালী করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এক্ষেত্রে আইএমইডির বিভাগী অফিস স্থাপন, জনবল ও যানবাহন বৃদ্ধি, কারিগরি প্রকল্পের জন্য ইঞ্জিনিয়ারিং ল্যাব গঠন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেছেন, প্রকল্প বাস্তবায়নে ফসলি জমি বা জলাধার ব্যবহার করা যাবে না। কাজ শেষ হওয়ার তিন মাসের মধেই পিসিআর বা প্রকল্প সমাপ্ত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে।

কাজ শেষে প্রকল্পের গাড়ি, অফিস ও অন্যান্য সরঞ্জাম যথাস্থানে জমা দিতে হবে। পরামর্শক নিয়োগের ক্ষেত্রে দেশেই যারা অবসরে গিয়েছেন তাদের মধ্য থেকে নিয়োগে গুরুত্ব দিতে হবে। এছাড়া সরকারি বিল্ডিং করার ক্ষেত্রে ভূমিকম্প সহনীয় করতে অবশ্যই ইআইএ (পরিবেশ সংক্রান্ত) প্রতিবেদন তৈরি করতে হবে। এছাড়া পরিচালকদের প্রকল্প এলাকায় থাকতে হবে এবং একটি প্রকল্পের জন্য একজন পরিচালক নিয়োগ করতে হবে। তবে বিশেষ ক্ষেত্রে কারিগরি লোক পাওয়া না গেলে সেক্ষেত্রে অনুমোদন সাপেক্ষে একাধিক প্রকল্পে একজন পিডি থাকতে পারবেন। বৈঠকে আইএমইডির পক্ষ থেকে প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ১৫টি সমস্যা তুলে ধরেছেন বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী।

ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, মূল বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার ছিল (স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার বরাদ্দ ছাড়া) ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা থেকে ৮ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে সংশোধিত এডিপির আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে মূল এডিপিতে বৈদেশিক সহায়তা অংশে বরাদ্দ ছিল ৬০ হাজার কোটি টাকা। সেখান থেকে ৯ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৫১ হাজার কোটি টাকা।

অন্যদিকে সরকারি তহবিলের (জিওবি) অংশে মূল এডিপিতে বরাদ্দ ছিল ১ লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকা। সেখান থেকে এক হাজার কোটি টাকা বাড়িয়ে সংশোধিত বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১ লাখ ১৪ হাজার কোটি টাকা। তবে এসবের বাইরে স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলোর নিজস্ব অর্থায়নসহ মূল এডিপির আকার ছিল ১ লাখ ৮০ হাজার ৮৬৯ কোটি টাকা। সংশোধিত এডিপিতে স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে ৮ হাজার ৭১ কোটি টাকা বরাদ্দ ধরে মোট সংশোধিত এডিপির আকার দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৭১ কোটি টাকা।

তবে নতুন করে দুই হাজার কোটি টাকা যোগ হলে আকার আরও বাড়বে। পরিকল্পনা কমিশন সূত্র জানায়, সংশোধিত এডিপিতে স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব প্রকল্পসহ মোট বরাদ্দসহ অন্তর্ভুক্ত প্রকল্প রয়েছে ১ হাজার ৯১৬টি। মূল এডিপিতে মোট প্রকল্প সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৪৫১টি। প্রকল্প বেড়েছে ৪৬৫টি। সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দহীনভাবে ৯৮৭টি নতুন প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বৈদেশিক সহায়তা প্রাপ্তির সুবিধার্থে ২৫৬টি বরাদ্দহীন অননুমোদিত নতুন প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×