ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানিতে সঞ্চালন লাইন হচ্ছে

বিভাগীয় শহরগুলোতে ১০০ শস্যার ক্যান্সার চিকিৎসা কেন্দ্র হবে * একনেকে ৯ হাজার কোটি টাকার ৮ প্রকল্প অনুমোদন

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভারতের ঝাড়খণ্ড থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করবে সরকার। সেখানে ১ হাজার ৬০০ মেগাওয়াটের একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে। সেই বিদ্যুৎ আনার জন্য তৈরি করা হবে একটি সঞ্চালন লাইন। এ সংক্রান্ত একটিসহ ৮টি উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এগুলো বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৯৬৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ৮ হাজার ৯৫২ কোটি ৫৯ লাখ এবং বাস্তবায়নকারী সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে ১৫ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে। মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। এ সময় পরিকল্পনা সচিব মো. নুরুল আমিন, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, আইএমইডির সচিব আবুল মনসুর মো. ফয়েজ উল্লাহ এবং শিল্প ও শক্তি বিভাগের সদস্য শামীমা নার্গিসসহ অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ভারতের ঝাড়খণ্ডে আদানি গ্রুপের একটি বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে। সেখান থেকে আমরা বিদ্যুৎ আমদানি করব। তাছাড়া প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমরা যে শুধু বিদ্যুৎ আমদানি করব সেটি নয়, আমাদের এখানে যখন বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে তখন এই সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে যাতে রফতানিও করা যায় সেভাবেই লাইনটি তৈরি করতে হবে। ‘ভারতের ঝাড়খণ্ড থেকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ আমদানি করার লক্ষ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার রহনপুর থেকে মনাকষা সীমান্ত পর্যন্ত ৪০০ কেভি সঞ্চালন লাইন নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২২৫ কোটি টাকা। এটি চলতি বছর থেকে ২০২১ সালে ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া ক্যান্সার রোগের প্রার্দুভাব বেশি হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী বিভাগীয় শহরগুলোতে ১০০ শয্যার ক্যান্সার সেন্টার তৈরির প্রকল্পটি অনুমোদন করা হয়েছে। এটি অনুমোদন দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো প্রশ্ন উপস্থাপন করেননি। ভেজাল খাবারসহ নানা কারণে ক্যান্সার রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এই রোগ প্রতিরোধ করা জরুরি।

একনেকে অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলো হচ্ছে- ময়মনসিংহ ফুলপুর-নকলা-শেরপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন প্রকল্প। এটি বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ৮৫৫ কোটি টাকা। এছাড়া রাজশাহী-নওহাটা-চৌমাসিয়া সড়কের বিন্দুর মোড় থেকে বিমানবন্দর হয়ে নওহাটা ব্রিজ পর্যন্ত পেভমেন্ট ৪ লেনে উন্নীতকরণ, ব্যয় ৩২৬ কোটি টাকা। রাজশাহী মহানগরীর উপশহর মোড় থেকে সোনাদীঘি মোড় এবং মালোপাড়া মোড় থেকে সাগরপাড়া মোড় পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ ও উন্নয়ন, ব্যয় ১২৬ কোটি টাকা। আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের ব্যয় ৪ হাজার ৮২৬ কোটি টাকা। জুনোসিস এবং আন্তঃসীমান্তীয় প্রাণিরোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ গবেষণা, ব্যয় ১৫০ কোটি টাকা। স্ট্রেনদেনিং মনিটরিং অ্যান্ড ইভালুয়েশন ক্যাপাবিলিটিজ অব আইএমইডি, ব্যয় ৬৮ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। বিভাগীয় শহরে সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১০০ শয্যাবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসা কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৩৮৮ কোটি টাকা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×