রেমিট্যান্স প্রবাহ কমছে ডলারের দাম বাড়ছে
jugantor
রেমিট্যান্স প্রবাহ কমছে ডলারের দাম বাড়ছে

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রেমিট্যান্স প্রবাহ কমছে ডলারের দাম বাড়ছে

প্রবাসীদের পাঠানো আয় বা রেমিট্যান্স প্রবাহ গত তিন মাস ধরে ধারাবাহিকভাবে কমছে। প্রত্যাশা অনুযায়ী আসছে না রপ্তানি আয়ও। অন্য দিকে আমদানি ব্যয় বেড়েছে। ফলে এক দিকে বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ কমেছে, অন্য দিকে আমদানি বাড়ায় ডলারের চাহিদা বাড়ছে। এতে বাজারে চাহিদা অনুযায়ী ডলার মিলছে না। বাজারের ডলারের ঘাটতির কারণে বাড়ছে টাকার বিপরীতে ডলারের দাম। ফলে টাকার মান কমে ভোক্তার ক্রয়ক্ষমতাও কমিয়ে দিচ্ছে।

সূত্র জানায়, করোনায় স্থবিরতার পর এখন ব্যবসা বাণিজ্য স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। এতে আমদানি বাড়ায় বাজারে ডলারের চাহিদা বেড়েছে। এ ছাড়া করোনার কারণে দীর্ঘ প্রায় দুই বছর বিদেশ ভ্রমণ ও চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়া ও শিক্ষার্থীদের বিদেশি ব্যয় মেটানোর চাহিদা ছিল না। এখন এসব খাতে ডলারের ব্যয় বাড়ায় চাহিদাও বাড়ছে।

সর্বশেষ আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলারের বিনিময় মূল্য দাঁড়িয়েছে ৮৫ টাকা ৩০ পয়সা যা এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ মূল্য। তবে খোলাবাজার ও নগদ মূল্যে ডলার ৮৮ থেকে ৮৯ টাকায় কেনাবেচা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে পর্যাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রা মজুত রয়েছে। এখন বাজার স্থিতিশীল রাখতে ব্যাংকগুলোর চাহিদার বিপরীতে ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। দীর্ঘদিন স্থিতিশীল থাকার পর গত মাসের শুরুতে (আগস্ট) হঠাৎ টাকার বিপরীতে বাড়তে শুরু করে ডলারের দাম যা এখন পর্যন্ত অব্যাহত আছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২২ সেপ্টেম্বর থেকে ব্যাংকগুলো নিজেদের মধ্যে ৮৫ টাকা ৩০ পয়সা দরে ডলার লেনদেন করছে। মাসের শুরুতে গত ২ সেপ্টেম্বর এ দর ছিল ৮৫ টাকা ২০ পয়সা। আর গত মাসের শুরুতে আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে ডলারের দাম ছিল ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা। এ হিসাবে ৩৪ কর্মদিবসের ব্যবধানে ডলারের বিপরীতে ৫০ পয়সা দর হারিয়েছে টাকা। এর আগে ২০২০ সালের জুলাই থেকেই ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা স্থিতিশীল ছিল ডলার।

এদিকে যখন বাজারে বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ বেশি ছিল তখন ডলার কিনেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন সরবরাহ কমে যাওয়ায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাজারের চাহিদা অনুযায়ী ডলার বিক্রি করছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, আগস্ট মাসে বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের চাহিদা অনুযায়ী ৩০ কোটি ৫০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেপ্টেম্বরের ২০ দিনে আরও ১১ কোটি ৫০ লাখ ডলার বিক্রি করা হয়। এর আগে বাজার স্থিতিশীল রাখতে ডলার কেনায় রেকর্ড গড়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে সব মিলিয়ে প্রায় ৮ বিলিয়ন (৮০০ কোটি) ডলার কেনে। এর আগে ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৫ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

গত অর্থবছরের আগে সেটিই ছিল সর্বোচ্চ ডলার কেনার রেকর্ড। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়েও ২০ কোটি ৫০ লাখ ডলার কেনে আর্থিক খাতের এ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। ব্যাংকগুলোর তথ্য অনুযায়ী, আমদানি দায় মেটাতে ব্যবসায়ীদের থেকে দেশি ও বিদেশি খাতের বেশির ভাগ ব্যাংক প্রতি ডলারে ৮৫ টাকা ৩৫ পয়সা পর্যন্ত নিচ্ছে। তবে নগদ ডলারের মূল্য বেশির ভাগ ব্যাংকে ৮৭ টাকার উপরে রয়েছে। কয়েকটি ব্যাংকে নগদ ডলারের মূল্য ৮৮ টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েবসাইটে সবশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর ব্যাংকগুলোর ঘোষিত মুদ্রা বিনিময় হার অনুযায়ী, নগদ ডলারের দর সবচেয়ে বেশি উঠেছে ব্র্যাক ও এনআরবিসি ব্যাংকের। ব্যাংকগুলোর নগদ ডলারের দর ছিল ৮৮ টাকা ৫০ পয়সা। এ ছাড়া বেশির ভাগ ব্যাংকই ৮৭ টাকা থেকে ৮৮ টাকায় ডলার বিক্রি করছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, মহামারি করোনার শুরুর দিকে প্রবাসী আয়ের চাঙ্গাভাব চলতি বছরের জুন থেকে নিুমুখী প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। গত বছরের জুলাই মাসে আমদানি বাবদ ৪২২ কোটি ডলার খরচ করেছে বাংলাদেশ। চলতি বছরের জুলাইয়ে খরচের এ পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫১৪ কোটি ডলার। এ হিসাবে আমদানি খরচ বেড়েছে ২১ দশমিক ৬০ শতাংশ। এসব কারণে ডলারের চাহিদা বাড়ছে।

রেমিট্যান্স প্রবাহ কমছে ডলারের দাম বাড়ছে

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
রেমিট্যান্স প্রবাহ কমছে ডলারের দাম বাড়ছে
ফাইল ছবি

প্রবাসীদের পাঠানো আয় বা রেমিট্যান্স প্রবাহ গত তিন মাস ধরে ধারাবাহিকভাবে কমছে। প্রত্যাশা অনুযায়ী আসছে না রপ্তানি আয়ও। অন্য দিকে আমদানি ব্যয় বেড়েছে। ফলে এক দিকে বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ কমেছে, অন্য দিকে আমদানি বাড়ায় ডলারের চাহিদা বাড়ছে। এতে বাজারে চাহিদা অনুযায়ী ডলার মিলছে না। বাজারের ডলারের ঘাটতির কারণে বাড়ছে টাকার বিপরীতে ডলারের দাম। ফলে টাকার মান কমে ভোক্তার ক্রয়ক্ষমতাও কমিয়ে দিচ্ছে।

সূত্র জানায়, করোনায় স্থবিরতার পর এখন ব্যবসা বাণিজ্য স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। এতে আমদানি বাড়ায় বাজারে ডলারের চাহিদা বেড়েছে। এ ছাড়া করোনার কারণে দীর্ঘ প্রায় দুই বছর বিদেশ ভ্রমণ ও চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়া ও শিক্ষার্থীদের বিদেশি ব্যয় মেটানোর চাহিদা ছিল না। এখন এসব খাতে ডলারের ব্যয় বাড়ায় চাহিদাও বাড়ছে।

সর্বশেষ আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলারের বিনিময় মূল্য দাঁড়িয়েছে ৮৫ টাকা ৩০ পয়সা যা এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ মূল্য। তবে খোলাবাজার ও নগদ মূল্যে ডলার ৮৮ থেকে ৮৯ টাকায় কেনাবেচা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে পর্যাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রা মজুত রয়েছে। এখন বাজার স্থিতিশীল রাখতে ব্যাংকগুলোর চাহিদার বিপরীতে ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। দীর্ঘদিন স্থিতিশীল থাকার পর গত মাসের শুরুতে (আগস্ট) হঠাৎ টাকার বিপরীতে বাড়তে শুরু করে ডলারের দাম যা এখন পর্যন্ত অব্যাহত আছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২২ সেপ্টেম্বর থেকে ব্যাংকগুলো নিজেদের মধ্যে ৮৫ টাকা ৩০ পয়সা দরে ডলার লেনদেন করছে। মাসের শুরুতে গত ২ সেপ্টেম্বর এ দর ছিল ৮৫ টাকা ২০ পয়সা। আর গত মাসের শুরুতে আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে ডলারের দাম ছিল ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা। এ হিসাবে ৩৪ কর্মদিবসের ব্যবধানে ডলারের বিপরীতে ৫০ পয়সা দর হারিয়েছে টাকা। এর আগে ২০২০ সালের জুলাই থেকেই ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা স্থিতিশীল ছিল ডলার।

এদিকে যখন বাজারে বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ বেশি ছিল তখন ডলার কিনেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন সরবরাহ কমে যাওয়ায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাজারের চাহিদা অনুযায়ী ডলার বিক্রি করছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, আগস্ট মাসে বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের চাহিদা অনুযায়ী ৩০ কোটি ৫০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেপ্টেম্বরের ২০ দিনে আরও ১১ কোটি ৫০ লাখ ডলার বিক্রি করা হয়। এর আগে বাজার স্থিতিশীল রাখতে ডলার কেনায় রেকর্ড গড়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে সব মিলিয়ে প্রায় ৮ বিলিয়ন (৮০০ কোটি) ডলার কেনে। এর আগে ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৫ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

গত অর্থবছরের আগে সেটিই ছিল সর্বোচ্চ ডলার কেনার রেকর্ড। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়েও ২০ কোটি ৫০ লাখ ডলার কেনে আর্থিক খাতের এ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। ব্যাংকগুলোর তথ্য অনুযায়ী, আমদানি দায় মেটাতে ব্যবসায়ীদের থেকে দেশি ও বিদেশি খাতের বেশির ভাগ ব্যাংক প্রতি ডলারে ৮৫ টাকা ৩৫ পয়সা পর্যন্ত নিচ্ছে। তবে নগদ ডলারের মূল্য বেশির ভাগ ব্যাংকে ৮৭ টাকার উপরে রয়েছে। কয়েকটি ব্যাংকে নগদ ডলারের মূল্য ৮৮ টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েবসাইটে সবশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর ব্যাংকগুলোর ঘোষিত মুদ্রা বিনিময় হার অনুযায়ী, নগদ ডলারের দর সবচেয়ে বেশি উঠেছে ব্র্যাক ও এনআরবিসি ব্যাংকের। ব্যাংকগুলোর নগদ ডলারের দর ছিল ৮৮ টাকা ৫০ পয়সা। এ ছাড়া বেশির ভাগ ব্যাংকই ৮৭ টাকা থেকে ৮৮ টাকায় ডলার বিক্রি করছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, মহামারি করোনার শুরুর দিকে প্রবাসী আয়ের চাঙ্গাভাব চলতি বছরের জুন থেকে নিুমুখী প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। গত বছরের জুলাই মাসে আমদানি বাবদ ৪২২ কোটি ডলার খরচ করেছে বাংলাদেশ। চলতি বছরের জুলাইয়ে খরচের এ পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫১৪ কোটি ডলার। এ হিসাবে আমদানি খরচ বেড়েছে ২১ দশমিক ৬০ শতাংশ। এসব কারণে ডলারের চাহিদা বাড়ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন