চিনির বিশ্ববাজারে আশার আলো
jugantor
এক নজরে
চিনির বিশ্ববাজারে আশার আলো

   

১৬ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্ববাজারে বর্তমান চিনির সংকট তীব্র। শীর্ষ উৎপাদক দেশ ব্রাজিলে খরার প্রভাবে চিনি শিল্প প্রায় পঙ্গু হয়ে পড়েছে। সরবরাহ নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে দিন কাটছে চিনি আমদানিনির্ভর দেশগুলোর। টালমাটাল এ পরিস্থিতির মধ্যেই বিশ্ববাজারে সম্ভাবনার আশা জাগাচ্ছে এশিয়া ও ইউরোপ। এ দুই মহাদেশে চিনির ঊর্ধ্বমুখী উৎপাদন সরবরাহ ঘাটতিতে ভারসাম্য নিয়ে আসবে বলে প্রত্যাশা বাজারসংশ্লিষ্টদের। পণ্যবাজারের নেতৃস্থানীয় তথ্য সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান স্টোনএক্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, বৈশ্বিক চিনি উৎপাদনে ষষ্ঠ থাইল্যান্ড। নতুন মৌসুমে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে ভোগ্যপণ্যটির উৎপাদন ৩৯ শতাংশ বেড়ে ১ কোটি ৫ লাখ টনে উন্নীত হতে পারে। এদিকে গত মৌসুমের মতো নতুন মৌসুমেও ভারতে আখ উৎপাদন ভালো হয়েছে। ফলে গত মৌসুমের তুলনায় চিনি উৎপাদন ২ শতাংশ বেড়ে ৩ কোটি ১৫ লাখ টনে পৌঁছানোর সম্ভাবনা রয়েছে। এশিয়ায় সব মিলিয়ে অনুকূল আবহাওয়া পরিস্থিতি এসব দেশের উৎপাদন বাড়াতে প্রধান ভূমিকা রাখবে। অন্যদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাজ্যে ২০২১-২২ মৌসুমে চিনি উৎপাদন প্রায় ১২ শতাংশ বৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছে স্টোনএক্স। আগামী বছরের সেপ্টেম্বরে মৌসুম শেষে এ অঞ্চলে চিনি উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়াবে ১ কোটি ৭২ লাখ টনে। যুগান্তর ডেস্ক।

এক নজরে

চিনির বিশ্ববাজারে আশার আলো

  
১৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্ববাজারে বর্তমান চিনির সংকট তীব্র। শীর্ষ উৎপাদক দেশ ব্রাজিলে খরার প্রভাবে চিনি শিল্প প্রায় পঙ্গু হয়ে পড়েছে। সরবরাহ নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে দিন কাটছে চিনি আমদানিনির্ভর দেশগুলোর। টালমাটাল এ পরিস্থিতির মধ্যেই বিশ্ববাজারে সম্ভাবনার আশা জাগাচ্ছে এশিয়া ও ইউরোপ। এ দুই মহাদেশে চিনির ঊর্ধ্বমুখী উৎপাদন সরবরাহ ঘাটতিতে ভারসাম্য নিয়ে আসবে বলে প্রত্যাশা বাজারসংশ্লিষ্টদের। পণ্যবাজারের নেতৃস্থানীয় তথ্য সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান স্টোনএক্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, বৈশ্বিক চিনি উৎপাদনে ষষ্ঠ থাইল্যান্ড। নতুন মৌসুমে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে ভোগ্যপণ্যটির উৎপাদন ৩৯ শতাংশ বেড়ে ১ কোটি ৫ লাখ টনে উন্নীত হতে পারে। এদিকে গত মৌসুমের মতো নতুন মৌসুমেও ভারতে আখ উৎপাদন ভালো হয়েছে। ফলে গত মৌসুমের তুলনায় চিনি উৎপাদন ২ শতাংশ বেড়ে ৩ কোটি ১৫ লাখ টনে পৌঁছানোর সম্ভাবনা রয়েছে। এশিয়ায় সব মিলিয়ে অনুকূল আবহাওয়া পরিস্থিতি এসব দেশের উৎপাদন বাড়াতে প্রধান ভূমিকা রাখবে। অন্যদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাজ্যে ২০২১-২২ মৌসুমে চিনি উৎপাদন প্রায় ১২ শতাংশ বৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছে স্টোনএক্স। আগামী বছরের সেপ্টেম্বরে মৌসুম শেষে এ অঞ্চলে চিনি উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়াবে ১ কোটি ৭২ লাখ টনে। যুগান্তর ডেস্ক।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন