রোহিঙ্গাদের জন্য অনুদান

সমন্বিত সহায়তা দেবে বিশ্বব্যাংক

শর্ত হিসেবে শিগগিরই কর্মপরিকল্পনা পাঠাচ্ছে সরকার

  হামিদ-উজ-জামান ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সমন্বিত সহায়তা দেবে বিশ্বব্যাংক
বিশ্বব্যাংক

মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্বব্যাংকের অনুদান দেয়ার প্রক্রিয়া এগিয়ে চলছে। তবে সমন্বিত সহায়তার পক্ষে রয়েছে সংস্থাটি। অর্থাৎ শুধু রোহিঙ্গাদের জন্যই নয়, ওই এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্যও উপকার হয় এরকম কার্যক্রম বাস্তবায়নে কর্মসূচি নেয়ার বিষয়ে মত দিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

১৪ মে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) কর্মকর্তাদের সঙ্গে সংস্থাটির রোহিঙ্গা সহায়তা সংক্রান্ত মিশনের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে সংস্থাটির পক্ষ থেকে এমনই আভাস পাওয়া গেছে। এছাড়া রোহিঙ্গাদের জন্য অনুদান পাওয়ার অন্যতম শর্ত হিসেবে একটি কর্মপরিকল্পনা জমা দিতে হবে বিশ্বব্যাংকের কাছে। এরই মধ্যে সেটির খসড়া তৈরি করা হয়েছে।

বর্তমানে খসড়া এই কর্মপরিকল্পনার ওপর মতামত বা অনাপত্তির জন্য পাঠানো হয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে। শিগগিরই এটি চূড়ান্ত করে বিশ্বব্যাংকের কাছে পাঠানো হবে। ইআরডি ও বিশ্বব্যাংকের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

অন্যদিকে রোহিঙ্গাদের জন্য ভাসানচরে বসতি স্থাপন প্রকল্পে আগামী অর্থবছরে (২০১৮-১৯) বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে ৪১৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় এ বরাদ্দ নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আওতায় আশ্রয়ণ-৩ (নেয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলায় চরঈশ্বর ইউনিয়নে ভাসানচরে বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের ১ লাখ নাগরিকের আবাসন এবং দ্বীপের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ) প্রকল্প বাস্তবায়নে এ অর্থ ব্যয় করা হবে। এটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৩১২ কোটি ১৫ লাখ টাকা।

২০১৭ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করা হবে। চলতি অর্থবছরে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল ১ হাজার ৮৯৮ কোটি ৪৫ লাখ টাকা।

সূত্র জানায়, ১৫ মে কর্মপরিকল্পনার ওপর মতামত বা অনাপত্তিপত্র দিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে খসড়া পাঠিয়েছে ইআরডি। এতে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গা শরণার্থী ও আশ্রয় প্রদানকারী স্থানীয় জনগণের জীবনমান উন্নয়নে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো ও সেবা খাতে সহযোগিতার জন্য বিশ্বব্যাংক অনুদান সহায়তা প্রদানে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

এ সংক্রান্ত একটি মিশন ৬ থেকে ১৫ মে পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করেছে। ওই সহযোগিতা গ্রহণের পূর্ব শর্ত হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে একটি কর্মপরিকল্পনা বিশ্বব্যাংককে প্রদান করতে হবে। এ বিষয়ে একটি খসড়া কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে। এ পরিকল্পনাটি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ২০১৪ সালের ৩১ মার্চের স্ট্র্যাটেজি পেপারের আলোকে তৈরি করা হয়েছে।

এ অবস্থায় প্রস্তাবিত কর্মপরিকল্পনার ওপর মতামত বা অনাপত্তি ২১ মের মধ্যে ইআরডিতে পাঠানোর কথা ছিল। কিন্তু ২২ মে পর্যন্ত এটি ইআরডিতে পাঠানো হয়নি।

সূত্র জানায়, ২০-২২ এপ্রিল ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বসন্তকালীন বৈঠকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত রোহিঙ্গাদের জন্য অনুদানের বিষয়টি আলোচনা করেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে অনুদান দিতে সম্মত হয় সংস্থাটি। পরবর্তী সময়ে কীভাবে এবং কোন কোন খাতে সহায়তা দেবে, সেটি নির্ধারণে ৬ মে থেকে কাজ শুরু করেছে বিশ্বব্যাংকের একটি মিশন। ১৫ মে পর্যন্ত কাজ করে শেষদিন তারা বৈঠক করে ইআরডির সঙ্গে। এর মাঝে ১৬ সদস্যের এ মিশনটি ৮-১০ মে কক্সবাজারের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছিল।

বিশ্বব্যাংকের একটি সূত্র যুগান্তরকে জানায়, এ মিশনটি যখন রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করে, তখন তাদের কাছে মনে হয়েছে স্থানীয় বাসিন্দা এবং রোহিঙ্গা- উভয় পক্ষের জন্যই সহায়তা প্রয়োজন। তবে বিশ্বব্যাংক সমন্বিত সহায়তা দেবে কি না, সে বিষয়টি এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। সরকারের কর্মপরিকল্পনা পেলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানাবে সংস্থাটি।

সূত্র জানায়, বিশ্বব্যাংকের নবগঠিত রিফিউজি উইন্ডো থেকে যে কোনো দেশ তিন বছরে ৪০ কোটি মার্কিন ডলার বা ৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা পর্যন্ত অর্থ সহায়তা নিতে পারে। আইডিএ-১৮তে ‘রিফিউজি উইন্ডো’ নামে নতুন এই তহবিল গঠন করা হয়েছে। এর পরিমাণ ২০০ কোটি ডলার।

২০১৭ সালের আগস্ট থেকে ব্যাপক হারে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী বাংলাদেশে আসতে শুরু করে। মানবিক কারণে আশ্রয় দিলেও বাংলাদেশের পক্ষে তাদের ভরণপোষণ ও যতদিন এখানে অবস্থান করবেন ততদিন সুস্থ জীবন নিশ্চিত করা কষ্টকর। এ পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বব্যাংকের সহযোগী সংস্থা আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার (আইডিএ) নতুন শরণার্থী তহবিল থেকে ২৫ কোটি মার্কিন ডলার সহায়তা চায় বাংলাদেশ।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.