পাঠাও-উবারে গ্রাহকের ভ্যাট নেই

প্রকাশ : ০৩ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে বেশকিছু নতুন খাতে মূল্য সংযোজন কর (মূসক বা ভ্যাট) আরোপ করা হয়, যার মধ্যে উবার-পাঠাওয়ের মতো রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলো অন্যতম।

এ খাতে ভ্যাট আরোপ করায় খরচ বৃদ্ধির শঙ্কায় পড়েন আরামদায়ক ও যানজট এড়িয়ে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছতে চাওয়া রাজধানীবাসী। ব্যবহারকারীদের ধারণা, এ ভ্যাট তাদের কাছ থেকে আদায় করা হবে।

কিন্তু জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বলছে, ব্যবহারকারীদের ওপর ভ্যাট আরোপ করা হয়নি। চালক ও রাইড শেয়ারিং কোম্পানির মধ্যে কমিশনের অর্থ ভাগাভাগির পর কোম্পানিগুলো যে পরিমাণ কমিশন পাবে তার ওপর ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে।

২৮ জুন এ সংক্রান্ত একটি ব্যাখ্যা জারি করেছে এনবিআর। এতে বলা হয়েছে, বর্তমানে মোবাইল অ্যাপভিত্তিক বিভিন্ন পরিবহনের রাইড শেয়ারিং সেবা খুব দ্রুত জনপ্রিয় হয়েছে।

কিন্তু এ সেবাটি ভ্যাট অব্যাহতিপ্রাপ্ত দ্বিতীয় তফসিলের অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় ভ্যাট অব্যাহতিপ্রাপ্ত নয়। ভ্যাট আইনের দ্বিতীয় তফসিলের অনুচ্ছেদ ৬-এর (গ) অনুযায়ী সব ধরনের বাহনের চালকের সেবা ব্যক্তিগত সেবা হিসেবে ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা ভোগ করে।

তাই গাড়ির চালক সেবার বিপরীতে যে অংশ প্রকৃতপক্ষে নিজে গ্রহণ করেন সে অংশটুকু ভ্যাট অব্যাহতিপ্রাপ্ত। তা ব্যতীত রাইড শেয়ারিং অ্যাপ পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান বা কর্তৃপক্ষ যে পরিমাণ কমিশন পায় তার ওপর ৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আদায়যোগ্য হবে।

অনলাইন পণ্য কেনাবেচায় ভ্যাট অস্পষ্টতা দূর করতে এনবিআরের নতুন ব্যাখ্যা : এদিকে অনলাইনে ব্যবসা-বাণিজ্যের ওপর ভ্যাট আরোপ সংক্রান্ত অস্পষ্টতা দূর করতে ‘সোশ্যাল মিডিয়া ও ভার্চুয়াল বিজনেস’-এর ব্যাখ্যা দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

যদিও এ খাতের উদ্যোক্তারা বলছেন, এ ব্যাখ্যায় অস্পষ্টতা পুরোপুরি দূর হয়নি। ২৮ জুন জারি করা ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, এখন থেকে ইলেকট্রনিক নেটওয়ার্ক ব্যবহারের মাধ্যমে ইন্টারনেট বা ওয়েব বা সামাজিক মাধ্যম (যেমন- ফেসবুক) বা মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনভিত্তিক প্লাটফর্ম বা এমন মাধ্যম ব্যবহার করে বিজ্ঞাপন, পরিবহন যোগাযোগ স্থাপন (যেমন- উবার, পাঠাও), ই-কমার্সভিত্তিক গাড়ি, আসবাবপত্র, এয়ারকন্ডিশন, ফ্রিজার, রিফ্রিজারেটর, টেলিভিশন, ওয়াশিং মেশিন, ক্যামেরা, হোম থিয়েটার, গয়না, বিদেশি ব্র্যান্ডের পোশাক ও জুতা ইত্যাদি পণ্য বা সেবা কেনাবেচা করলে ৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হবে।

তবে টেলিকম অপারেটরদের প্রদত্ত যে কোনো ধরনের মোবাইল ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিসের ক্ষেত্রে এ ভ্যাট অন্তর্ভুক্ত হবে না।