সংবাদ সম্মেলনে আইডিবি প্রেসিডেন্ট

অবকাঠামোয় বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধির তাগিদ

আঞ্চলিক সদস্য দেশগুলোর কার্যক্রম পরিচালিত হবে ঢাকা থেকে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সংবাদ সম্মেলনে আইডিবি প্রেসিডেন্ট
ছবি: যুগান্তর

অবকাঠামো খাতে বেসরকারি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার তাগিদ দিয়েছেন ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট বান্দার বিন মোহাম্মদ বিন হামজা আসাদ আল হাজ্জার।

কারণ হিসেবে তিনি বলেন, আইডিবির সদস্য দেশগুলোর অবকাঠামো খাতে আগামী দিনে ১ হাজার বিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ প্রয়োজন হবে। কিন্তু আইডিবিসহ অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার মোট তহবিলের পরিমাণ ১৪৬ বিলিয়ন ডলার। এ খাতে ব্যাপক অর্থায়ন ঘাটতি থেকেই যাচ্ছে।

আর এ ঘাটতি পূরণ করতে পারে বেসরকারি খাত। সেজন্য বেসরকারি বিনিয়োগকারীরা যাতে এগিয়ে আসতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, সদস্য দেশগুলোকে তার পরিবেশ তৈরি করতে হবে।

রোববার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে আইডিবি ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলেনে এ তাগিদ দেন তিনি। তিনি জানান, ঢাকায় আঞ্চলিক কার্যালয় তৈরি হওয়ায় এই অঞ্চলের ২৬টি দেশের কার্যক্রম পরিচালিত হবে বাংলাদেশ থেকে। এর মধ্যে ১৮টি দেশ আইডিবির সদস্য।

ঢাকায় ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের রিজিওনাল হাব (আঞ্চলিক কার্যালয়) স্থাপন এবং উদ্ভাবক ও বিজ্ঞানী তৈরিতে নবগঠিত ‘ট্রান্সফরমারস ফান্ড’ বিষয়ে জানাতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, আইডিবির প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা ড. হায়াত সিন্ধি, আইটিএফসি-ইএনজির সিইও হাসি সালেম সনবল প্রমুখ।

এ সময় অর্থমন্ত্রী বলেন, সহজ সুদের ঋণের দিন ফুরিয়ে আসছে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের সক্ষমতাও বেড়েছে। বিশেষ করে ঋণ নোগোশিয়েশনের ক্ষেত্রে আমরা এখন দরকষাকষি করতে পারি। সেই যোগ্যতা হয়েছে। এখন আমরা বিশ্বব্যাংক থেকে সহজ শর্তের পাশাপাশি স্কেল-আপ ফ্যাসিলিটিজ ফান্ড থেকেও কিছুটা বেশি সুদে ঋণ নিচ্ছি।

বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলো এখন গুরুত্ব দিচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় আইডিবি আঞ্চলিক হাব খুলেছে। বাংলাদেশের প্রশংসা করে আইডিবি প্রেসিডেন্ট বলেন, ঋণ পরিশোধের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেক ভালো করছে।

দেশটির পারফরম্যান্স ভালো। তাছাড়া জিডিপি প্রবৃদ্ধি বাড়ছে, আর্থিক ব্যবস্থাপনায় উন্নতি করেছে সেই সঙ্গে ভৌগোলিক দিক থেকেও সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশে।

সবকিছু বিবেচনা করেই আঞ্চলিত হাব তৈরির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ‘ঢাকা আঞ্চলিক হাব থেকে পার্শ্ববর্তী ভারত, আফগানিস্তান, মালদ্বীপ, চীন, শ্রীলংকাসহ আরও অনেক দেশে কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। আইডিবির অর্থায়ন ও কর্মকাণ্ড বিকেন্দ্রীকরণের যে পরিকল্পনা রয়েছে, এটি তারই অংশ। শুধু মুসলিম দেশগুলোয় নয়, অমুসলিম দেশগুলোয়ও ঋণ সহযোগিতা দিচ্ছে আইডিবি। যেখানে কারিগরি সহযোগিতা দেয়া প্রয়োজন, সেখানে তা দেয়া হচ্ছে।

আইডিবির সদস্য নয়- এমন দেশগুলোকেও ঋণ দেয়া হবে। তিনি জানান, উদ্ভাবক ও বিজ্ঞানী তৈরিতে ৫০ কোটি ডলারের একটি তহবিল গঠন করেছে আইডিবি। তহবিলটির নাম দেয়া হয়েছে ‘ট্রান্সফরমারস ফান্ড’।

আইডিবির সদস্য দেশগুলোর মধ্যে নতুন ধারণার উদ্ভাবক, বিজ্ঞানী ও উদ্যোক্তা তৈরিতে এই অর্থ ব্যয় হবে। আইডিবির ঢাকা কার্যালয় সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর উদ্বাবনী ও আইডিয়া বাস্তবায়নে সাহায়তা করবে। প্রযুক্তি দিন দিন এগিয়ে যাচ্ছে, প্রযুক্তি উন্নয়নে যে আইডিয়াগুলো নেয়া হবে তার জন্য পর্যাপ্ত আর্থিক সহায়তা দেয়া হবে এই তহবিল থেকে।

এসডিজি বাস্তবায়নে এসব সৃজনশীল আইডিয়া ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। তিনি জানান, আইডিবি ৩ বছরের জন্য মেম্বার কান্ট্রি পার্টনারশিপ তৈরি করছে। এটি করা হবে নতুন করে। অর্থাৎ এখানে অ্যাপ্রোচের ক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন আনা হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঢাকায় নতুন যাত্রা শুরু করা আঞ্চলিক হাবটিতে ১৪ জন কর্মকর্তা কাজ করবেন। এদের মধ্যে ১০ জনই থাকবেন বাংলাদেশি আর বাকি চারজন বিদেশি কর্মকর্তা নিয়োজিত থাকবেন।

এক প্রশ্নের জবাবে সংস্থাটির প্রেসিডেন্ট বলেন, ১৯৭৪ সাল থেকে আইডিবি বাংলাদেশে প্রায় ২২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করেছে। এসব বিনিয়োগ এসেছে পানি, অবকাঠামো, পরিবহনসহ বিভিন্ন খাতে। এখন নতুন আঞ্চলিক হাব হওয়ায় সহযোগিতা আরও বৃদ্ধি পাবে।

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter