চুক্তি রক্ষায় জোর থাকবে দুই পক্ষের

ওয়াশিংটনে টিকফা ফোরামের বৈঠক শুরু আজ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সহযোগিতা ফোরাম সংক্রান্ত কাউন্সিলের (টিকফা ফোরাম) চতুর্থ বৈঠক শুরু হচ্ছে আজ। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনের ইউনাইটেড ট্রেড রিপ্রেজেনটেটিভের (ইউএসটিআর) কার্যালয়ে ১৩-১৪ সেপ্টেম্বর দুই দিনব্যাপী এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে। পারস্পরিক আস্থার ঘাটতি ও স্বার্থসংশ্লিষ্ট নীতি নির্ধারণের দুই দেশের সমান আগ্রহ নিয়ে এগিয়ে আসার অনিশ্চয়তা নিয়েই বসছে এই বৈঠক। ইতিমধ্যে বৈঠকের আলোচনায় যোগ দিতে বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসুর নেতৃত্বে ৬ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল আগেই ওয়াশিংটনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। আর যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে এ আলোচনায় নেতৃত্ব দেবেন মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি রবার্ট ই লাইটহাইজার।

এদিকে বৈঠকে যোগ দেয়ার আগেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দুই পক্ষের মধ্যে প্রাক আলোচনায় এ বৈঠকের আলোচনার ইস্যু চূড়ান্ত করা হয়। দ্বিপক্ষীয় সিদ্ধান্তে টিকফা ফোরামে বাংলাদেশ সুনির্দিষ্টভাবে পাঁচটি ইস্যুতে আলোচনা করার প্রস্তাব রাখতে যাচ্ছে। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রও অভিন্ন পাঁচটি ইস্যুতে আলোচনা করবে। তবে তারা দুটি স্বতন্ত্র প্রস্তাবে ৮টি সুনির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে দরকষাকষি করতে চায় বলে জানা গেছে। আলোচনার প্রথম ইস্যুটি দুই দেশেরই মধ্যেই অভিন্ন রাখা হয়েছে। অর্থাৎ চুক্তি রক্ষায় গুরুত্বারোপ, দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ উন্নয়ন এবং এ বিষয়ে দ্বিপক্ষীয় প্রতিশ্র“তি ব্যক্ত করা হবে আলোচনায়।

এছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশ মার্কিন বাজারে তৈরি পোশাকের রফতানিতে ন্যায্যমূল্য দেয়ার জোরালো আহ্বান জানাবে। এ লক্ষ্যে ক্রেতারা যাতে দ্বিপক্ষীয় লেনদেনে ন্যায্যমূল্য দেয়ার নিয়মিত চর্চা করে সেজন্য মার্কিন বাণিজ্য দফতরের কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ী নেতাদের প্রতি জোর দাবি জানাবে। বাংলাদেশে মার্কিন ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগ টানতে অর্থনৈতিক অঞ্চল দেয়ার প্রস্তাব করবে। এজন্য বিনিয়োগ আকর্ষণে বাংলাদেশ সরকার আইন করে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য যেসব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করেছে তা জোরালোভাবে তুলে ধরবে প্রতিনিধি দল। বিনিময়ে বাংলাদেশের আইসিটি, টেলিকমিউনিকেশন, এনার্জি ও অবকাঠামো উন্নয়ন খাতে যুক্তরাষ্ট্রের বিপুল বিনিয়োগ চাইবে। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র এ দেশে আরও বেশি প্রযুক্তি ও তথ্য বিনিময় এবং বাণিজ্য সম্পর্কিত দক্ষতা উন্নয়নে ভূমিকা রাখার পাশাপাশি ডব্লিউটিওর নিয়ম এবং ট্রেড ফ্যাসিলিটিজ এগ্রিমেন্ট (টিএফএ) চুক্তির বিদ্যমান সুযোগ-সুবিধা বাংলাদেশের বাজারের ক্ষেত্রেও প্রতিপালনের আহ্বান জানাবে। অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্র তাদের পণ্য ও সেবা রফতানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে আরও বেশি শুল্কমুক্ত সুবিধা দেয়ার প্রস্তাব করবে। এর বাইরে তারা বাংলাদেশে ব্যাংকিং চ্যানেলে বীমা সেবা চালু করার প্রস্তাব দেবে। ফার্মাসিউটিক্যালস পণ্যের আমদানি সনদ বাংলাদেশ যাতে আরও সহজীকরণের পদক্ষেপ নেয় সেটিও তারা গুরুত্বসহকারে তুলে ধরবে। ডিজিটাল ইকোনমির নামে তারা বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা সম্প্রসারণের জন্য বিশ্বের বৃহত্তর ই-কমার্স সাইট আমাজন ডটকমের সেবা বাংলাদেশে চালু করার প্রস্তাব দেবে। অন্যদিকে ব্যবসা ও জলবায়ু বিনিয়োগ শিরোনামে তিন নম্বর প্রস্তাবেও তারা চারটি পৃথক উপখাতে সহযোগিতা চেয়ে বাংলাদেশের কাছে প্রস্তাব করতে যাচ্ছে।

জানা গেছে, ২০১৩ সালের ২৫ নভেম্বর বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সহযোগিতা ফোরাম সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এরপর প্রথম টিকফা কাউন্সিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় ঢাকায় ২০১৪ সালের এপ্রিলে। দ্বিতীয় বৈঠক ২০১৫ সালের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হয় ওয়াশিংটন ডিসিতে। তৃতীয় বৈঠক ২০১৭ সালের ১৭ মে ঢাকায়।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter