ঘরে বসেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে উপার্জন করতে পারেন নারীরা

  সাইফ আহমাদ ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, ইন্টারনেটের মাধ্যমে শহর কিংবা গ্রামে বাড়িতে বসেই প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের স্বাবলম্বী করার মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করা সম্ভব। তিনি বলেন, আমাদের দেশে সব বাড়িতেই শিক্ষিত তরুণী কিংবা শিক্ষিত গৃহিণী রয়েছেন। যাদের অনেকেই উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করে ঘরে বসেই সময় কাটাচ্ছেন। ইন্টারনেটের মাধ্যমে ঘরে বসেই তাদের বাড়তি উপার্জন সম্ভব বলে তিনি উল্লেখ করেন।

১৩ মার্চ ২০১৯ রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে স্টার্টআপ বাংলাদেশ প্রকল্পের সভাকক্ষে টু আওয়ার জব, উইমেন অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরাম এবং বাংলাদেশ আইপি ফোরামের যৌথ উদ্যোগে ‘কিকস্টার্ট বাংলাদেশ’ প্রকল্পের উদ্বোধন উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ঘরে বসেই পণ্য উৎপাদন করে ভোক্তাদের কাছে পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে গৃহিনীগণ নিজেদের কর্মজীবী হিসেবে গড়ে তুলতে কিকস্টার্ট-এর আইডিয়া গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তরুণ উদ্যোক্তারা স্টার্টআপ হিসেবে নিজেদের তৈরি করছে। তারা চাকরি খুঁজছে না বরং চাকরি দিচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল সেবা গ্রাম পর্যন্ত পৌঁছে দেয়ার কারণে এটা সম্ভব হচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানে ই-ক্যাবের সভাপতি শমী কায়সার বলেন, চাকরির বাজারে এখন শূন্যতা তৈরি হয়েছে। নতুন প্রজন্ম স্বপ্ন দেখছে, উদ্যোক্তা হিসেবে নিজের পরিচয় দাঁড় করাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, আইডিয়া আর ফাইন্যান্স আলাদা বিষয়। ভালো আইডিয়া ভালো ফাইন্যান্স পায় না। পলিসি লেবেলে এখনও চ্যালেঞ্জ রয়েছে। তিনি অর্থ মন্ত্রণালয় ও আইসিটি মন্ত্রণালয়কে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান।

উইমেন অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি নাসিমা আক্তার নিসা বলেন, আমরা অনেক কিছুই পাইনি। মেন্টরিং ও সঠিক গাইডেন্সের অভাবে ৮০ ভাগ স্টার্টআপ দাঁড়াতে পারে না। সঠিক দিকনির্দেশনা পেলে এই স্টার্টআপদের মাধ্যমেই অনেক বড় বড় কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব।

স্টার্টআপ বাংলাদেশের আইডিয়া প্রকল্পের প্রজেক্ট ডিরেক্টর সৈয়দ মজিবুল হক বলেন, আমরা ৬২ জনকে ফান্ড দিয়েছি আরও ১৮ জনকে দেয়া হবে। এ পর্যায়ে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত বরাদ্দের অনুমতি আছে। ৫২টি স্টার্টআপ বসার জায়গা করেছি, যারা ফান্ড পাননি এমন তিন জনকে কো-ওয়ার্কিং স্পেস দেয়া হবে। আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডিংয়ে সহায়তা করতেও আমাদের দ্বার উন্মুক্ত। ফেসবুকের কমিউনিটি লিডারশিপের তালিকায় স্থান পাওয়া দেশিও উদ্যোক্তা রাজিব আহমেদ ঢাকা কেন্দ্রিকতা থেকে বের হওয়ার ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আইপি ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ব্যারিস্টার হামিদুল মিসবাহ, আমরাই বাংলাদেশের কো-ফাউন্ডার আরিফ আর হোসাইন, শার্পনারের সিইও নজর-ই-জিলানী, টু আওয়ার জবের প্রতিষ্ঠাতা সানজিদা খন্দকার উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন
--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×