মেধাস্বত্বের মাধ্যমে উদ্ভাবনকে সুরক্ষিত রাখতে হবে

  সাইফ আহমাদ ১৪ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

উদ্ভাবনের নিরাপত্তায় মেধাস্বত্বের বিকল্প নেই। গবেষণার মাধ্যমে উদ্ভাবন এবং সৃজনশীলতাকে অনুপ্রাণিত করতে হবে। ইনোভেশন যতই করা হোক না কেন, তাকে মেধাস্বত্বের মাধ্যমে সুরক্ষিত রাখতে হবে।

১২ মে ২০১৯ রোববার, এটুআই আয়োজিত, আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত দেশীয় উদ্ভাবনসমূহ নিয়ে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের আই ল্যাব অডিটোরিয়ামে একটি মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের নীতি নির্ধারকরা।

এটুআই পরিচালিত ইনোভেশন ল্যাবের (আই-ল্যাব) বিভিন্ন উদ্ভাবন আইটেক্সসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক আসরে স্বীকৃতি পাওয়ায় এ বিষয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

এটুআই এর প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে ও, এবং এটুআই এর পলিসি অ্যাডভাইজর আনীর চৌধুরীর সঞ্চালনায়, মতবিনিময় সভায় প্যানেল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান; ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

প্যানেল আলোচনায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান ইনোভেটিভ প্রজেক্টগুলোকে পাইলটিং করার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, আমাদের কে ইনোভেশন থেকে পাইলটিং এর দিকে যেতে হবে। শুধু গবেষণা করে ফেলে রাখলে হবে না। সেটিকে প্রয়োগ করতে হবে। সবাই সম্মিলিতভাবে কাজ করতে পারলে আমাদের মেধাবীদের এবং মেধা সম্পদগুলোকে কাজে লাগানো যাবে।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, আবিষ্কারের সুফল এ জাতি পাবে না যদি আমরা মেধাস্বত্ব সংরক্ষণ না করি। উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে এটি একটি আবশ্যিক বিষয়। আই ল্যাবে সব উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে মেধাস্বত্ব সংরক্ষণ নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ডিজিটাল বাংলাদেশ ধারণার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ করা উচিত বলেও উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, তরুণদের উৎসাহিত করার মাধ্যমে তাদের মধ্যে সমস্যার সমাধান, উদ্ভাবন এবং উদ্যোক্তা তৈরির মানসিকতা তৈরি করতে হবে। তিনি আরও বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের কাক্সিক্ষত সুফল পেতে আমাদের উচিত শিল্প উদ্যোক্তা এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের উদ্ভাবনের মধ্যে একটা সমন্বয় সাধন করা। আর এই সমন্বয় সাধনের সঙ্গে সৃষ্টিশীলতা ও যৌথ বিনিয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে। এর মধ্য দিয়েই বাংলাদেশ ২০ বছরের মধ্যে একটি উদ্ভাবনী জাতিতে পরিণত হবে।

এর আগে আইটেক্স ২০১৮ ও ২০১৯ এ এটুআই এর পুরস্কার পাওয়া উদ্ভাবনীগুলো সবার উদ্দেশ্যে তুলে ধরা হয়।

প্রসঙ্গত, আইটেক্সের ২০১৮ আসর থেকে অংশগ্রহণ করে আসছে এটুআই এর আই-ল্যাব। সেবছর প্রথমবার অংশ নিয়েই দুটি উদ্ভাবক স্বর্ণপদক এবং একটি উদ্ভাবন রৌপ্যপদক পায়। চলতি বছরের ২ মে থেকে ৪ মে’ তে অনুষ্ঠিত আসরে গ্রামীণ উদ্যোগ ‘একশ’ স্বর্ণপদক এবং আরও চারটি উদ্ভাবন রৌপ্যপদক অর্জন করে। এবারের আসরে ২১টি দেশের এক হাজার ৩২৭টি উদ্ভাবনের মধ্যে একশ’ সেরা আন্তর্জাতিক উদ্ভাবন ট্রফিও অর্জন করে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×