চেহারা চেনাতে আগ্রহী নন প্রযুক্তির তারকারা

  আইটি ডেস্ক ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বর্তমানে সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্রত্যেকের জীবনের সঙ্গে এতটাই ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে যে, কখন কি হচ্ছে, কোন রেস্টুরেন্টের খাবার কেমন, কোন স্কুলে ভালো পড়ায়, সুস্থ-অসুস্থতাসহ কার জীবনে কী চলছে তা জানাতে বেশিরভাগ মানুষই বেছে নেন সোশ্যাল মিডিয়া তথা ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রাম। শেয়ার করার এ প্রবণতা রয়েছে প্রযুক্তি বিশ্বের তারকা স্বয়ং ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা সিইও মার্ক জাকারবার্গের মধ্যেও। এমনকি গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই ও অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজসও এর ব্যতিক্রম নন। জীবনের ছোট-বড় সব ঘটনা তারাও শেয়ার করেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। কখন কোথায় যাচ্ছেন, তাদের জীবনে কোন দিনগুলো বিশেষ, কোন বিশেষ ব্যক্তির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন এসব সম্পর্কে জানতে হলে তাদের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে ঢু মারাই যথেষ্ট।

তবে ছবি দেয়ার ক্ষেত্রে তারা এক নীতিতে বিশ্বাসী। কোনোভাবেই তারা নিজেদের সন্তানদের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় দিতে চান না। দিলেও চেহারা চেনা যাবে এমন অ্যাঙ্গেলে তোলা ছবি তারা পোস্ট করেন না। প্রশ্ন উঠতেই পারে তবে কি তাদেরও সাইবার নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আস্থা নেই? সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রযুক্তি বিশ্বের এসব তারকাকে কতটা শেয়ার করেন নিজের এবং পরিবারের সম্পর্কে তাই নিয়ে আজকের আয়োজন।

মার্ক জাকারবার্গ : ফেসবুকের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও তিনি। ফেসবুকের মালিকানাধীন কোম্পানি হওয়ায় ইনস্টাগ্রামেও তার প্রভাব সবচেয়ে বেশি। তার দুই সোশ্যাল মিডিয়ায় বুঁদ হয়ে আছে সারা বিশ্বের মানুষ। অথচ তিনি নিজের বড় মেয়ে ম্যাক্সিমা চ্যান জাকারবার্গকে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে চেনাতে চান না। ফেসবুক-ইনস্টাগ্রামে ম্যাক্সিমার ছবি তিনি ঠিকই দেন। নিয়মিতই দেন। তবে এমনভাবে দেন যাতে চেহারা বোঝা না যায়। পাশ থেকে, ওপর থেকে, দূর থেকে কিংবা কস্টিউম পরিয়ে বেশ কিছু ছবি তিনি দিয়েছেন। তবে সে ছবি দেখে তার মেয়ের চেহারা কেমন তা মনে রাখা সম্ভব না। ছোট মেয়ে আগস্ট চ্যান জাকারবার্গের বয়স এখন ২ বছর। জন্মের পর অনেক দিনই তার ক্লোজআপ ছবি দিয়েছেন জাকারবার্গ। তবে দিন যত যাচ্ছে তার ছোট মেয়ের ছবিও ঝাপসা হয়ে আসছে।

সুন্দর পিচাই : ক্যালিফোর্নিয়ার প্রযুক্তিস্বর্গ বলে খ্যাত সিলিকন ভ্যালির সর্বোচ্চ বেতনপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের একজন গুগল সিইও সুন্দর পিচাই। ইনস্টাগ্রাম কিংবা ফেসবুক- কোথাও সন্তানদের কোনো তথ্য তিনি দেন না। তার ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে স্ত্রী অঞ্জলি পিচাইয়ের ছবি রয়েছে। ইনস্টাগ্রামে তাও নেই। সেখানে তার কর্মক্ষেত্রের ছবি যেমন আছে তেমনি আছে তার পোষা কুকুরের ছবি। নেই শুধু দুই সন্তান কিরন পিচাই ও কাভ্যিয়া পিচাইয়ের ছবি।

জেফ বেজস : অ্যামাজন প্রতিষ্ঠা করে এখন ই-কমার্স দুনিয়ার রাজা বনে গেছেন তিনি। তবে ঘরে তিনি চার ছেলেমেয়ের বাবা। সম্প্রতি তাদের জন্য যে নিজ হাতে ওয়াফেল বানিয়েছেন ঘটা করে তা ইনস্টাগ্রামে জানিয়েছেন তিনি। তবে ছেলেমেয়েদের কোনো ছবি তার ইনস্টাগ্রামে দেখা হয়নি। জেফ বেজস ও ম্যাকেঞ্জি টাটেলের তিন ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। মেয়েকে তারা চীন থেকে দত্তক নিয়েছিলেন। জেফ বেজস ও ম্যাকেঞ্জি টাটেলের বিচ্ছেদ হয় চলতি বছরের ৪ এপ্রিল।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×