বিলিয়নিয়র ক্লাবে অ্যাপল প্রধান টিম কুক
jugantor
প্রযুক্তি ব্যক্তিত্ব
বিলিয়নিয়র ক্লাবে অ্যাপল প্রধান টিম কুক

  আইটি ডেস্ক  

১২ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অ্যাপলের সিইও টিম কুক শত কোটিপতি ক্লাবে নাম লিখিয়েছেন। মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার মূল্য বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে টিম কুকের সম্পদের পরিমাণও বেড়েছে। জানা গেছে, টিম কুকের মালিকানায় কোম্পানিটির ৮ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৯টি শেয়ার আছে।

তিন কমা ক্লাব বা শত কোটিপতির ক্লাবে সাধারণত টেক কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতারাই জায়গা পান। প্রতিষ্ঠাতা না হয়ে, শুধু সিইও পদে থেকে বিলিয়নিয়র হওয়ার ঘটনা বিরল।

টিম কুক যুক্তরাষ্ট্রের এয়লাবামায় বেড়ে ওঠেন। তার বাবা ছিলেন শিপইয়ার্ডের একজন কর্মী এবং মা ছিলেন গৃহিণী। কুক রবার্টসডেল হাই স্কুল থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন এবং ১৯৮২ সালে আবার্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিল্পও প্রকৌশলে বিএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯৮৮ সালে ডিউক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন।

নয় বছর আগে অ্যাপল সহ-প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবসের কাছ থেকে প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব বুঝে নেন টিম কুক। এর আগে ১৯৯৮ সালে তিনি কম্পিউটার নির্মাতা কোম্পানি কম্প্যাক ছেড়ে অ্যাপলে আসেন প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবসের কথায়। তার নেতৃত্বে অ্যাপলের আয় ও লাভ দুটোই বেড়েছে। এ গতি অব্যাহত থাকলে অচিরেই বিশ্বের প্রথম কোম্পানি হিসেবে ২ ট্রিলিয়ন ডলার ক্লাবে জায়গা করে নেবে অ্যাপল। বর্তমানে অ্যাপলের মূলধন ১.৮৪ ট্রিলিয়ন ডলার (১ লাখ ৮৪ হাজার কোটি ডলার)।

অবশ্য নিজ সম্পদের ব্যাপারে আগে থেকেই এক পরিকল্পনা জানিয়ে রেখেছেন টিম কুক

। ২০১৫ সালে তিনি জানান, নিজ সম্পদের অধিকাংশই দান করে দিতে চান তিনি। কুক এরই মধ্যে লাখো ডলার মূল্যের অ্যাপল শেয়ার দানও করেছেন। করোনাভাইরাস মহামারীর সময়টিতে মানুষ অনলাইনে বেশি সময় কাটাচ্ছেন। ফলে আয়ের দিক থেকে ভালো অবস্থানে রয়েছে প্রধান প্রধান প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো। মুনাফা বেড়েছে অ্যাপল, ফেসবুক ও গুগলের। উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ নাম লিখিয়েছেন ১০০ বিলিয়নের ঘরে।

প্রযুক্তি ব্যক্তিত্ব

বিলিয়নিয়র ক্লাবে অ্যাপল প্রধান টিম কুক

 আইটি ডেস্ক 
১২ আগস্ট ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অ্যাপলের সিইও টিম কুক শত কোটিপতি ক্লাবে নাম লিখিয়েছেন। মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার মূল্য বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে টিম কুকের সম্পদের পরিমাণও বেড়েছে। জানা গেছে, টিম কুকের মালিকানায় কোম্পানিটির ৮ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৯টি শেয়ার আছে।

তিন কমা ক্লাব বা শত কোটিপতির ক্লাবে সাধারণত টেক কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতারাই জায়গা পান। প্রতিষ্ঠাতা না হয়ে, শুধু সিইও পদে থেকে বিলিয়নিয়র হওয়ার ঘটনা বিরল।

টিম কুক যুক্তরাষ্ট্রের এয়লাবামায় বেড়ে ওঠেন। তার বাবা ছিলেন শিপইয়ার্ডের একজন কর্মী এবং মা ছিলেন গৃহিণী। কুক রবার্টসডেল হাই স্কুল থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন এবং ১৯৮২ সালে আবার্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিল্পও প্রকৌশলে বিএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯৮৮ সালে ডিউক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন।

নয় বছর আগে অ্যাপল সহ-প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবসের কাছ থেকে প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব বুঝে নেন টিম কুক। এর আগে ১৯৯৮ সালে তিনি কম্পিউটার নির্মাতা কোম্পানি কম্প্যাক ছেড়ে অ্যাপলে আসেন প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবসের কথায়। তার নেতৃত্বে অ্যাপলের আয় ও লাভ দুটোই বেড়েছে। এ গতি অব্যাহত থাকলে অচিরেই বিশ্বের প্রথম কোম্পানি হিসেবে ২ ট্রিলিয়ন ডলার ক্লাবে জায়গা করে নেবে অ্যাপল। বর্তমানে অ্যাপলের মূলধন ১.৮৪ ট্রিলিয়ন ডলার (১ লাখ ৮৪ হাজার কোটি ডলার)।

অবশ্য নিজ সম্পদের ব্যাপারে আগে থেকেই এক পরিকল্পনা জানিয়ে রেখেছেন টিম কুক

। ২০১৫ সালে তিনি জানান, নিজ সম্পদের অধিকাংশই দান করে দিতে চান তিনি। কুক এরই মধ্যে লাখো ডলার মূল্যের অ্যাপল শেয়ার দানও করেছেন। করোনাভাইরাস মহামারীর সময়টিতে মানুষ অনলাইনে বেশি সময় কাটাচ্ছেন। ফলে আয়ের দিক থেকে ভালো অবস্থানে রয়েছে প্রধান প্রধান প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো। মুনাফা বেড়েছে অ্যাপল, ফেসবুক ও গুগলের। উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ নাম লিখিয়েছেন ১০০ বিলিয়নের ঘরে।