ডিজিটাল কুরবানির হাটের উদ্যোক্তাদের সম্মাননা
jugantor
ডিজিটাল কুরবানির হাটের উদ্যোক্তাদের সম্মাননা

  আইটি ডেস্ক  

২৪ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভাইরাস মহামারির সময়ে অনলাইনে কুরবানির পশুর ডিজিটাল হাট আয়োজন করে সরকার। ফুড ফর ন্যাশনের ‘ডিজিটাল কুরবানির হাট’-এ সর্বাধিক পশু আপলোড করে সর্বোচ্চসংখ্যক ভোক্তার কাছে পৌঁছানো উদ্যোক্তাদের সম্মাননা দিয়েছে আইসিটি বিভাগ।

বৃহস্পতিবার ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের সেরা উদ্যোক্তাসহ মোট ১০ জনকে এ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। এতে শ্রেষ্ঠ পুরস্কার পেয়েছেন খুলনা বিভাগের ঝিনাইদহ মহারাজপুরের ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের অনুপ কুমার অধিকারী। বিজয়ী হিসাবে তিনি পান ৫০ হাজার টাকার মূল্যমানের পুরস্কারসহ ক্রেস্ট।

এছাড়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের সেরা ১০ জনকে সর্বাধিক প্রচারকারী পুরস্কার হিসাবে ৫ হাজার টাকার চেকসহ সম্মাননা ক্রেস্ট দেওয়া হয়। তারা হলেন মো. আল-হেলাল, মো. মমিনুল হক রাজু, মো. আবু রায়হান মন্ডল, মো. নাহিদ হোসেন, আনোয়ার হোসেন, মো. তাহের খান, মো. সোহাগ, সাফায়েত হোসেন এবং মুহাম্মদ আতাউর রহমান।

আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের অধীনে উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমি প্রতিষ্ঠাকরণ প্রকল্প (আইডিইএ) ‘ফুড ফর ন্যাশন’ নামে এ প্লাটফর্ম গঠন করে।

‘স্টার্টআপ বাংলাদেশ’ ব্যানারে গত বছর ডিজিটাল হাটে বিক্রি হয় লক্ষাধিক পশু।

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এনএম জিয়াউল আলম বলেন, প্যানডেমিকের সময় সবার মধ্যে অনেক ভয়ভীতি ছিল এবং সে সময় অনেকটা যুদ্ধের মতো অবস্থার সৃষ্টি হয়। ঠিক তখনই তথ্য-প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারে এ চ্যালেঞ্জকে সফলভাবে মোকাবিলার চেষ্টা চালায় আইসিটি বিভাগ। করোনার সময় খাদ্য ব্যবস্থাপনায় অনেক ঝুঁকি ছিল। এ ধরনের পরিস্থিতিতে এ ডিজিটাল হাট যথেষ্ট ভূমিকা রেখেছে।

আইডিয়া প্রকল্পের পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ মজিবুল হক এ আয়োজনে অংশগ্রহণকারী সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানান এবং তিনি এ আয়োজনের সঙ্গে যারা পার্টনার হিসাবে সংযুক্ত হয়েছেন তাদের সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ডিজিটাল কুরবানির হাটের উদ্যোক্তাদের সম্মাননা

 আইটি ডেস্ক 
২৪ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভাইরাস মহামারির সময়ে অনলাইনে কুরবানির পশুর ডিজিটাল হাট আয়োজন করে সরকার। ফুড ফর ন্যাশনের ‘ডিজিটাল কুরবানির হাট’-এ সর্বাধিক পশু আপলোড করে সর্বোচ্চসংখ্যক ভোক্তার কাছে পৌঁছানো উদ্যোক্তাদের সম্মাননা দিয়েছে আইসিটি বিভাগ।

বৃহস্পতিবার ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের সেরা উদ্যোক্তাসহ মোট ১০ জনকে এ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। এতে শ্রেষ্ঠ পুরস্কার পেয়েছেন খুলনা বিভাগের ঝিনাইদহ মহারাজপুরের ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের অনুপ কুমার অধিকারী। বিজয়ী হিসাবে তিনি পান ৫০ হাজার টাকার মূল্যমানের পুরস্কারসহ ক্রেস্ট।

এছাড়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের সেরা ১০ জনকে সর্বাধিক প্রচারকারী পুরস্কার হিসাবে ৫ হাজার টাকার চেকসহ সম্মাননা ক্রেস্ট দেওয়া হয়। তারা হলেন মো. আল-হেলাল, মো. মমিনুল হক রাজু, মো. আবু রায়হান মন্ডল, মো. নাহিদ হোসেন, আনোয়ার হোসেন, মো. তাহের খান, মো. সোহাগ, সাফায়েত হোসেন এবং মুহাম্মদ আতাউর রহমান।

আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের অধীনে উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমি প্রতিষ্ঠাকরণ প্রকল্প (আইডিইএ) ‘ফুড ফর ন্যাশন’ নামে এ প্লাটফর্ম গঠন করে।

‘স্টার্টআপ বাংলাদেশ’ ব্যানারে গত বছর ডিজিটাল হাটে বিক্রি হয় লক্ষাধিক পশু।

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এনএম জিয়াউল আলম বলেন, প্যানডেমিকের সময় সবার মধ্যে অনেক ভয়ভীতি ছিল এবং সে সময় অনেকটা যুদ্ধের মতো অবস্থার সৃষ্টি হয়। ঠিক তখনই তথ্য-প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারে এ চ্যালেঞ্জকে সফলভাবে মোকাবিলার চেষ্টা চালায় আইসিটি বিভাগ। করোনার সময় খাদ্য ব্যবস্থাপনায় অনেক ঝুঁকি ছিল। এ ধরনের পরিস্থিতিতে এ ডিজিটাল হাট যথেষ্ট ভূমিকা রেখেছে।

আইডিয়া প্রকল্পের পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ মজিবুল হক এ আয়োজনে অংশগ্রহণকারী সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানান এবং তিনি এ আয়োজনের সঙ্গে যারা পার্টনার হিসাবে সংযুক্ত হয়েছেন তাদের সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।