স্মার্টফোন চুরি প্রতিরোধে ‘থিফগার্ড’ অ্যাপ
jugantor
স্মার্টফোন চুরি প্রতিরোধে ‘থিফগার্ড’ অ্যাপ
তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে মানুষ ঘুম থেকে উঠে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত কোনো না কোনোভাবে স্মার্ট ডিভাইসে প্রযুক্তির সুবিধা পাচ্ছে। প্রযুক্তির এসব সুবিধা পেতে অন্যতম সহায়ক স্মার্টফোন। এ কারণে স্মার্টফোনের চাহিদা বেড়েছে ব্যাপক হারে। এর ব্যবহার যেমন বাড়ছে, তেমনি বাড়ছে খোয়া যাওয়ার ঘটনাও। আজকের আয়োজনে স্মার্টফোন চুরি থেকে রক্ষা পেতে সহায়ক বিশেষ এক অ্যাপ ‘থিফগার্ড’ নিয়ে লিখেছেন-

  সাইফ আহমাদ  

০৬ মার্চ ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

স্মার্টফোন চুরি হওয়া মানে তো শুধু আর্থিক ক্ষতি নয়। স্মার্টফোনেই থেকে যাচ্ছে মানুষের কর্মক্ষেত্র ও ব্যক্তিগত জীবনের গোপনীয় সব তথ্য। ডিভাইসগুলোতে থাকা মূল্যবান ডাটা অন্যের হাতে চলে যাওয়ার শঙ্কা তো থাকেই; এ ছাড়া ফোনটি কোনো অপকর্মে ব্যবহার করা হলে ফোনের মালিক পড়তে পারেন বিপদে।

স্মার্টফোন চোরের হাত থেকে সুরক্ষায় ‘থিফগার্ড’ নামে যুগান্তকারী অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ এসেছে। হারিয়ে যাওয়া ডিভাইস শনাক্ত ও পুনরুদ্ধারে সাহায্য করবে অ্যাপটি। অ্যাপটি এনেছে সফটালজি লিমিটেড নামের দেশীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান। মোবাইল ফোন চুরি হলে চোরের ছবি ও লোকেশন জানতে সহায়তা করবে অ্যাপটি। এ সময় চোর মোবাইল ফোন বন্ধ করতে পারবে না। চোর মোবাইল ফোনটি কম্পিউটারের সঙ্গে কানেক্ট করতেও পারবে না। মোবাইলের সিম চেঞ্জ করলে মালিককে নতুন সিম নম্বর জানিয়ে দেবে। অনুমতি ব্যতীত কেউই ডিভাইসে থাকা কোনো ডাটাতে অ্যাক্সেস করতে পারবে না। মোবাইল ফোন চুরি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাতের কাছে যে কোনো স্মার্টফোন অথবা কম্পিউটার থেকে www.thiefguardbd.com ওয়েবসাইটে গিয়ে ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করলেই চুরি হয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনের ক্যামেরা চালু করা যাবে এবং চুরি হওয়া মোবাইল থেকে মোবাইলের মালিকের ইমেইলে ছবি পাঠাতে থাকবে। এ সময় জিপিএস অন করে দিলে লোকেশনও পাঠাতে থাকবে।

এ অ্যাপে অন্যান্য ফিচারের মধ্যে রয়েছে- মোবাইল ফোনের মালিক চাইলে হারিয়ে যাওয়া ফোনের স্ক্রিন লক করতে পারবেন। এছাড়া যে কোনো সময় ভাইরাস স্ক্যান করতে পারবেন।

সফটালজি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাইদুর রহমান বলেন, আমাদের উদ্ভাবিত অ্যাপ স্মার্টফোনে ইনস্টল করা থাকলে আগামীতে নির্ভয়ে ফোন ব্যবহার করা যাবে এবং আপনার ব্যক্তিগত তথ্য, ফোন নম্বর ও প্রিয় মোবাইল ফোনটি সুরক্ষিত থাকবে। এই অ্যাপটি অ্যান্ড্রয়েড-৭ থেকে যে কোনো ভার্সনে ব্যবহার করা যাবে। আপাতত এক বছর ও দুই বছরমেয়াদি এ থিফগার্ড অ্যাপটি সারা দেশের মোবাইল ফোনের দোকানে পাওয়া যাচ্ছে।

স্মার্টফোন চুরি প্রতিরোধে ‘থিফগার্ড’ অ্যাপ

তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে মানুষ ঘুম থেকে উঠে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত কোনো না কোনোভাবে স্মার্ট ডিভাইসে প্রযুক্তির সুবিধা পাচ্ছে। প্রযুক্তির এসব সুবিধা পেতে অন্যতম সহায়ক স্মার্টফোন। এ কারণে স্মার্টফোনের চাহিদা বেড়েছে ব্যাপক হারে। এর ব্যবহার যেমন বাড়ছে, তেমনি বাড়ছে খোয়া যাওয়ার ঘটনাও। আজকের আয়োজনে স্মার্টফোন চুরি থেকে রক্ষা পেতে সহায়ক বিশেষ এক অ্যাপ ‘থিফগার্ড’ নিয়ে লিখেছেন-
 সাইফ আহমাদ 
০৬ মার্চ ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

স্মার্টফোন চুরি হওয়া মানে তো শুধু আর্থিক ক্ষতি নয়। স্মার্টফোনেই থেকে যাচ্ছে মানুষের কর্মক্ষেত্র ও ব্যক্তিগত জীবনের গোপনীয় সব তথ্য। ডিভাইসগুলোতে থাকা মূল্যবান ডাটা অন্যের হাতে চলে যাওয়ার শঙ্কা তো থাকেই; এ ছাড়া ফোনটি কোনো অপকর্মে ব্যবহার করা হলে ফোনের মালিক পড়তে পারেন বিপদে।

স্মার্টফোন চোরের হাত থেকে সুরক্ষায় ‘থিফগার্ড’ নামে যুগান্তকারী অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ এসেছে। হারিয়ে যাওয়া ডিভাইস শনাক্ত ও পুনরুদ্ধারে সাহায্য করবে অ্যাপটি। অ্যাপটি এনেছে সফটালজি লিমিটেড নামের দেশীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান। মোবাইল ফোন চুরি হলে চোরের ছবি ও লোকেশন জানতে সহায়তা করবে অ্যাপটি। এ সময় চোর মোবাইল ফোন বন্ধ করতে পারবে না। চোর মোবাইল ফোনটি কম্পিউটারের সঙ্গে কানেক্ট করতেও পারবে না। মোবাইলের সিম চেঞ্জ করলে মালিককে নতুন সিম নম্বর জানিয়ে দেবে। অনুমতি ব্যতীত কেউই ডিভাইসে থাকা কোনো ডাটাতে অ্যাক্সেস করতে পারবে না। মোবাইল ফোন চুরি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাতের কাছে যে কোনো স্মার্টফোন অথবা কম্পিউটার থেকে www.thiefguardbd.com ওয়েবসাইটে গিয়ে ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করলেই চুরি হয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনের ক্যামেরা চালু করা যাবে এবং চুরি হওয়া মোবাইল থেকে মোবাইলের মালিকের ইমেইলে ছবি পাঠাতে থাকবে। এ সময় জিপিএস অন করে দিলে লোকেশনও পাঠাতে থাকবে।

এ অ্যাপে অন্যান্য ফিচারের মধ্যে রয়েছে- মোবাইল ফোনের মালিক চাইলে হারিয়ে যাওয়া ফোনের স্ক্রিন লক করতে পারবেন। এছাড়া যে কোনো সময় ভাইরাস স্ক্যান করতে পারবেন।

সফটালজি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাইদুর রহমান বলেন, আমাদের উদ্ভাবিত অ্যাপ স্মার্টফোনে ইনস্টল করা থাকলে আগামীতে নির্ভয়ে ফোন ব্যবহার করা যাবে এবং আপনার ব্যক্তিগত তথ্য, ফোন নম্বর ও প্রিয় মোবাইল ফোনটি সুরক্ষিত থাকবে। এই অ্যাপটি অ্যান্ড্রয়েড-৭ থেকে যে কোনো ভার্সনে ব্যবহার করা যাবে। আপাতত এক বছর ও দুই বছরমেয়াদি এ থিফগার্ড অ্যাপটি সারা দেশের মোবাইল ফোনের দোকানে পাওয়া যাচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন