ক্রিপ্টোকারেন্সি-বিরোধী অভিযান
jugantor
ক্রিপ্টোকারেন্সি-বিরোধী অভিযান

  আইটি ডেস্ক  

১২ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারকারী সন্দেহে চীনে এক অভিযানে প্রায় এক হাজার ১০০ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে দেশটির পুলিশ। চীনের জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয় বলছে, টেলিফোন এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করে নানা রকম প্রতারণা কার্যক্রমের বিরুদ্ধে ওই অভিযান তারা চালিয়েছে। এ অভিযান দেশটিতে ক্রিপ্টোকারেন্সি বিষয়ে সরকারের কঠোর অবস্থানের প্রকাশ বলে প্রতিবেদনে বলেছে রয়টার্স। গত মাসেই দেশটির তিনটি সরকারি সংস্থা ক্রিপ্টো সংক্রান্ত আর্থিক ও মূল্যপ্রদান সেবা নিষিদ্ধ করেছে। এর পাশাপাশি চীনের স্টেট কাউন্সিল বা মন্ত্রিপরিষদ দেশটিতে বিটকয়েন মাইনিং ও বাণিজ্যে ডাণ্ডাবেড়ি পরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বুধবারের মধ্যে দেশটির পুলিশ বাহিনী অন্তত ১৭০টি সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রকে আটক করতে সক্ষম হয়েছে, যারা ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করে মানিলন্ডারিং করছিল। মন্ত্রণালয় তার অফিসিয়াল উইচ্যাট অ্যাকাউন্টে বলেছে, মানিলন্ডারিংয়ে সংশ্লিষ্টরা শতকরা দেড় থেকে পাঁচ শতাংশ কমিশনের বিনিময়ে ক্রিপ্টোএক্সচেঞ্জ ব্যবহার করে অপরাধী চক্রের লেনদেন ক্রিপ্টোকারেন্সিতে রূপান্তর করে দিত। এরই মধ্যে অবৈধ জুয়ায় ব্যবহারের বেলায় ক্রিপ্টোকারেন্সি জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এখন শতকরা প্রায় ১৩ ভাগ জুয়ার সাইট ক্রিপ্টোকারেন্সি নেয়।

ক্রিপ্টোকারেন্সি-বিরোধী অভিযান

 আইটি ডেস্ক 
১২ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারকারী সন্দেহে চীনে এক অভিযানে প্রায় এক হাজার ১০০ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে দেশটির পুলিশ। চীনের জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয় বলছে, টেলিফোন এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করে নানা রকম প্রতারণা কার্যক্রমের বিরুদ্ধে ওই অভিযান তারা চালিয়েছে। এ অভিযান দেশটিতে ক্রিপ্টোকারেন্সি বিষয়ে সরকারের কঠোর অবস্থানের প্রকাশ বলে প্রতিবেদনে বলেছে রয়টার্স। গত মাসেই দেশটির তিনটি সরকারি সংস্থা ক্রিপ্টো সংক্রান্ত আর্থিক ও মূল্যপ্রদান সেবা নিষিদ্ধ করেছে। এর পাশাপাশি চীনের স্টেট কাউন্সিল বা মন্ত্রিপরিষদ দেশটিতে বিটকয়েন মাইনিং ও বাণিজ্যে ডাণ্ডাবেড়ি পরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বুধবারের মধ্যে দেশটির পুলিশ বাহিনী অন্তত ১৭০টি সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রকে আটক করতে সক্ষম হয়েছে, যারা ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করে মানিলন্ডারিং করছিল। মন্ত্রণালয় তার অফিসিয়াল উইচ্যাট অ্যাকাউন্টে বলেছে, মানিলন্ডারিংয়ে সংশ্লিষ্টরা শতকরা দেড় থেকে পাঁচ শতাংশ কমিশনের বিনিময়ে ক্রিপ্টোএক্সচেঞ্জ ব্যবহার করে অপরাধী চক্রের লেনদেন ক্রিপ্টোকারেন্সিতে রূপান্তর করে দিত। এরই মধ্যে অবৈধ জুয়ায় ব্যবহারের বেলায় ক্রিপ্টোকারেন্সি জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এখন শতকরা প্রায় ১৩ ভাগ জুয়ার সাইট ক্রিপ্টোকারেন্সি নেয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন