টিকাবিরোধী অ্যাপ ডিলেট করেছে অ্যাপল
jugantor
টিকাবিরোধী অ্যাপ ডিলেট করেছে অ্যাপল

  আইটি ডেস্ক  

০৩ আগস্ট ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ভুল তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে টিকাবিরোধী কমিউনিটির অ্যাপ ‘আনজেক্টেড’ সরিয়েছে অ্যাপল। জানা গেছে ‘আনজেক্টেড’ অ্যাপটি মূলত টিকাবিরোধী গোষ্ঠীর সামাজিক ও ডেটিং অ্যাপ। বিভিন্ন সামাজিক পোস্টের মাধ্যমে টিকার বিরুদ্ধে ভুয়া দাবি তোলা হয়েছিল এ অ্যাপ থেকে। এ রকম দাবির মধ্যে রয়েছে, টিকা নিলে জিন পরিবর্তিত হয়ে যায়, ৫জি’র সঙ্গে সংযুক্ত হয় এবং এগুলো ‘জৈব অস্ত্র’ হিসাবে কাজ করে।

অ্যাপলের পক্ষ থেকে জানানো হয়, স্বাস্থ্যসেবা ও চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের বরাতে পাওয়া নির্ভরযোগ্য কোভিড-১৯ তথ্য দিচ্ছে দাবি করে নিয়ম ভেঙেছে অ্যাপটি। অ্যাপ স্টোরের নিয়ম মানার জন্য তাদেরকে সময় দেওয়া হয়েছিল। অ্যাপের নির্মাতা নিয়ম না মেনে উল্টো চেষ্টা করেছেন অ্যাপলের সিস্টেমকে বোকা বানাতে। ব্যবহারকারীদের উৎসাহিত করেছেন উল্লেখযোগ্য কিছু শব্দ না ব্যবহার করতে। ‘সিস্টেমকে ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টা করার কারণেই নিষিদ্ধ করা হয়েছে’। এদিকে অ্যাপ নির্মাতাদের দুই সপ্তাহের সময় বেধে দিয়েছে গুগল। প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, প্লে-স্টোর নিষেধাজ্ঞা এড়াতে হলে ভুল পথে পরিচালিত করে এমন পোস্ট মুছে দিতে হবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে। এরই মধ্যে অ্যাপটির অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণ থেকে সামাজিক ফিড সরিয়ে নিয়েছেন ডেভেলপাররা। তবে, অ্যাপটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা শেলবি থম্পসন জানিয়েছেন, আনজেক্টেড ফিড এবং প্রশ্নবিদ্ধ পোস্টগুলো ফিরিয়ে আনার মাধ্যমে গুগলের অনুরোধ না রাখার পরিকল্পনা রয়েছে আনজেক্টেডের।

টিকাবিরোধী অ্যাপ ডিলেট করেছে অ্যাপল

 আইটি ডেস্ক 
০৩ আগস্ট ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ভুল তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে টিকাবিরোধী কমিউনিটির অ্যাপ ‘আনজেক্টেড’ সরিয়েছে অ্যাপল। জানা গেছে ‘আনজেক্টেড’ অ্যাপটি মূলত টিকাবিরোধী গোষ্ঠীর সামাজিক ও ডেটিং অ্যাপ। বিভিন্ন সামাজিক পোস্টের মাধ্যমে টিকার বিরুদ্ধে ভুয়া দাবি তোলা হয়েছিল এ অ্যাপ থেকে। এ রকম দাবির মধ্যে রয়েছে, টিকা নিলে জিন পরিবর্তিত হয়ে যায়, ৫জি’র সঙ্গে সংযুক্ত হয় এবং এগুলো ‘জৈব অস্ত্র’ হিসাবে কাজ করে।

অ্যাপলের পক্ষ থেকে জানানো হয়, স্বাস্থ্যসেবা ও চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের বরাতে পাওয়া নির্ভরযোগ্য কোভিড-১৯ তথ্য দিচ্ছে দাবি করে নিয়ম ভেঙেছে অ্যাপটি। অ্যাপ স্টোরের নিয়ম মানার জন্য তাদেরকে সময় দেওয়া হয়েছিল। অ্যাপের নির্মাতা নিয়ম না মেনে উল্টো চেষ্টা করেছেন অ্যাপলের সিস্টেমকে বোকা বানাতে। ব্যবহারকারীদের উৎসাহিত করেছেন উল্লেখযোগ্য কিছু শব্দ না ব্যবহার করতে। ‘সিস্টেমকে ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টা করার কারণেই নিষিদ্ধ করা হয়েছে’। এদিকে অ্যাপ নির্মাতাদের দুই সপ্তাহের সময় বেধে দিয়েছে গুগল। প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, প্লে-স্টোর নিষেধাজ্ঞা এড়াতে হলে ভুল পথে পরিচালিত করে এমন পোস্ট মুছে দিতে হবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে। এরই মধ্যে অ্যাপটির অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণ থেকে সামাজিক ফিড সরিয়ে নিয়েছেন ডেভেলপাররা। তবে, অ্যাপটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা শেলবি থম্পসন জানিয়েছেন, আনজেক্টেড ফিড এবং প্রশ্নবিদ্ধ পোস্টগুলো ফিরিয়ে আনার মাধ্যমে গুগলের অনুরোধ না রাখার পরিকল্পনা রয়েছে আনজেক্টেডের।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন