গোপনীয়তার প্রশ্ন ফেসবুক স্মার্ট গ্লাসে
jugantor
গোপনীয়তার প্রশ্ন ফেসবুক স্মার্ট গ্লাসে

  আইটি ডেস্ক  

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গোপনীয়তার প্রশ্ন ফেসবুক স্মার্ট গ্লাসে

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের নতুন স্মার্ট গ্লাস ‘রে-ব্যান স্টোরিজ’-এর গোপনতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আয়ারল্যান্ডের ডেটা গোপনতা নিয়ন্ত্রক ‘ডেটা প্রাইভেসি কমিশনার’ (ডিপিসি)। গ্লাসে থাকা ‘এলইডি নির্দেশক লাইট’ কীভাবে কাজ করে তা ফেসবুকের কাছে জানতে চেয়েছে সংস্থাটি। রে-ব্যান স্টোরিজের মাধ্যমে ছবি ও ভিডিও ধারণের সময় জ্বলে ওঠে ক্যামেরার উপরে থাকা ওই ‘এলইডি নির্দেশক লাইট’। শুধু সেটি দেখেই আশপাশের অন্যরা ছবি ও ভিডিও ধারণ সম্পর্কে বুঝতে পারবেন কি না, সেটিই খতিয়ে দেখতে চাইছে সংস্থাটি। এক বিবৃতিতে আইরিশ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি উল্লেখ করেছে, “এটা অনেকাংশেই স্বীকৃত যে স্মার্টফোনসহ অনেক ডিভাইসের মাধ্যমেই তৃতীয় পক্ষীয় ব্যক্তিদের রেকর্ড করা যেতে পারে, কিন্তু সাধারণত ক্যামেরা বা ফোন দিয়ে রেকর্ড করার সময় তা দেখা যায়, ফলে যাদেরকে ধারণ করা হচ্ছে তারা বিষয়টি বুঝতে পারেন।” ডিপিসি আরও বলেছে, “গ্লাসের ক্ষেত্রে খুবই ছোট একটি নির্দেশক লাইট রয়েছে যা রেকর্ডিংয়ের সময় সচল হয়। অবহিতকরণের ক্ষেত্রে নির্দেশক এলইডি লাইটটি যে কার্যকরী তা নিশ্চিতে ফেসবুক বা রে-ব্যানের পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ে ব্যাপক পরীক্ষা চালানো হয়েছে এমন কিছু ডিপিসিকে ও গ্যারান্তে-কে দেখানো হয়নি।” ইতালিয়ান ডেটা সুরক্ষা নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘গ্যারান্তে’ ১০ সেপ্টেম্বর ফেসবুকের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে যাতে তারা গোপনীয়তা আইন মেনে স্মার্ট গ্লাসটিকে মূল্যায়ন করতে পারে। আয়ারল্যান্ডের ডিপিসি বলছে, তাদের মধ্যেও একই উদ্বেগ কাজ করছে।

গোপনীয়তার প্রশ্ন ফেসবুক স্মার্ট গ্লাসে

 আইটি ডেস্ক 
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
গোপনীয়তার প্রশ্ন ফেসবুক স্মার্ট গ্লাসে
প্রতীকী ছবি

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের নতুন স্মার্ট গ্লাস ‘রে-ব্যান স্টোরিজ’-এর গোপনতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আয়ারল্যান্ডের ডেটা গোপনতা নিয়ন্ত্রক ‘ডেটা প্রাইভেসি কমিশনার’ (ডিপিসি)। গ্লাসে থাকা ‘এলইডি নির্দেশক লাইট’ কীভাবে কাজ করে তা ফেসবুকের কাছে জানতে চেয়েছে সংস্থাটি। রে-ব্যান স্টোরিজের মাধ্যমে ছবি ও ভিডিও ধারণের সময় জ্বলে ওঠে ক্যামেরার উপরে থাকা ওই ‘এলইডি নির্দেশক লাইট’। শুধু সেটি দেখেই আশপাশের অন্যরা ছবি ও ভিডিও ধারণ সম্পর্কে বুঝতে পারবেন কি না, সেটিই খতিয়ে দেখতে চাইছে সংস্থাটি। এক বিবৃতিতে আইরিশ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি উল্লেখ করেছে, “এটা অনেকাংশেই স্বীকৃত যে স্মার্টফোনসহ অনেক ডিভাইসের মাধ্যমেই তৃতীয় পক্ষীয় ব্যক্তিদের রেকর্ড করা যেতে পারে, কিন্তু সাধারণত ক্যামেরা বা ফোন দিয়ে রেকর্ড করার সময় তা দেখা যায়, ফলে যাদেরকে ধারণ করা হচ্ছে তারা বিষয়টি বুঝতে পারেন।” ডিপিসি আরও বলেছে, “গ্লাসের ক্ষেত্রে খুবই ছোট একটি নির্দেশক লাইট রয়েছে যা রেকর্ডিংয়ের সময় সচল হয়। অবহিতকরণের ক্ষেত্রে নির্দেশক এলইডি লাইটটি যে কার্যকরী তা নিশ্চিতে ফেসবুক বা রে-ব্যানের পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ে ব্যাপক পরীক্ষা চালানো হয়েছে এমন কিছু ডিপিসিকে ও গ্যারান্তে-কে দেখানো হয়নি।” ইতালিয়ান ডেটা সুরক্ষা নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘গ্যারান্তে’ ১০ সেপ্টেম্বর ফেসবুকের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে যাতে তারা গোপনীয়তা আইন মেনে স্মার্ট গ্লাসটিকে মূল্যায়ন করতে পারে। আয়ারল্যান্ডের ডিপিসি বলছে, তাদের মধ্যেও একই উদ্বেগ কাজ করছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন