যোগ করবে বাড়তি নিরাপত্তা : বন্ধ হবে না আইডি
jugantor
ফেসবুক প্রটেক্ট
যোগ করবে বাড়তি নিরাপত্তা : বন্ধ হবে না আইডি

  সাইফ আহমাদ  

২০ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের নতুন একটি ফিচার নিয়ে বেশ আলোচনা-সমালচনার ঝড় উঠেছে। ২৮ অক্টোবরের মধ্যে ‘ফেসবুক প্রটেক্ট’ নামের ফিচারটি টার্ন অন বা চালু না করলে ফেসবুকের অ্যাকাউন্ট লক হয়ে যাবে বলে বার্তা দিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি। নতুন একটি ফিচার চালু করার এ ধরনের বার্তা পেয়েছে অনেকেই। তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা প্রটেক্ট ছাড়া অ্যাকাউন্ট বন্ধের বিষয়টি উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, কোনো অ্যাকাউন্টই বন্ধ করবে না ফেসবুক। কেননা ফেসবুক সবাইকে এ নোটিফিকেশন দেয়নি যাদেরকে মনে করেছেন যে নিরাপত্তা দরকার শুধু তাদেরকেই এ নোটিফিকেশনটি দিয়েছে।

ফেসবুক প্রটেক্ট আসলে কী

ফেসবুক নিজেদের ওয়েবসাইটে নতুন ফেসবুক প্রটেক্ট ফিচারটির ব্যাপারে বিস্তারিত জানিয়েছে। পাবলিক ফিগারদের লক্ষ্য করে গণহয়রানি এবং আক্রমণের বিরুদ্ধে সুরক্ষা বাড়াতেই নতুন এ ফিচার চালু করেছে। ফেসবুকের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, বেশ কিছু অ্যাকাউন্টকে বাড়তি নিরাপত্তা দিতে কাজ করবে ফেসবুক প্রটেক্ট। এটি একটি ভলানটারি (ঐচ্ছিক) প্রোগ্রাম যা নির্বাচনি প্রার্থী তাদের প্রচারণা এবং নির্বাচিত প্রতিনিধিদের অ্যাকাউন্টকেও বাড়তি সুরক্ষা দেবে। অ্যাক্টিভিস্ট এবং সাংবাদিকদের পাবলিক ফিগার হিসাবে গণনা করে তাদের সুরক্ষার কথাও বলা হয়েছে নতুন ফিচারে।

ফেসবুকের পক্ষ থেকে আরও বলা হয়, ‘তালিকাভুক্তির মাধ্যমে আমরা এসব অ্যাকাউন্টকে জোরদার সুরক্ষা গ্রহণে সহায়তা করব। উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, টু-ফ্যাক্টর অথেনটিক্যাশন এবং সম্ভাব্য হ্যাকিং ঝুঁকি তদারকি করা। আর ‘তালিকাভুক্ত পেজগুলোর সব অ্যাডমিনকে পেজ পাবলিশিং অথরাইজেশনের মধ্য দিয়ে যেতে হবে, যাতে করে পেজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়। এটি নির্দিষ্ট পেজের অ্যাডমিনদের এ কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত হতে চাওয়া বা না চাওয়ার ওপর নির্ভর করবে না।’

ফেসবুক বলে, ‘পেজ পাবলিশিং অথরাইজেশন বা কোনো কনটেন্ট প্রকাশের অনুমোদন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের জিজ্ঞাসা করা হয়, কারা পেজের নিয়ন্ত্রণ করেন। এ প্রক্রিয়ায় দুই ধাপ বৈধতা যাচাই এবং প্রাথমিক দেশের অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার মধ্য দিয়ে অ্যাকাউন্ট সুরক্ষার ব্যবস্থা করা হয়। একই সঙ্গে এ প্রক্রিয়ায় প্রকৃত নামের প্রোফাইল থেকে অ্যাডমিনদের পেজ নিয়ন্ত্রণ করতে হয়।

‘হীন তৎপরতায় লিপ্তদের চেয়ে এক ধাপ এগিয়ে থাকতে আমরা প্রতিনিয়ত নতুন নতুন পথ খুঁজছি। আমরা হয়তো কখনোই অপতৎরতায় যুক্ত সবাইকে ধরতে পারব না, তবে এ কর্মসূচি অনেকগুলো পদক্ষেপের একটি যার মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খোয়ানোর মতো ঘটনা কঠিন হয়ে পড়বে।’

যেভাবে ফেসবুক প্রটেক্টে তালিকাভুক্তি

ফেসবুক প্রটেক্ট কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য যোগ্য ব্যক্তিরা ফেসবুকে প্রম্পট দেখতে পাবেন। এর মাধ্যমে তারা কর্মসূচিটি সম্বন্ধে জানার পাশাপাশি তাতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন। ফেসবুক বলছে, এর অগ্রগতি নিয়ে নিয়মিত আপডেট জানাব।’

এ ফিচার ব্যবহার করতে কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করতে হবে-

১. প্রথমেই নিজের ফেসবুক আইডিতে প্রবেশ করতে হবে।

২. এরপর সেটিংস অপশনে যেতে হবে।

৩. সিকিউরিটি অ্যান্ড লগইন অপশনে ক্লিক করতে হবে।

৪. সিকিউরিটি অ্যান্ড লগইনে প্রথমেই দেখা যাবে ‘ফেসবুক প্রটেক্ট’ অপশন।

৫. ‘ফেসবুক প্রটেক্ট’-এ প্রবেশ করলেই পরবর্তী নির্দেশনা মোতাবেক অন করা যাবে। যাদের ‘টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন’ চালু নেই, তাদের সেটিও চালু করতে হবে।

ফেসবুক প্রটেক্ট

যোগ করবে বাড়তি নিরাপত্তা : বন্ধ হবে না আইডি

 সাইফ আহমাদ 
২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের নতুন একটি ফিচার নিয়ে বেশ আলোচনা-সমালচনার ঝড় উঠেছে। ২৮ অক্টোবরের মধ্যে ‘ফেসবুক প্রটেক্ট’ নামের ফিচারটি টার্ন অন বা চালু না করলে ফেসবুকের অ্যাকাউন্ট লক হয়ে যাবে বলে বার্তা দিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি। নতুন একটি ফিচার চালু করার এ ধরনের বার্তা পেয়েছে অনেকেই। তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা প্রটেক্ট ছাড়া অ্যাকাউন্ট বন্ধের বিষয়টি উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, কোনো অ্যাকাউন্টই বন্ধ করবে না ফেসবুক। কেননা ফেসবুক সবাইকে এ নোটিফিকেশন দেয়নি যাদেরকে মনে করেছেন যে নিরাপত্তা দরকার শুধু তাদেরকেই এ নোটিফিকেশনটি দিয়েছে।

ফেসবুক প্রটেক্ট আসলে কী

ফেসবুক নিজেদের ওয়েবসাইটে নতুন ফেসবুক প্রটেক্ট ফিচারটির ব্যাপারে বিস্তারিত জানিয়েছে। পাবলিক ফিগারদের লক্ষ্য করে গণহয়রানি এবং আক্রমণের বিরুদ্ধে সুরক্ষা বাড়াতেই নতুন এ ফিচার চালু করেছে। ফেসবুকের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, বেশ কিছু অ্যাকাউন্টকে বাড়তি নিরাপত্তা দিতে কাজ করবে ফেসবুক প্রটেক্ট। এটি একটি ভলানটারি (ঐচ্ছিক) প্রোগ্রাম যা নির্বাচনি প্রার্থী তাদের প্রচারণা এবং নির্বাচিত প্রতিনিধিদের অ্যাকাউন্টকেও বাড়তি সুরক্ষা দেবে। অ্যাক্টিভিস্ট এবং সাংবাদিকদের পাবলিক ফিগার হিসাবে গণনা করে তাদের সুরক্ষার কথাও বলা হয়েছে নতুন ফিচারে।

ফেসবুকের পক্ষ থেকে আরও বলা হয়, ‘তালিকাভুক্তির মাধ্যমে আমরা এসব অ্যাকাউন্টকে জোরদার সুরক্ষা গ্রহণে সহায়তা করব। উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, টু-ফ্যাক্টর অথেনটিক্যাশন এবং সম্ভাব্য হ্যাকিং ঝুঁকি তদারকি করা। আর ‘তালিকাভুক্ত পেজগুলোর সব অ্যাডমিনকে পেজ পাবলিশিং অথরাইজেশনের মধ্য দিয়ে যেতে হবে, যাতে করে পেজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়। এটি নির্দিষ্ট পেজের অ্যাডমিনদের এ কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত হতে চাওয়া বা না চাওয়ার ওপর নির্ভর করবে না।’

ফেসবুক বলে, ‘পেজ পাবলিশিং অথরাইজেশন বা কোনো কনটেন্ট প্রকাশের অনুমোদন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের জিজ্ঞাসা করা হয়, কারা পেজের নিয়ন্ত্রণ করেন। এ প্রক্রিয়ায় দুই ধাপ বৈধতা যাচাই এবং প্রাথমিক দেশের অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার মধ্য দিয়ে অ্যাকাউন্ট সুরক্ষার ব্যবস্থা করা হয়। একই সঙ্গে এ প্রক্রিয়ায় প্রকৃত নামের প্রোফাইল থেকে অ্যাডমিনদের পেজ নিয়ন্ত্রণ করতে হয়।

‘হীন তৎপরতায় লিপ্তদের চেয়ে এক ধাপ এগিয়ে থাকতে আমরা প্রতিনিয়ত নতুন নতুন পথ খুঁজছি। আমরা হয়তো কখনোই অপতৎরতায় যুক্ত সবাইকে ধরতে পারব না, তবে এ কর্মসূচি অনেকগুলো পদক্ষেপের একটি যার মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খোয়ানোর মতো ঘটনা কঠিন হয়ে পড়বে।’

যেভাবে ফেসবুক প্রটেক্টে তালিকাভুক্তি

ফেসবুক প্রটেক্ট কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য যোগ্য ব্যক্তিরা ফেসবুকে প্রম্পট দেখতে পাবেন। এর মাধ্যমে তারা কর্মসূচিটি সম্বন্ধে জানার পাশাপাশি তাতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন। ফেসবুক বলছে, এর অগ্রগতি নিয়ে নিয়মিত আপডেট জানাব।’

এ ফিচার ব্যবহার করতে কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করতে হবে-

১. প্রথমেই নিজের ফেসবুক আইডিতে প্রবেশ করতে হবে।

২. এরপর সেটিংস অপশনে যেতে হবে।

৩. সিকিউরিটি অ্যান্ড লগইন অপশনে ক্লিক করতে হবে।

৪. সিকিউরিটি অ্যান্ড লগইনে প্রথমেই দেখা যাবে ‘ফেসবুক প্রটেক্ট’ অপশন।

৫. ‘ফেসবুক প্রটেক্ট’-এ প্রবেশ করলেই পরবর্তী নির্দেশনা মোতাবেক অন করা যাবে। যাদের ‘টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন’ চালু নেই, তাদের সেটিও চালু করতে হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন