ড্রোনে উড়ে যাবে চিঠি
jugantor
ড্রোনে উড়ে যাবে চিঠি

  আইটি ডেস্ক  

১৫ মে ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

একসময়ের তুমুল জনপ্রিয় যোগাযোগব্যবস্থা ছিল চিঠি আদানপ্রদান। প্রযুক্তির নানারকম উদ্ভাবনের কারণে এ চিঠির প্রচলন অনেকটাই কমে এসেছে। তবুও অনেক দেশে পোস্ট এখনো বন্ধ হয়নি। রাষ্ট্রীয় নানা কাজে পোস্ট অফিসের মাধ্যমেই পাঠানো হয় ডকুমেন্ট।

ব্রিটিশ মাল্টিন্যাশনাল পোস্টাল সার্ভিস ও কুরিয়ার কোম্পানি রয়েল মেইল এবার ড্রোনের সাহায্যে যুক্তরাজ্যের দূরবর্তী স্থানগুলোয় চিঠিপত্র পাঠাতে চাচ্ছে। আর এ জন্য ৫০০ ড্রোনের একটি বহর তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে কোম্পানিটি। রয়েল মেইল যেসব ড্রোন ব্যবহার করবে তা তুলনামূলক অনেক বড়। ডানা থেকে উইংটিপ পর্যন্ত ৩২ দশমিক ৮ ফুট। এসব ড্রোন এক হাজার কিলোমিটার (৬২১ মাইল) উড়তে এবং ১০০ কেজি পর্যন্ত পণ্য পরিবহণে সক্ষম। ড্রোনগুলো দেখতে অনেকটা ছোট প্লেনের মতো। পার্থক্য শুধু এখানে কোনো পাইলট থাকে না। খুব ছোট জায়গার মধ্যেই উড্ডয়ন ও অবতরণ করতে পারে।

রয়েল মেইল কর্তৃপক্ষ আশা করছে, আগামী তিন বছরের মধ্যে ২০০টি ড্রোন ৫০টি নতুন রুটে যাতায়াত করবে। সবার প্রথমে সিসিলি দ্বিপপুঞ্জ, শেটল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জ, অর্কনি দ্বীপপুঞ্জ এবং হেব্রাউডস দ্বীপপুঞ্জ এ সুবিধা পাবে। ড্রোনের ব্যবহার নিয়ে রয়েল মেইল বেশ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছে। সর্বশেষ এপ্রিলে শেটল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জে ট্রায়াল সম্পন্ন হয়।

ড্রোনে উড়ে যাবে চিঠি

 আইটি ডেস্ক 
১৫ মে ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

একসময়ের তুমুল জনপ্রিয় যোগাযোগব্যবস্থা ছিল চিঠি আদানপ্রদান। প্রযুক্তির নানারকম উদ্ভাবনের কারণে এ চিঠির প্রচলন অনেকটাই কমে এসেছে। তবুও অনেক দেশে পোস্ট এখনো বন্ধ হয়নি। রাষ্ট্রীয় নানা কাজে পোস্ট অফিসের মাধ্যমেই পাঠানো হয় ডকুমেন্ট।

ব্রিটিশ মাল্টিন্যাশনাল পোস্টাল সার্ভিস ও কুরিয়ার কোম্পানি রয়েল মেইল এবার ড্রোনের সাহায্যে যুক্তরাজ্যের দূরবর্তী স্থানগুলোয় চিঠিপত্র পাঠাতে চাচ্ছে। আর এ জন্য ৫০০ ড্রোনের একটি বহর তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে কোম্পানিটি। রয়েল মেইল যেসব ড্রোন ব্যবহার করবে তা তুলনামূলক অনেক বড়। ডানা থেকে উইংটিপ পর্যন্ত ৩২ দশমিক ৮ ফুট। এসব ড্রোন এক হাজার কিলোমিটার (৬২১ মাইল) উড়তে এবং ১০০ কেজি পর্যন্ত পণ্য পরিবহণে সক্ষম। ড্রোনগুলো দেখতে অনেকটা ছোট প্লেনের মতো। পার্থক্য শুধু এখানে কোনো পাইলট থাকে না। খুব ছোট জায়গার মধ্যেই উড্ডয়ন ও অবতরণ করতে পারে।

রয়েল মেইল কর্তৃপক্ষ আশা করছে, আগামী তিন বছরের মধ্যে ২০০টি ড্রোন ৫০টি নতুন রুটে যাতায়াত করবে। সবার প্রথমে সিসিলি দ্বিপপুঞ্জ, শেটল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জ, অর্কনি দ্বীপপুঞ্জ এবং হেব্রাউডস দ্বীপপুঞ্জ এ সুবিধা পাবে। ড্রোনের ব্যবহার নিয়ে রয়েল মেইল বেশ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছে। সর্বশেষ এপ্রিলে শেটল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জে ট্রায়াল সম্পন্ন হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন