ইউক্রেন নিয়ে ‘ভুল তথ্য’ ঠেকাতে সচেষ্ট টুইটার
jugantor
ইউক্রেন নিয়ে ‘ভুল তথ্য’ ঠেকাতে সচেষ্ট টুইটার

  আইটি ডেস্ক  

২৩ মে ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটার ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে ভুল তথ্য ঠেকাতে কাজ করছে। যেসব কনটেন্টে ‘ভুল তথ্য’ রয়েছে, সেগুলোতে এখন থেকে সতর্ক বার্তা দেখাবে প্রতিষ্ঠানটি। ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক আগ্রাসনবিষয়ক ভুল তথ্য আটকানোর এই সিদ্ধান্ত টুইটারের নতুন নীতিমালার অংশ। বিভিন্ন মানবিক সংগঠন ও অন্যান্য বিশ্বাসযোগ্য সূত্রের বিবেচনার ওপর ভিত্তি করে ভুল তথ্য থাকা এসব কনটেন্ট ছড়ানোর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করবে সামাজিক মাধ্যমটি। সংকটের সময় প্রতিষ্ঠানটি কীভাবে ভুল তথ্য নিয়ন্ত্রণ করবে, সেই বিষয়টি নীতিমালায় উল্লেখ করেছে টুইটার। যদিও এ আগ্রাসনকে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ হিসাবে আখ্যা দিয়েছে মস্কো। সামাজিক মাধ্যমে কীভাবে ভুল তথ্য নির্ধারণ এবং নিয়ন্ত্রণ হচ্ছে, সেই প্রশ্নে এরই মধ্যে তদন্তের মুখে পড়েছে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যম। টুইটার বোর্ড তাদের কোম্পানিকে টেসলা সিইও ইলন মাস্কের কাছে বিক্রি করতে রাজি হয়েছে। মাস্কের মতে, সামাজিক মাধ্যমটি বাকস্বাধীনতার একটি প্ল্যাটফরম হওয়া উচিত। টুইটারে কোনো টুইট নীতিমালা লঙ্ঘন করছে কি না, সেটি ব্যবহারকারীকে জানাবে নতুন এ সতর্ক বার্তা। সেই টুইট অন্য ব্যবহারকারী দেখতে এবং সেখানে মন্তব্য করতে পারলেও প্ল্যাটফরমটি এই ধরনের টুইট ছড়ানোর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করবে এবং রিটুইট করার সুবিধাও বন্ধ করে দেবে। টুইটারের নিরাপত্তা প্রধান ইয়োয়েল রথ জানিয়েছেন ‘যদিও ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরুর আগে থেকে এ নীতিমালা নিয়ে কাজ চলছে, তবে, যুদ্ধ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এর প্রয়োজনীয়তাও বেড়েছে।’

ইউক্রেন নিয়ে ‘ভুল তথ্য’ ঠেকাতে সচেষ্ট টুইটার

 আইটি ডেস্ক 
২৩ মে ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটার ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে ভুল তথ্য ঠেকাতে কাজ করছে। যেসব কনটেন্টে ‘ভুল তথ্য’ রয়েছে, সেগুলোতে এখন থেকে সতর্ক বার্তা দেখাবে প্রতিষ্ঠানটি। ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক আগ্রাসনবিষয়ক ভুল তথ্য আটকানোর এই সিদ্ধান্ত টুইটারের নতুন নীতিমালার অংশ। বিভিন্ন মানবিক সংগঠন ও অন্যান্য বিশ্বাসযোগ্য সূত্রের বিবেচনার ওপর ভিত্তি করে ভুল তথ্য থাকা এসব কনটেন্ট ছড়ানোর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করবে সামাজিক মাধ্যমটি। সংকটের সময় প্রতিষ্ঠানটি কীভাবে ভুল তথ্য নিয়ন্ত্রণ করবে, সেই বিষয়টি নীতিমালায় উল্লেখ করেছে টুইটার। যদিও এ আগ্রাসনকে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ হিসাবে আখ্যা দিয়েছে মস্কো। সামাজিক মাধ্যমে কীভাবে ভুল তথ্য নির্ধারণ এবং নিয়ন্ত্রণ হচ্ছে, সেই প্রশ্নে এরই মধ্যে তদন্তের মুখে পড়েছে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যম। টুইটার বোর্ড তাদের কোম্পানিকে টেসলা সিইও ইলন মাস্কের কাছে বিক্রি করতে রাজি হয়েছে। মাস্কের মতে, সামাজিক মাধ্যমটি বাকস্বাধীনতার একটি প্ল্যাটফরম হওয়া উচিত। টুইটারে কোনো টুইট নীতিমালা লঙ্ঘন করছে কি না, সেটি ব্যবহারকারীকে জানাবে নতুন এ সতর্ক বার্তা। সেই টুইট অন্য ব্যবহারকারী দেখতে এবং সেখানে মন্তব্য করতে পারলেও প্ল্যাটফরমটি এই ধরনের টুইট ছড়ানোর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করবে এবং রিটুইট করার সুবিধাও বন্ধ করে দেবে। টুইটারের নিরাপত্তা প্রধান ইয়োয়েল রথ জানিয়েছেন ‘যদিও ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরুর আগে থেকে এ নীতিমালা নিয়ে কাজ চলছে, তবে, যুদ্ধ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এর প্রয়োজনীয়তাও বেড়েছে।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন