নতুন আইওএসে ভয়ানক ত্রুটি
jugantor
নতুন আইওএসে ভয়ানক ত্রুটি

  আইটি ডেস্ক  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল তাদের নতুন অপারেটিং সিস্টেম ‘আইওএস ১৬’ আনার পরপরই আইফোনের ব্যাটারি বেশি খরচ হওয়া, ক্যামেরা কাঁপা, কপি-পেস্টের সমস্যা ও পর্দা কালো হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে অনেকটা বাধ্য হয়েই আইওএস ১৬-এর হালনাগাদ সংস্করণ উন্মুক্ত করে প্রতিষ্ঠানটি। এরপরও নতুন করে আইওএস ১৬তে ভয়ানক ত্রুটির সন্ধান মিলেছে। ইকুইনাক্স নামের একটি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি আইওএস ১৬ অপারেটিং সিস্টেমে ‘মেইলজ্যাক’ নামের ত্রুটি শনাক্ত করেছে। নিজেদের তৈরি ভিপিএন ট্র্যাকারের মাধ্যমে এ ত্রুটির সন্ধান পেয়েছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটি। প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, এ ত্রুটি কাজে লাগিয়ে অপরিচিত ঠিকানা থেকে আকারে বড় ই-মেইল পাঠিয়ে সহজেই আইফোন ও আইপ্যাডের ই-মেইল অ্যাপ অকার্যকর করা যায়। ফলে আইফোন বা আইপ্যাড থেকে ই-মেইল অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন না ব্যবহারকারীরা। এসব ই-মেইলে বিশেষ ধরনের কোডযুক্ত বার্তা ব্যবহার করায় এ সমস্যা হয়। নতুন আইওএসে চাইলেই মুছে ফেলা যায় না ই-মেইলগুলো। ফলে যে কোনো মুহূর্তে সাইবার হামলার কবলে পড়তে পারেন আইফোন ও আইপ্যাড ব্যবহারকারীরা। ইকুইনাক্সের দেওয়া তথ্যমতে, আইওএস ১৬ অপারেটিং সিস্টেমে না মিললেও আগের সংস্করণগুলোতে চলা আইফোন ও আইপ্যাড থেকে সন্দেহজনক ই-মেইলগুলো সহজেই মুছে ফেলা যায়। নতুন অপারেটিং সিস্টেমে ই-মেইল অ্যাপও হালনাগাদ করেছে অ্যাপল। আর হালনাগাদ করার পরই এ কারিগরি ত্রুটি দেখা দিয়েছে। আইওএস ১৬তে এ সমস্যা দূর না হওয়া পর্যন্ত পুরোনো অপারেটিং সিস্টেমে চলা আইফোন ও আইপ্যাড ব্যবহার করে সন্দেহজনক ই-মেইলগুলো মুছে ফেলার পরামর্শ দিয়েছে ইকুইনাক্স।

নতুন আইওএসে ভয়ানক ত্রুটি

 আইটি ডেস্ক 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল তাদের নতুন অপারেটিং সিস্টেম ‘আইওএস ১৬’ আনার পরপরই আইফোনের ব্যাটারি বেশি খরচ হওয়া, ক্যামেরা কাঁপা, কপি-পেস্টের সমস্যা ও পর্দা কালো হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে অনেকটা বাধ্য হয়েই আইওএস ১৬-এর হালনাগাদ সংস্করণ উন্মুক্ত করে প্রতিষ্ঠানটি। এরপরও নতুন করে আইওএস ১৬তে ভয়ানক ত্রুটির সন্ধান মিলেছে। ইকুইনাক্স নামের একটি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি আইওএস ১৬ অপারেটিং সিস্টেমে ‘মেইলজ্যাক’ নামের ত্রুটি শনাক্ত করেছে। নিজেদের তৈরি ভিপিএন ট্র্যাকারের মাধ্যমে এ ত্রুটির সন্ধান পেয়েছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটি। প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, এ ত্রুটি কাজে লাগিয়ে অপরিচিত ঠিকানা থেকে আকারে বড় ই-মেইল পাঠিয়ে সহজেই আইফোন ও আইপ্যাডের ই-মেইল অ্যাপ অকার্যকর করা যায়। ফলে আইফোন বা আইপ্যাড থেকে ই-মেইল অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন না ব্যবহারকারীরা। এসব ই-মেইলে বিশেষ ধরনের কোডযুক্ত বার্তা ব্যবহার করায় এ সমস্যা হয়। নতুন আইওএসে চাইলেই মুছে ফেলা যায় না ই-মেইলগুলো। ফলে যে কোনো মুহূর্তে সাইবার হামলার কবলে পড়তে পারেন আইফোন ও আইপ্যাড ব্যবহারকারীরা। ইকুইনাক্সের দেওয়া তথ্যমতে, আইওএস ১৬ অপারেটিং সিস্টেমে না মিললেও আগের সংস্করণগুলোতে চলা আইফোন ও আইপ্যাড থেকে সন্দেহজনক ই-মেইলগুলো সহজেই মুছে ফেলা যায়। নতুন অপারেটিং সিস্টেমে ই-মেইল অ্যাপও হালনাগাদ করেছে অ্যাপল। আর হালনাগাদ করার পরই এ কারিগরি ত্রুটি দেখা দিয়েছে। আইওএস ১৬তে এ সমস্যা দূর না হওয়া পর্যন্ত পুরোনো অপারেটিং সিস্টেমে চলা আইফোন ও আইপ্যাড ব্যবহার করে সন্দেহজনক ই-মেইলগুলো মুছে ফেলার পরামর্শ দিয়েছে ইকুইনাক্স।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন