আইটিইউর প্রথম নারী প্রধান
jugantor
আইটিইউর প্রথম নারী প্রধান

  আইটি ডেস্ক  

০২ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জাতিসংঘের অভ্যন্তরীণ কাঠামোর অন্তর্ভুক্ত সবচেয়ে পুরোনো সংস্থাগুলোর একটি ‘ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ)’। যোগাযোগ প্রযুক্তির আন্তর্জাতিক বাজারে মান নির্ধারক হিসাবে জাতিসংঘের প্রতিনিধিত্ব করে সংস্থাটি। আইটিইউ-এর প্রথম নারী মহাসচিব হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন ডোরিন বোগডান-মার্টিন। ১৮৬৫ সালে প্রতিষ্ঠার সময় সংস্থাটি আন্তর্জাতিক টেলিগ্রাফ নেটওয়ার্কের দেখভাল করত। বর্তমানে রেডিও, স্যাটেলাইট এবং ইন্টারনেট যোগাযোগ প্রযুক্তিতে আন্তর্জাতিক মান নির্ধারণ এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোতে টেলিযোগাযোগ কাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে সংস্থাটি।

সংস্থাটির মহাসচিব পদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক বোগডান-মার্টিনের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন রাশিয়ার রাশিদ ইসমাইলভ। নির্বাচনে ইসমাইলভ ২৫ ভোট পেলেও ১৩৯ ভোট পেয়ে জিতেছেন বোগডান-মার্টিন।

আইটিইউ-এর মহাসচিব পদে হুওলিন জা’র স্থলাভিষিক্ত হবেন বোগডান-মার্টিন; আনুষ্ঠানিকভাবে তার মেয়াদ শুরু হবে ২০২৩ সালের প্রথম দিন থেকে। ২০১৪ সাল থেকে দুই দফায় মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন জা।

অন্যদিকে মহাসচিব পদে নির্বাচিত হওয়ার পর দেওয়া বক্তব্যে পুরো বিশ্বে ইন্টারনেট সংযোগের আওতা বৃদ্ধির ইঙ্গিত দিয়েছেন বোগডান-মার্টিন। ‘আমাদের নিজেদের সন্তান হোক বা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হোক, তাদের বেড়ে ওঠার জন্য নির্ভরযোগ্য এবং স্থিতিশীল অবকাঠামো দিতে হবে আমাদের। বিশ্ব এখন অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে-সংঘাত বাড়ছে, জলবায়ু সংকট, খাদ্য নিরাপত্তা, লিঙ্গ বৈষম্য এবং এখনো ইন্টারনেট সংযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন আছেন ২৭০ কোটি মানুষ,’ বলেন তিনি।

আইটিইউর প্রথম নারী প্রধান

 আইটি ডেস্ক 
০২ অক্টোবর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জাতিসংঘের অভ্যন্তরীণ কাঠামোর অন্তর্ভুক্ত সবচেয়ে পুরোনো সংস্থাগুলোর একটি ‘ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ)’। যোগাযোগ প্রযুক্তির আন্তর্জাতিক বাজারে মান নির্ধারক হিসাবে জাতিসংঘের প্রতিনিধিত্ব করে সংস্থাটি। আইটিইউ-এর প্রথম নারী মহাসচিব হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন ডোরিন বোগডান-মার্টিন। ১৮৬৫ সালে প্রতিষ্ঠার সময় সংস্থাটি আন্তর্জাতিক টেলিগ্রাফ নেটওয়ার্কের দেখভাল করত। বর্তমানে রেডিও, স্যাটেলাইট এবং ইন্টারনেট যোগাযোগ প্রযুক্তিতে আন্তর্জাতিক মান নির্ধারণ এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোতে টেলিযোগাযোগ কাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে সংস্থাটি।

সংস্থাটির মহাসচিব পদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক বোগডান-মার্টিনের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন রাশিয়ার রাশিদ ইসমাইলভ। নির্বাচনে ইসমাইলভ ২৫ ভোট পেলেও ১৩৯ ভোট পেয়ে জিতেছেন বোগডান-মার্টিন।

আইটিইউ-এর মহাসচিব পদে হুওলিন জা’র স্থলাভিষিক্ত হবেন বোগডান-মার্টিন; আনুষ্ঠানিকভাবে তার মেয়াদ শুরু হবে ২০২৩ সালের প্রথম দিন থেকে। ২০১৪ সাল থেকে দুই দফায় মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন জা।

অন্যদিকে মহাসচিব পদে নির্বাচিত হওয়ার পর দেওয়া বক্তব্যে পুরো বিশ্বে ইন্টারনেট সংযোগের আওতা বৃদ্ধির ইঙ্গিত দিয়েছেন বোগডান-মার্টিন। ‘আমাদের নিজেদের সন্তান হোক বা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হোক, তাদের বেড়ে ওঠার জন্য নির্ভরযোগ্য এবং স্থিতিশীল অবকাঠামো দিতে হবে আমাদের। বিশ্ব এখন অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে-সংঘাত বাড়ছে, জলবায়ু সংকট, খাদ্য নিরাপত্তা, লিঙ্গ বৈষম্য এবং এখনো ইন্টারনেট সংযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন আছেন ২৭০ কোটি মানুষ,’ বলেন তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন