সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর
jugantor
সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর

  আইটি ডেস্ক  

৩০ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শেষ হলো সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন ২০২২। এবারের আসরের চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

সোমবার ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে বাস্তবধর্মী ছয়টি সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করার লক্ষ্য নিয়ে ‘সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন ২০২২’-এর গ্র্যান্ড ফিনালে ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি-বাংলাদেশ (এ আই ইউবি) ক্যাম্পাসে।

হ্যাকাথনে ২য় স্থান অর্জন করে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি চট্টগ্রাম, ৩য় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, ৪র্থ বাংলাদেশ ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি এবং ৫ম স্থান অর্জন করে এ জেট টেকনোলজি। চ্যাম্পিয়ন টিম ১ লাখ টাকা, দ্বিতীয় স্থান অর্জনকারী পায় ৭৫ হাজার টাকার আর্থিক সম্মাননা।

‘ক্ষুধামুক্ত বিশ্ব, সুস্বাস্থ্য, গুণগত শিক্ষা, ই-কমার্স, এমার্জিং টেকনোলজি, ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্স’-এমন ১১টি চ্যালেঞ্জ নিয়ে শুরু হওয়া ইনোভেশন হ্যাকাথন নিবন্ধন করে প্রায় ১২৪টি আইডিয়া। এর মধ্য থেকে ৫০ জন বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত প্রফেসর নিয়ে জুরি বোর্ড ও ২০ জন ইন্ডাস্ট্রি এক্সপার্ট বোর্ডের সদস্যের বাছাই করা ৪১টি আইডিয়া নিয়ে শুরু হয় হ্যাকাথন।

সিটিও ফোরাম বাংলাদেশের সভাপতি তপন কান্তি সরকার বলেন, ‘আইটি ইন্ডাস্ট্রিতে দক্ষ তরুণদের অনেক চাহিদা রয়েছে। প্রতিবছর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অসংখ্য মেধাবী আইটি গ্র্যাজুয়েট বের হচ্ছে, কিন্তু তাদের মধ্যে ইন্ডাস্ট্রির চাহিদা মতো দক্ষতা নেই। মেধাবী তরুণদের ভেতর থেকে উদ্ভাবনী আইডিয়াগুলোকে বের করে এনে জাতীয় স্বার্থে টেকসই প্রযুক্তি উদ্ভাবনে তরুণদের সৃজনশীলতাকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যেতে আমাদের এ প্রচেষ্টা।

সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর

 আইটি ডেস্ক 
৩০ নভেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শেষ হলো সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন ২০২২। এবারের আসরের চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

সোমবার ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে বাস্তবধর্মী ছয়টি সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করার লক্ষ্য নিয়ে ‘সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন ২০২২’-এর গ্র্যান্ড ফিনালে ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি-বাংলাদেশ (এ আই ইউবি) ক্যাম্পাসে।

হ্যাকাথনে ২য় স্থান অর্জন করে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি চট্টগ্রাম, ৩য় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, ৪র্থ বাংলাদেশ ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি এবং ৫ম স্থান অর্জন করে এ জেট টেকনোলজি। চ্যাম্পিয়ন টিম ১ লাখ টাকা, দ্বিতীয় স্থান অর্জনকারী পায় ৭৫ হাজার টাকার আর্থিক সম্মাননা।

‘ক্ষুধামুক্ত বিশ্ব, সুস্বাস্থ্য, গুণগত শিক্ষা, ই-কমার্স, এমার্জিং টেকনোলজি, ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্স’-এমন ১১টি চ্যালেঞ্জ নিয়ে শুরু হওয়া ইনোভেশন হ্যাকাথন নিবন্ধন করে প্রায় ১২৪টি আইডিয়া। এর মধ্য থেকে ৫০ জন বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত প্রফেসর নিয়ে জুরি বোর্ড ও ২০ জন ইন্ডাস্ট্রি এক্সপার্ট বোর্ডের সদস্যের বাছাই করা ৪১টি আইডিয়া নিয়ে শুরু হয় হ্যাকাথন।

সিটিও ফোরাম বাংলাদেশের সভাপতি তপন কান্তি সরকার বলেন, ‘আইটি ইন্ডাস্ট্রিতে দক্ষ তরুণদের অনেক চাহিদা রয়েছে। প্রতিবছর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অসংখ্য মেধাবী আইটি গ্র্যাজুয়েট বের হচ্ছে, কিন্তু তাদের মধ্যে ইন্ডাস্ট্রির চাহিদা মতো দক্ষতা নেই। মেধাবী তরুণদের ভেতর থেকে উদ্ভাবনী আইডিয়াগুলোকে বের করে এনে জাতীয় স্বার্থে টেকসই প্রযুক্তি উদ্ভাবনে তরুণদের সৃজনশীলতাকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যেতে আমাদের এ প্রচেষ্টা।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন