শেষ হল স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিশেষ মূল্যছাড় আর উপহারের মধ্য দিয়ে শনিবার শেষ হল তিন দিনব্যাপী ‘টেকশহর ডটকম স্মার্টফোন অ্যান্ড ট্যাব এক্সপো ২০১৮’। শুক্র ও শনিবার দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে ঢাকার আগারগাঁওয়ের বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) দেশের প্রযুক্তি খাতের পণ্য প্রদর্শনীর সবচেয়ে বড় এ আয়োজন। ছুটির দিন থাকায় বড়দের পাশাপাশি ছোটদের এবং শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ ছিল দেখার মতো। মেলায় দেশি-বিদেশি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্যামসাং, টেকনো, শাওমি, উই, হুয়াওয়ে, এলজি স্মার্টফোন, অপ্পো, সিম্ফনি, লাভা, নকিয়া, লেনোভো, আসুস জেনফোন, উইনম্যাক্স, মাইক্রোম্যাক্স, ডিসিএল, ডিটেল, এডাটা, কিকসা ডটকম, আজকের ডিল, মেঘনা ব্যাংক ট্যাপ এন পে, কুইক ফিক্স, বিজয় ডিজিটালসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। নতুন অনেক তরুণ-তরুণী গেম ও অ্যাপ তৈরি করতে চান। কিন্তু জানেন না কীভাবে শুরু করবেন? এমনি একঝাঁক তরুণ-তরুণীকে নিয়ে টেকশহর ডটকম স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপোর প্রথম দিনে অনুষ্ঠিত হয় ‘মোবাইল অ্যাপ ও গেম: সম্ভবনা ও করণীয়’বিষয়ক সেমিনার। এডুমেকার ও টেকশহরের আয়োজনে এ সেমিনারটিতে কিনোট উপস্থাপন করেন বিশ্বমাতানো গেম ট্যাপ ট্যাপ অ্যান্টসের নির্মাতা এবং রাইজআপ ল্যাবসের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও এরশাদুল হক। সেমিনারটি মডারেটও করেন তিনি। সেমিনারে মাইন্ডফিশার গেমসের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও জামিল রশিদ বলেন, দেশীয় খাতে গেম বেশ কম, তাই যদি দেশীয় বাজার লক্ষ্য করে ভালো গেম তৈরি করা যায়, তাহলে অনেক বেশি সাড়া পাওয়া যাবে। নতুনদের গেম তৈরি করতে হলে কোয়ালিটির দিকে নজর দিতে হবে। তিনি আরও বলেন, বড় ধরনের গেম তৈরির জন্য অনেক বিনিয়োগের প্রয়োজন। তাই গেমগুলো কেমন, সেগুলো অনেকাংশ নির্ভর করে বিনিয়োগের ওপর। তবে নতুনদের বিনিয়োগ কম থাকে, সেক্ষেত্রে ছোট ছোট কিছু গেম তৈরি করে শুরু করা উচিত। তারপর আস্তে আস্তে বড় প্রজেক্টের গেম তৈরি করা উচিত। নতুন কেউ যদি মোবাইল অ্যাপ তৈরি করতে চায়, তাহলে কোন বিষয়ে নজর দিতে হবে- এমন প্রশ্নের জবাবে অডাসিটি আইটি সলিউশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও সিদ্দিক আবু বাক্কার বলেন, নতুন ডেভেলপাররা যদি দেশীয় মার্কেট লক্ষ করে অ্যাপ তৈরি করতে চান, তাহলে প্রথমে কোনো একটি সমস্যার সমাধান করতে হবে। যদি অ্যাপ ব্যবহারকারীদের উপকার হয়, তাহলে তা দ্রুত জনপ্রিয়তা পাবে এবং লাভবান হওয়া যাবে। নতুনরা কীভাবে স্কিল ডেভেলপ করবেন, এ সম্পর্কে আইটিআইডব্লিউ-এর প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও তানভীর আদনান বলেন, গেম খাতে কাজ করতে হলে অবশ্যই তাদের আগ্রহী হতে হবে বিষয়টি নিয়ে। গেম নিয়ে বিশ্বের অনেক দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ বছরের কোর্স রয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে তেমন নেই। তবে কিছু প্রতিষ্ঠান প্রশিক্ষণ দিলেও তা পর্যাপ্ত নয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে সহজ উপায় হল ইন্টারনেট থেকে শেখা। ইউটিউবে অনেক ভিডিও টিউটোরিয়াল রয়েছে গেম ডেভেলপমেন্ট নিয়ে। ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক রিয়াদ হোসেন সেমিনারে মোবাইল গেম ডেভেলপমেন্ট ও গেম অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্টে বাংলাদেশের সম্ভাবনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। দেশে স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট কম্পিউটার নিয়ে এটিই সবচেয়ে বড় আয়োজন। অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান এক্সপো মেকারের স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট নিয়ে এটি নবম আয়োজন। এবারের মেলার টাইটেল স্পন্সর দেশের আইসিটি ও টেলিকমবিষয়ক শীর্ষস্থানীয় নিউজ পোর্টাল টেকশহরডটকম। প্ল্যাটিনাম স্পন্সর স্যামসাং ও টেকনো মোবাইল। গোল্ড স্পন্সর শাওমি ও উই। সিলভার স্পন্সর হুয়াওয়ে, এলজি স্মার্ট ফোন, অপ্পো ও সিম্ফনি। পার্টনার হিসেবে রয়েছে এডুমেকার। মেলার টিকিট বুথ স্পন্সর কিকসা ডটকম। -আইটি ডেস্ক

 
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

 

gpstar

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

E-mail: [email protected], [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter