বইমেলায় খণ্ডকালীন চাকরি

  আতিকুর রহমান ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতি বছর মাসব্যাপী অনুষ্ঠিত হয় অমর একুশে গ্রন্থমেলা। বরাবরের মতো এবারও মাসব্যাপী এ মেলার আয়োজক বাংলা একাডেমি। এবার মেলার পরিসর আরও বাড়ছে। ‘বিজয় : ‘৫২ থেকে ৭১’ ভাবনা থেকে সাজানো হচ্ছে মেলার পরিসর। জানা গেছে, এবার মেলায় পাঁচ শতাধিক প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান অংশ নিচ্ছে। মেলা উপলক্ষে দেশি-বিদেশি প্রচুর পাঠক ছুটে আসেন বইমেলা প্রাঙ্গণে, খুঁজে নেন পছন্দের বই; পাঠকের চাহিদামাফিক বই সরবরাহ করতে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলোর নিয়মিত কর্মীর পাশাপাশি খণ্ডকালীন বিক্রয়কর্মী নিয়োগ দিয়ে থাকেন।

বইমেলায় বিক্রয়কর্মী হিসেবে শিক্ষার্থীদের বেশি সুযোগ দেয়া হয়। শিক্ষার্থীদের মাঝে খণ্ডকালীন চাকরিতে যারা আগ্রহী, তাদের কাছে অমর একুশে বইমেলা পছন্দের স্থান। বইমেলায় বিক্রয়কর্মী হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার এখনই সময়।

বইমেলায় কাজের জন্য প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলো সিভি সংগ্রহ শুরু করেছে। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান ব্যক্তিগত যোগাযোগের মাধ্যমে লোক নিয়ে থাকে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। তাই খোঁজ নিয়ে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে আপনিও পেয়ে যেতে পারেন বইমেলায় খণ্ডকালীন চাকরি।

বইমেলায় কাজের ধরন অন্যান্য ক্ষেত্রের চেয়ে একটু ভিন্ন। বইমেলা প্রতিদিন বেলা ৩টায় শুরু হয়ে চলে রাত ৮টা পর্যন্ত। এছাড়া বন্ধের দিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা। মেলা চলাকালে পুরোটা সময় স্টলে থেকে বইগুলো ক্রেতার কাছে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে হয়। পাঠক ক্রেতাদের চাহিদা ও পছন্দের দিকে রাখতে হয় বাড়তি খেয়াল। সময় কম হওয়ায় শিক্ষার্থীরা অনায়াসে কাজ চালিয়ে যেতে পারে, লেখাপড়ার কোনো ক্ষতি ছাড়াই।

বইমেলায় বিক্রয়কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরাই অগ্রাধিকার পান। খণ্ডকালীন ভিত্তিতে কাজের জন্য যাদের নিয়োগ দেয়া হয়, তাদের কমপক্ষে এইচএসসি পাস হতে হয়। এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকেই বেশিরভাগ লোকবল নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থী ছাড়াও বিভিন্ন বয়সী লোকজন নিয়োগ দিয়ে থাকেন কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান। এক্ষেত্রে কাজের পূর্বাভিজ্ঞতা ও বইপত্র সম্বন্ধে ভালো ধারণা থাকলে কাজ পাওয়া সহজ হয়।

বইমেলা উপলক্ষে নিয়মিত কর্মীর পাশাপাশি খণ্ডকালীন লোকবল নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকে। এ লোক নিয়োগ দেয়ার ক্ষেত্রে পত্রপত্রিকায় তেমন একটা বিজ্ঞাপন দেয়া হয় না, তবে বিভিন্ন প্রকাশনীর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখলে প্রয়োজনমাফিক সেখান থেকে আগ্রহী প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকে। এ বিষয়ে শ্রাবণ প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী রবিন আহসান জানান, খণ্ডকালীন কর্মী বাছাইয়ের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি আবেদনকারীর কাজ করার আগ্রহ, চাপ নিয়ে কাজ করার ক্ষমতা, উপস্থাপন কৌশল, বুদ্ধিমত্তা, যোগাযোগ দক্ষতা, পাঠকের চাহিদা সহজেই বুঝতে পারা ইত্যাদি বিষয় গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয়। এছাড়া তাদের আমরা কিছু মৌলিক বিষয় শিখিয়ে দেয়া হয়, যেন তাদের কাজ করতে কোনো সমস্যায় পড়তে না হয়’। এছাড়াও কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানে ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোর মাধ্যমে বইমেলায় কাজের জন্য প্রার্থীদের কাছ থেকে সিভি চাওয়া হয়। সেখান থেকে শর্টলিস্ট করে ভাইভার মাধ্যমে নিয়োগ দিয়ে থাকে। বইমেলায় লেখক-পাঠকদের সঙ্গে কথা হয়, নতুন বই সম্পর্কে জানা যায়, আর মাস শেষে কিছু বাড়তি আয়ও হয়। মেলায় খণ্ডকালীন ভিত্তিতে চাকরির সুযোগ-সুবিধার ব্যাপার জানতে চাইলে রবিন আহসান বলেন, মেলায় এক মাসের প্রতি বিক্রয়কর্মীকে প্রতিষ্ঠানভেদে ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়ে থাকেন। এছাড়া দুপুরের খাবার, সন্ধ্যার নাশতাসহ নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাবে। এক মাসের এ চাকরির অভিজ্ঞতা অন্য কোথাও চাকরির ক্ষেত্রে আবেদনপত্রে অভিজ্ঞতা হিসেবেও দেখানো যায়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×