ভাইভায় যে ৮ লক্ষণ দেখে বুঝবেন চাকরি অনিশ্চিত

প্রকাশ : ১১ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  এমএ রহমান

প্রতীকী ছবি

পড়ালেখা শেষ হতে না হতেই মাথায় চাকরির চিন্তা ঘুরপাক করতে থাকে। কেননা জীবনের কাক্সিক্ষত স্বপ্নপূরণ করতে হলে প্রফেশনাল লাইফে দ্রুত উৎকর্ষতা সাধন করতে হবে। কিন্তু আজকাল চাকরি তো সোনার হরিণ। খুব সহজে বগলদাবা করা যায় না। গলদঘর্ম হতে হয় চাকরির পেছনে ছুটতে ছুটতে। তাই চাকরির জন্য চাই পূর্ব প্রস্তুতি।

যে কোনো চাকরির জন্য মুখোমুখি হতে হয় ভাইবার। ইন্টারভিউতে নিজেকে ভালোভাবে উপস্থাপন করতে হয়। সেখানে নিজেকে তুলে ধরতে হয় চাতুর্যতার সঙ্গে। ইন্টারভিউ পারফরমেন্স ভালো হলে চাকরি হয়ে যায়, আর যদি ভালো না হয় তাহলে চাকরি অনিশ্চিত।

ইন্টারভিউয়ে প্রশ্নকর্তার প্রশ্নই বলে দেবে আপনার চাকরি হবে কিনা। তবে কিছু কিছু লক্ষণ আছে দেখলেই বোঝা যাবে চাকরি অনিশ্চিত। সেগুলো নিচে দেয়া হল-

১) খেয়াল রাখুন কতক্ষণ ধরে ইন্টারভিউ নেয়া হচ্ছে? সেটা যদি খুব অল্পসময়ের জন্য হয় তাহলে বুঝতে হবে চাকরিটা অনিশ্চিত। সেক্ষেত্রে আপনাকে শুধু নামধাম জিজ্ঞেস করে বিদায় করে দেবে।

২) যে পদের জন্য আপনি ইন্টারভিউ দিতে এসেছেন, সে বিষয়ে কোনো প্রশ্ন নিয়ে আলোচনাই করছে না, বরং অবান্তর কিছু প্রশ্ন করেছে? এর অর্থ হল আপনার চাকরিটা হচ্ছে না। শুধু একটু সময় নষ্ট করে ছেড়ে দেবেন।

৩) পরপর প্রশ্ন করা হচ্ছে কিনা, সেটা একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যদি ঠিকঠাক প্রশ্ন আসে, তাহলে ঠিকই আছে। কিন্তু যদি একই প্রশ্ন পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে করতে থাকে তাহলে কিন্তু সমস্যা হচ্ছে বুঝে নিতে হবে। আপনাকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা চলছে।

৪) আপনাকে যদি নেয়ার ইচ্ছে থাকে, তাহলে যারা নিচ্ছেন তারা ইন্টারভিউয়ে চোখে চোখ রেখে কথা বলবেন। আপনার চোখে চোখ রেখে কথা না বললে বুঝতে হবে সমস্যা রয়েছে।

৫) খেয়াল রাখুন, যিনি ইন্টারভিউ নিচ্ছেন, তার ভাবভঙ্গি কেমন। তিনি যদি পেছনে গা এলিয়ে দেন, আপনার কথা শুনেও না শোনার ভান করেন, তাহলে বুঝে নিন আপনার চাকরিটা আর হচ্ছে না।

৬) প্রশ্নকর্তা যদি আপনার মঙ্গল কামনা করে তাহলে বুঝবেন সেটা মোটেও মঙ্গলের জন্য নয়। সামান্য কথা বলার পরই আপনাকে ‘ধন্যবাদ’ দেয়া হল এবং আপনার সঙ্গে পরে যোগাযোগ করা হবে। আপনার মঙ্গল কামনা করছি। এ ধরনের কথা বললে বুঝবেন সেই যোগাযোগ আর হবে না।

৭) আপনি কেন প্রতিষ্ঠানটিতে যোগ দিতে চান? ভবিষ্যতে আপনি নিজেকে কোন জায়গায় দেখতে চান? এ ধরনের প্রশ্ন না করলে বুঝবেন ইন্টারভিউ ভালো হচ্ছে না।

৮) ইন্টারভিউ শেষে সাধারণত একটি হাসি বিনিময় হয়। ইন্টারভিউ ভালো হলে সেই হাসি হয় উজ্জ্বল। কিন্তু খারাপ হলে হাসি হয় সৌজন্যতার কিংবা বিদ্রুপের।