জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা

একদিনের অব্যাহতি পেলেও খালেদা জিয়া আজ আদালতে যাবেন

আদালতে গিয়ে খালেদা জিয়া শুনলেন, শুনানি দুই ঘণ্টা পর

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৪ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খালেদা

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে একদিনের জন্য জামিন ও মামলায় ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন আদালত।

খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আইনজীবীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫-এর বিচারক মো. আখতারুজ্জামান মঙ্গলবার এ আদেশ দেন।

এ আদেশের ফলে খালেদা জিয়াকে আজ আদালতে হাজির থাকতে হবে না। তবে মামলায় জড়িত অন্য আসামিদের বিষয়ে শুনানি অব্যাহত থাকবে।

এদিকে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া মঙ্গলবার রাতে যুগান্তরকে জানিয়েছেন, ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে একদিনের জন্য অব্যাহতি পেলেও আজ বেলা ১১টায় খালেদা জিয়া আদালতে যাবেন। তিনি বলেন, আমরা মামলার কার্যক্রম একদিনের জন্য স্থগিত চেয়েছিলাম।

মঙ্গলবার বেলা ১১টা ৩৮ মিনিটে খালেদা জিয়া বিশেষ আদালতে হাজির হন। বিচারকাজ শুরু হয় দুপুর ১টা ৫৭ মিনিটে। শেষ হয় বিকাল ৩টায়। সকালে বিচারক তার এজলাসে এসে প্রসিকিউশন পক্ষে পিপি মোশাররফ হোসেন কাজল ও আসামিপক্ষের আইনজীবী আমিনুল ইসলামকে ডেকে দেরিতে আদালত বসার কারণ জানান।

তারা বিচারকের এজলাস থেকে বের হয়ে এজলাসে উপস্থিত আইনজীবীদের জানান, গত এক বছরে ঢাকার আদালতের (জজ কোর্ট) যেসব আইনজীবী মারা গেছেন তাদের স্মরণসভা উপলক্ষে বিচারক দুপুর ২টায় বিচারকাজ শুরু করবেন। দুই ঘণ্টা পরে বিচারকাজ শুরুর বিষয়টি জানার পর আইনজীবীরা এজলাস থেকে বেরিয়ে যান। তবে খালেদা জিয়া তার নির্দিষ্ট আসনেই বসে ছিলেন।

শুনানি শুরু হলে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার আসামি শরফুদ্দিনের পক্ষে অ্যাডভোকেট আহসান উল্লাহ ও অপর আসামি কাজী কামালের পক্ষে অ্যাডভোকেট মনিরুলহুদা তাদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। এ সময় তারা আদালতে দেয়া সাক্ষীদের সাক্ষ্য ও জেরায় দেয়া বক্তব্য আদালতের কাছে তুলে ধরেন।

একপর্যায়ে অ্যাডভোকেট আহসান উল্লাহ বলেন, মাননীয় আদালত আজ আর পারছি না। আজকের মতো আদালতের কার্যক্রম মুলতবি করুন। আদালত আইনজীবীর আবেদনে সাড়া দেন।

এ সময় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া বিচারকের উদ্দেশে বলেন, মাননীয় আদালত কাল(আজ) ম্যাডামের ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুবার্ষিকী। তাই একদিনের জন্য মামলার কার্যক্রম মুলতবি চাচ্ছি। এ পর্যায়ে বিচারক বলেন, কাল (আজ)ম্যাডামের আসার দরকার নেই। তিনি জামিনে থাকবেন। তবে অন্য আসামিদের বিষয়ে শুনানি চলবে। বিচারকের এ আদেশের মধ্য দিয়ে এদিনের মতো মামলার কার্যক্রম শেষ হয়।

পরে আদালত থেকে বেরিয়ে খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, যে ২ কোটি ৩৩ লাখ টাকা নিয়ে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার সূত্রপাত ওই টাকা এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ কোটি টাকারও বেশি। মামলার ৩২ জন সাক্ষীর কোনো সাক্ষীই বলেননি যে, টাকাটা আত্মসাৎ হয়েছে। আত্মসাৎ হলে টাকা বেড়ে ৬ কোটি টাকা হওয়ার কথা নয়। ওই টাকা ব্যাংকে জমা আছে।

তিনি বলেন, শুধু রাজনৈতিক কারণেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও তার বড় ছেলে তারেক রহমানকে আসামি করা হয়েছে। তিনি বলেন, জিয়া পরিবারের একজন সদস্য মারা গেছেন। তাই বিচারক বলেছেন, ম্যাডাম কাল (আজ) জামিনে থাকবেন। তবে পুরো মামলার কার্যক্রম মুলতবি করা হয়নি। ম্যাডামকে একদিনের জন্য অব্যাহতি দিয়েছেন।

প্রসিকিউশন পক্ষে আদালতের পিপি মোশাররফ হোসেন কাজল এজলাসের বাইরে সাংবাদিকদের বলেন, এতিমদের টাকা আত্মসাতের ঘটনায় এ মামলা। সাক্ষীদের বক্তব্যে তা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এদিকে খালেদা জিয়ার হাজিরা উপলক্ষে বরাবরের মতো এদিনও আদালত চত্বরে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়। আদালতে প্রবেশমুখেই ছিল আর্চওয়ে।

এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো। এদিন আদালতে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আবদুল আউয়াল মিন্টু, নজরুল ইসলাম খান, আফরোজা আব্বাস প্রমুখ। এ ছাড়া খালেদা জিয়ার আইনজীবী হিসেবে আবদুর রেজ্জাক খান, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহমেদ তালুকদারসহ শতাধিক আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রাজধানীর রমনা থানায় প্রথম মামলাটি দায়ের করা হয়।

আর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট রাজধানীর তেজগাঁও থানায় দ্বিতীয় মামলাটিও দায়ের করে দুদক।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter