আন্তর্জাতিক কমিটি থেকে পদত্যাগ

সু চির বিরুদ্ধে ‘নৈতিক অবক্ষয়’র অভিযোগ মার্কিন কূটনীতিকের

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের সরকারের উদ্যোগে গঠিত একটি আন্তর্জাতিক কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিক বিল রিচার্ডসন। এ সিদ্ধান্তের কারণ হিসেবে তিনি মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সু চির বিরুদ্ধে নৈতিক অবক্ষয়ের অভিযোগ এনেছেন। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আন্তর্জাতিক ওই কমিটি করা হয়েছিল চোখে ধুলো দেয়ার জন্য। খবর রয়টার্সের।

বিল রিচার্ডসন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের প্রশাসনের জ্বালানিমন্ত্রী ছিলেন। আন্তর্জাতিক ওই কমিটির ১০ সদস্যের রাখাইন রাজ্য পরিদর্শনের মধ্যেই পদত্যাগের এ সিদ্ধান্ত জানালেন তিনি। রিচার্ডসন বলেন, ‘আমার পদত্যাগের মূল কারণ হল এই যে, এ উপদেষ্টা কমিটি করা হয়েছে সবার চোখে ধুলো দেয়ার জন্য।’ তিনি আরও বলেন, তিনি সরকারের এ খেলার স্কোয়াডে থাকতে চান না। মার্কিন কূটনীতিক বলেন, কমিটির অন্য সদস্যের উপস্থিতিতে গত সোমবার সু চির সঙ্গে তার তর্ক হয়। এ সময় তিনি রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের প্রসঙ্গটি সামনে আনেন। দেশের গোপনীয় আইন ভঙ্গের অভিযোগে সাংবাদিকদের বিচার চলছে।

সাবেক নিউ মেক্সিকো অঙ্গরাজ্যের গভর্নর রিচার্ডসন বলেন, প্রতিক্রিয়ায় সু চি ক্রোধান্বিত হয়ে পড়েন। সু চি বলেন, উপদেষ্টা কমিটির এখতিয়ারে সাংবাদিক প্রসঙ্গ নেই। সেদিন রাত পর্যন্ত এ নিয়ে বিতর্ক চলে। এ বিষয়ে সু চি বা তার কার্যালয়ের মুখপাত্র জাও তায় কেউই কথা বলতে রাজি হননি। রাখাইনে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করছিলেন রয়টার্সের সাংবাদিক ওয়া লোন ও কিয়াও সোয়ে ও। ১২ ডিসেম্বর তাদের আটক করে পুলিশ। সরকারি সূত্র জানিয়েছে, রাখাইনে নিরাপত্তা পরিস্থিতির গোপন নথি ছিল তাদের কাছে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নুয়ার্ট বলেন, কমিটি থেকে রিচার্ডসনের পদত্যাগ উদ্বেগের ব্যাপার।

গত বছর এ উপদেষ্টা কমিটি গঠন করে মিয়ানমার। তাদের কাজ ছিল কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা। মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে রাখাইনে গণহত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগ করেছে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা। রিচার্ডসন বলেন, তাকে (সু চি) তার লোকজন ভালো পরামর্শ দিচ্ছে না। তিনি বলেন, ‘আমি তাকে অত্যন্ত সম্মান ও শ্রদ্ধা করি। রাখাইন ইস্যুতে তিনি নৈতিক নেতৃত্ব দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন এবং যে অভিযোগগুলো আনা হয়েছে সেগুলোর জন্য আমি অনুতপ্ত।’ সু চির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা থং তুন রয়টার্সকে বলেন, তিনি কমিটির অন্য সদস্যদের বুধবার রাখাইন পরিদর্শনে নিয়ে যান। কিন্তু রিচার্ডসন যাননি। তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ে তিনি খুশি ছিলেন না। কিন্তু এর কারণ আমি জানি না।’