সব মুক্তিযোদ্ধা আসছে ভাতার আওতায়

সম্মানী ভাতা পাচ্ছেন ১,৮৭,০৬৬ জন * ভাতার বাইরে ৪৩,৩৭৩ জন

  মিজান চৌধুরী ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সব মুক্তিযোদ্ধা আসছে ভাতার আওতায়

নতুন অর্থবছরে সব মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানী ভাতার আওতায় আনা হচ্ছে। জীবিত সব মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতা দেয়া হবে। এ কর্মসূচির আওতায় আনতে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার তালিকা যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। তালিকা চূড়ান্ত করার পর সংশ্লিষ্টদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ভাতা দেয়া হবে। মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। অর্থ মন্ত্রণালয়কে বিষয়টি অবহিত করেছে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

জানতে চাইলে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান যুগান্তরকে বলেন, ভাতার বাইরে থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের এ কর্মসূচির আওতায় আনা হবে। তিনি বলেন, ভাতার বাইরে থাকা মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা খুব বেশি না। প্রতিবছর বাজেটে ভাতাভোগী মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। এ প্রক্রিয়ায় সব মুক্তিযোদ্ধা ভাতার আওতায় চলে আসবে।

২০১৮ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা নিয়ে গ্যাজেট প্রকাশ করেছে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়। সর্বশেষ হিসাবে জীবিত মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ২ লাখ ৩০ হাজার ৪৩৯ জন। বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের আমলে তৎকালীন মন্ত্রিপরিষদ সচিব সাদত হুসাইনের নেতৃত্বে একটি কমিটি ১ লাখ ৯৮ হাজার ৮৮৯ জন মুক্তিযোদ্ধাকে গেজেটভুক্ত করে। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে ওই তালিকায় থাকা ৭০ হাজারের বেশি ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাকে চিহ্নিত করে। এরপর সরকার নতুন করে আরও সাড়ে ১১ হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে গেজেটভুক্ত করে। তখন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ছিলেন ক্যাপ্টেন (অব.) তাজুল ইসলাম। ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ আবার সরকার গঠন করে আরও ২০ হাজার মুক্তিযোদ্ধার নাম গেজেটভুক্ত করে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত অর্থবছর পর্যন্ত সম্মানী ভাতা পেয়েছেন ১ লাখ ৮৬ হাজার ২৪০ জন মুক্তিযোদ্ধা। সর্বশেষ চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে ১ লাখ ৮৭ হাজার ৬৬ জন মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতা দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এজন্য ২ হাজার ৭১৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এ সুবিধা দেয়ার পরও ভাতার বাইরে ৪৩ হাজার ৩৭৩ জন মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন। তাদের নতুন করে ভাতার আওতায় আনা হবে। তবে বর্তমান অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা হয়ে ভাতা পাচ্ছেন না এমন সংখ্যা খুবই কম। এখন যারা ভাতার বাইরে আছেন, তাদের অধিকাংশই সচ্ছল। এরপরও সরকার তাদের বিশেষ সম্মাননা দিতে সব মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতার আওতায় আনার উদ্যোগ নিচ্ছে।

সব মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতার আওতায় আনতে ২০০৯-১০ অর্থবছরে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির সার্বিক তত্ত্বাবধায়ন সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি দুই লাখ মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতা দেয়ার প্রস্তাব অনুমোদন করে। যাচাই-বাছাই করার পরও ৪৩ হাজার মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পাচ্ছেন না। তবে একই সময়ে ১ লাখ ৮৭ হাজার জনকে মাসিক ভাতা দেয়ার পাশাপাশি উৎসব ভাতা বিশেষ করে বিজয় দিবস ভাতা, পহেলা বৈশাখ ভাতা দেয়া হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ২০১৪ সালের ৩১ অক্টোবরের মধ্যে অনলাইনে এবং হার্ড কপির আবেদনগুলো যাচাই-বাছাই করতে উপজেলা পর্যায়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। অধিকাংশ কমিটি থেকে প্রতিবেদনও পাওয়া গেছে। এসব কমিটির যাচাই-বাছাই করে তালিকা চূড়ান্ত করে সবাইকে ভাতা কর্মসূচির আওতায় আনা হবে। মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক গবেষকরা বলছেন, ১০ বছরে প্রকৃত ও নির্ভুল তালিকা করতে চেষ্টা চালানো হচ্ছে। তবে অদক্ষতার কারণে প্রকৃত তালিকা এখন চূড়ান্ত করা সম্ভব হয়নি। বর্তমানে একজন মুক্তিযোদ্ধা মাসিক ১০ হাজার টাকা ভাতা পাচ্ছেন। এর বাইরে দুই ঈদে দুটি বোনাস পাচ্ছেন। প্রতিটি বোনাসের মূল্য এক মাসের ভাতার পরিমাণ। এছাড়া তারা বিজয় দিবস ভাতা পাচ্ছেন। বিজয় দিবস ভাতা চালুর জন্য একশ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। জানা গেছে, সামাজিক নিরাপত্তা বলয় কর্মসূচির আওতায় ২০০৯ সাল থেকে পর্যায়ক্রমে মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা মাসিক ৩০০ টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ১০ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। ১০ হাজার টাকা করে বছরে দুটি উৎসব ভাতা চালু করা হয়েছে। সুবিধাভোগী মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ৪২ হাজার থেকে বাড়িয়ে পৌনে দুই লাখের বেশি করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×