প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টমে উন্নীত হয়নি ৮ বছরেও

আলোর মুখ দেখেনি সচিব কমিটির প্রতিবেদন

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  মুসতাক আহমদ

আট বছরেও প্রাথমিক শিক্ষার স্তর পঞ্চম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণীতে উন্নীত করতে পারেনি সরকার। ২০১০ সালের জাতীয় শিক্ষানীতিতে তিন স্তরবিশিষ্ট শিক্ষাব্যবস্থা প্রবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তৎকালীন মহাজোট সরকার, যা ২০১৮ সালের মধ্যে বাস্তবায়নের কথা।

সে অনুযায়ী, প্রাথমিক শিক্ষার স্তর পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীতে উন্নীত করা হবে। মাধ্যমিক স্তর হবে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত। এর পরবর্তী স্তর উচ্চশিক্ষা। কিন্তু প্রাথমিক শিক্ষার স্তর অষ্টম শ্রেণীতে উন্নীত করা যায়নি গত আট বছরেও।

দেশে পঞ্চম শ্রেণীতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা চালু করা হয় ২০০৯ সালে। পরের বছর মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের জন্য চালু হয় ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা। একই বছর অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জন্য চালু হয় জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা।

ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণী বা নিু মাধ্যমিক স্তর রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে। অন্যদিকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত প্রাথমিক স্তর রয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে। প্রাথমিক শিক্ষার স্তর অষ্টম শ্রেণীতে উন্নীত করতে হলে ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণীর দায়িত্ব শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে হস্তান্তর করতে হবে। কিন্তু তা এখনও হয়নি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিদায়ী সরকারের দুই মন্ত্রীর মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্বের বলি হয়েছে শিক্ষানীতির এই গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত।

এ প্রসঙ্গে বিদায়ী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ গত ২৮ অক্টোবর সাংবাদিকদের বলেছিলেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রস্তুত হতে পারেনি। তবে একইদিন এ প্রসঙ্গে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান বলেছিলেন, আমরা প্রস্তুত নই- এটা সঠিক নয়। মন্ত্রণালয় প্রস্তুত আছে। মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত নিলেই আমরা কাজ শুরু করব।

দুই মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জাতীয় শিক্ষানীতি বাস্তবায়ন এবং অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষাব্যবস্থা পরিচালনার বিষয়ে ২০১৬ সালের ১৬ মে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে একটি সভা হয়। এতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন। সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছিল, মন্ত্রিসভার পর্যালোচনা ও সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তী সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত প্রাথমিক শিক্ষা পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত থাকবে।

পরে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানের উপস্থিতিতে আরেকটি সভায় জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণীতে উন্নীত করার সিদ্ধান্ত হয়।

শিক্ষাসংশ্লিষ্টরা বলছেন, পরের সিদ্ধান্তটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারকদের মনঃপূত হয়নি। যে কারণে তখন (২০১৬ সাল) তড়িঘড়ি করে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত কার্যক্রম শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যস্ত করা হয়। এতে বিপাকে পড়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার সঙ্গে তাদের ওপর দায়িত্ব আসে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা আয়োজনের। একসঙ্গে ৫৫ লাখ শিক্ষার্থীর পরীক্ষা আয়োজনের ‘বিপদ’ থেকে বাঁচতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ওই বছরের ২০ অক্টোবর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয়, যাতে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে অপারগতা প্রকাশ করা হয়।

এ ব্যাপারে তখন প্রাথমিক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুক্তি ছিল, প্রাথমিক শিক্ষার স্তর যথাযথ প্রক্রিয়ায় অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত উন্নীত হয়নি। অন্যদিকে তিন দিন পর ২৩ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানান, ঘোষণা দিয়েও প্রাথমিক শিক্ষা মন্ত্রণালয় জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার দায়িত্ব না নেয়ায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনেই এ পরীক্ষা হবে। কিন্তু এরপর সরকারের মেয়াদ পুরো দুই বছর থাকলেও প্রাথমিকের স্তর অষ্টমে উন্নীত হয়নি।

অবশ্য দুই মন্ত্রণালয়ের সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে পরবর্তীকালে প্রাথমিক স্তর অষ্টম শ্রেণীতে উন্নীত করার ব্যাপারে একটি কমিটি করা হয়েছিল। সেই কমিটি এ ক্ষেত্রে করণীয় বিভিন্ন দিক তুলে ধরে যার মধ্যে ছিল- প্রাথমিক মন্ত্রণালয়ের অধীন সম্ভাব্য অবকাঠামোগত পরিবর্তন, বিদ্যমান নিু মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষকদের ভাগ্য নির্ধারণ, ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষা অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক করার ক্ষেত্রে করণীয়সহ নানাদিক। কিন্তু সেই প্রতিবেদন ‘রহস্যজনক’ কারণে আলোর মুখ দেখেনি।

প্রাথমিক স্তর অষ্টমে উন্নীত করার ক্ষেত্রে সচিব পর্যায়ে কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম-আল-হোসেন। তিনি যুগান্তরকে বলেন, এ ব্যাপারে প্রথম কাজটি করতে হবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে। আমরা দায়িত্ব গ্রহণের ব্যাপারে প্রস্তুত আছি। কেননা ইতিমধ্যে ৭৫৪টি প্রাথমিক স্কুলে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত কার্যক্রম চালু করে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় কর্মপন্থা নির্ধারণের মতো পাইলটিং সম্পন্ন করা আছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নতুন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

তবে দায়িত্ব নেয়ার দিন প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নতুন ইশতেহার বাস্তবায়ন আমার প্রধান লক্ষ্য। এ ক্ষেত্রে শিক্ষানীতিসহ বিগত দশ বছরে দুই সরকারের কাজের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ ভবিষ্যৎ গতিশীল পথচলার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। দুই সরকার যে পর্যন্ত কাজ এগিয়ে রেখে গেছে, সেখান থেকে আরও সামনের দিকে নিয়ে যাওয়ার কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে।