ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে উদ্বেগ নিরসন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ১৬ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে উদ্বেগ নিরসন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বা অন্য যে সব আইন নিয়ে সাংবাদিকদের যে উদ্বেগ আছে তা নিরসন করা হবে।

এ লক্ষ্যে আমি দায়িত্ব নেয়ার প্রথম দিন থেকেই কাজ শুরু করেছি। চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে এক মতবিনিময় সভায় মঙ্গলবার একথা বলেন তিনি।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় এ সভায় বক্তব্য দেন নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ ও উত্তর জেলা সাধারণ সম্পাদক এমএ সালাম।

ভুঁইফোঁড় অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিয়ে প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘শুধু বাংলাদেশে নয়, সমগ্র পৃথিবীতে অনলাইন মিডিয়ার ব্যাপক বিস্তৃতি ঘটেছে। এই বিস্তৃতি বন্ধ করা ঠিক নয়।

কিন্তু এটা যাতে সঠিকভাবে ও নিয়মনীতির মধ্য দিয়ে হয় সেটা নিশ্চিত করাই আমাদের লক্ষ্য। অনেকে ঘরে বসে অনলাইন চালু করে দেন। অনলাইনের জন্য নীতিমালা হচ্ছে। রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা হচ্ছে।

নীতিমালার ভিত্তিতে অনলাইনের যখন রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা হবে, তখন ভুঁইফোঁড় অনলাইন বন্ধ হয়ে যাবে। এজন্য আমরা কাজ করছি। আমার পূর্বসূরি কাজটি অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে গেছেন। আমি সেই কাজে সফল হব ইনশাআল্লাহ।’

অনলাইন টেলিভিশন প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যখন অনেকগুলো টিভি ক্যামেরা সামনে আসে তখন বোঝা সম্ভব হয় না কোনটি অনলাইন টিভি আর কোনটি আসল টিভি।

যে কেউ একটা অনলাইন টেলিভিশন খুলে ফেলবে অনুমোদন ছাড়া- সেটা হতে পারে না। অনলাইন টেলিভিশন থাকবে। আইপি টিভি এখন বাস্তবতা। অনলাইন টেলিভিশনের অনুমোদন নেয়ার একটা ব্যবস্থা আমরা করব। এগুলোকে নীতিমালার মধ্যে আনার কার্যক্রম শুরু করেছি। তবে একটু সময় লাগবে। সাংবাদিকদের পরামর্শ লাগবে। আলোচনা করেই আমরা এটি করব।’

সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ড প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, যত দ্রুত সম্ভব নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করব। ২৮ তারিখ একটি সময়সীমা আছে। চেষ্টা করব এর মধ্যে করা যায় কিনা।

এটা করতে গেলে অনেকগুলো ধাপ অতিক্রম করতে হয়। যত দ্রুত সম্ভব এটা করা হবে। বর্তমান ওয়েজবোর্ডে টেলিভিশনের সাংবাদিকরা নেই। ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, সেখানে টেলিভিশন আসা দরকার।

পরবর্তীতে আমরা এ নিয়ে কাজ করব। ওয়েজবোর্ড শুধু ঘোষণা নয়, বাস্তবায়ন করা হচ্ছে কিনা সেটাও তদারক করা হবে। জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা ইতিমধ্যে তৈরি করা হয়েছে। সেটা এখন আইন মন্ত্রণালয়ে আছে। এটি নিয়ে কাজ হচ্ছে। এটিও হবে।’

এর আগে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশ টেলিভিশনের চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সম্প্রচার ৬ ঘণ্টা থেকে বাড়িয়ে ১২ ঘণ্টায় উন্নীত করা হবে। তবে তাতে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে। এছাড়া বাংলাদেশ টেলিভিশনের মতোই চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে পূর্ণাঙ্গ টেরেস্টেরিয়াল হিসেবে গড়ে তোলা হবে- যাতে সারা দেশের মানুষ এ কেন্দ্রের অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারেন।’

মন্ত্রী বলেন, ১০ বছর আগে আওয়ামী লীগ যখন ডিজিটাল বাংলাদেশ ও দিন বদলের কথা বলেছিল তখন অনেকেই হাস্যরস করেছিলেন। আজ দেশের মানুষ ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল ভোগ করছেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুধু স্বপ্ন দেখান না, তা বাস্তবায়নও করেন। গত নির্বাচনের আগে প্রধামন্ত্রী আরেকটি স্বপ্ন বাস্তবায়নের কথা বলেছেন। তা হল- প্রতিটি গ্রামে শহরের সুযোগ-সুবিধা পৌঁছে দেয়া। ইতিমধ্যে গ্রামে শহরের সুযোগ-সুবিধা পৌঁছে গেছে। গ্রামের আরও উন্নতি হবে।

রাঙ্গুনিয়ায় ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত : রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি জানান, তথ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার পর প্রথমবার ড. হাছান মাহমুদ গ্রামের বাড়ি রাঙ্গুনিয়ায় আসেন মঙ্গলবার। বিকাল ৪টায় রাঙ্গুনিয়ার প্রবেশমুখ পোমরা ইউনিয়নের তাপবিদ্যুৎ এলাকায় পৌঁছলে নেতাকর্মীরা তাকে ফুল দিয়ে বরণ করেন। পরে পথে পথেও তাকে শুভেচ্ছা জানান নেতাকর্মীরা।

এদিন রাঙ্গুনিয়ায় ২৫টি পথসভায় বক্তব্য দেন ড. হাছান মাহমুদ। সন্ধ্যা ৬টায় উপজেলা সদরের ইছাখালী চত্বরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের এত ভালোবাসা, আবেগ-উচ্ছ্বাসের প্রতিদান দেয়ার সামর্থ্য আমার নেই।

রাঙ্গুনিয়ার উন্নয়নে নতুন মাত্রা যোগ করতে সবার সহযোগিতা চাই।’ দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘মানুষের মন জয় করতে হলে বিনয়ী হতে হয়। ক্ষমতায় থাকলে বিনয়ী আচরণ করতে হয়। নেতাকর্মীদের আচার-আচরণে মানুষ যাতে বিরক্ত না হয়।’

এ সময় সেখানে ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আলী শাহ, উপজেলা আ’লীগ সভাপতি খলিলুর রহমান চৌধুরী, পৌরসভার মেয়র শাহজাহান সিকদার প্রমুখ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×