১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে চান ওবায়দুল কাদের

ঐক্যফ্রন্টে ভাঙনের সুর দেখা যাচ্ছে

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে চান ওবায়দুল কাদের

একাদশ জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির সঙ্গে ১৪ দলের শরিকদেরও বিরোধী দলে দেখতে চান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, তারা তো বিরোধী দলে থাকবেন বলে অনেকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আমার মনে হয়, তারা বিরোধী দলে থাকলে তাদের জন্য ভালো। আমাদের জন্যও ভালো।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের মহাসমাবেশের স্থান পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

১৪ দলের নেতারা বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করুক, আওয়ামী লীগ এমনটা চায় কি না- জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিরোধী দল বা বিরোধী কণ্ঠ যত কনস্ট্রাকটিভ (গঠনমূলক) হবে, পার্লামেন্টে থাকবে, ততই সরকারি দল কোনো ভুল করলে সেই ভুলটা সংশোধন করতে পারবে।

কারণ বিরোধী দল না থাকলে তো একতরফা কাজ চলবে। বিরোধী দল থাকলে বিরোধিতা থেকে সরকারের কিছু শিক্ষণীয় বিষয় থাকবে। সমালোচনা থেকে শুদ্ধ হতে পারবে। সমালোচনা তো মানুষকে শুদ্ধ করে।

সম্প্রতি ১৪ দলের অন্যতম শরিক বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ‘বিরোধী দলে গেলে ঐক্য থাকবে না, তারা সরকারেই থাকবেন’- মেননের এমন মন্তব্যের বিষয়ে ওবয়াদূল কাদের বলেন, রাজনৈতিক জোটের প্রশ্ন যখন আসে, তখন তো আমরা একসঙ্গেই আছি। আমাদের জোট তো আমরা ভাঙিনি। এগুলো নিয়ে তাদের সঙ্গে আমাদের আলাপ-আলোচনা হচ্ছে। আরও আলোচনা হবে। তিনি বলেন, ১৪ দলীয় ঐক্যজোট একটি রাজনৈতিক জোট। নির্বাচনী জোট আর রাজনৈতিক জোট, এটা ভিন্ন জিনিস। ১৪ দলের সঙ্গে আমাদের যে সম্পর্ক, সেটা হচ্ছে রাজনৈতিক জোটের সম্পর্ক। মহাজোট নামের যে বৃহত্তর জোট, সেটা কিন্তু নির্বাচনী ঐক্যজোট। যেহেতু ১৪ দলের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক রাজনৈতিক জোটের, কাজেই তাদের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক থাকবেই।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, এটা মনে রাখা জরুরি- মহাজোট কিংবা ১৪ দলে কোনো প্রকার টানাপোড়েন নেই। আমাদের মধ্যে কোনো ব্যাপারে যদি ভুল বোঝাবুঝি থাকে, সেটা আমরা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করব। বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের সমালোচনা করে সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপির আসলে এখন লেজে-গোবরে অবস্থা। তাদের ঐক্যফ্রন্টে এখন ভাঙনের সুর দেখা যাচ্ছে। তাদের দেখে ভয় হয়। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ফখরুল সাহেবের সাম্প্রতিক আচার-আচরণ দেখে তাকে ভয়ংকর ড্রাইভার মনে হচ্ছে এবং বিএনপি নেতাকর্মীদের কথাবার্তাতেও একই সুরের ছোঁয়া পাওয়া যাচ্ছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা খুব ধৈর্যের সঙ্গে বিষয়টি দেখছি। আমরা অতি সহিষ্ণুতার সঙ্গে বিষয়টি দেখছি। কেননা তাদের হেরে যাওয়ার একটি বেদনা আছে, কষ্ট আছে। সেই কষ্ট থেকেই তারা বেপরোয়া হতে পারেন। কিন্তু আমরা সরকারি দল। আমরা দেশ চালাচ্ছি, আমাদের একটি দায়িত্ব আছে। বিশাল একটা বিজয়ের সঙ্গে বিশাল একটা দায়িত্ব আমাদের আছে। সেই দায়িত্ববোধ থেকেই আমাদের নেত্রী শনিবার জনগণ ও নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে- আমাদের দায়িত্ববোধের কথা স্মরণ করিয়ে দেবেন।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, আইনবিষয়ক সম্পাদক এবং গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক আবদুস সবুর, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক ও পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, দলের উপদফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এসএম কামাল হোসেন প্রমুখ।

এর আগে কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে মহাসমাবেশের মঞ্চ ঘুরে দেখেন ওবায়দুল কাদের। পরে মঞ্চের পাশেই স্বেচ্ছাসেবক লীগের বিশেষ প্রস্তুতি সভায় যোগ দেন তিনি। স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট মোল্লা আবু কাওসারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ দেবনাথের সঞ্চালনায় এতে সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ওবায়দুল কাদের বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমরা বড় বিজয় পেয়েছি। এই বিজয়টা যেমন বড়, তেমনি চ্যালেঞ্জটাও বড়। আবার এই বিজয়ের শত্রুও ভয়ংকর। তারা ওতপেতে আছে সুযোগ পেলেই আঘাত করবে। কাজেই আমাদের উৎফুল্ল না হয়ে সতর্ক থাকতে হবে। কারণ যারা পরাজিত হয়েছে, তারা ক্ষ্যাপা বাঘের মতো হয়ে আছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×