জুনের মধ্যে শতভাগ বিদ্যুৎ: সাত দিনে আবাসিক ২৮ দিনে শিল্পে

প্রতি মাসে ৩ লাখের বেশি বিদ্যুৎ সংযোগ দিচ্ছে আরইবি

  যুগান্তর রিপোর্ট ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জুনের মধ্যে শতভাগ বিদ্যুৎ
জুনের মধ্যে শতভাগ বিদ্যুৎ। ছবি: সংগৃহীত

চলতি বছরের জুনের মধ্যে সারা দেশকে শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় নিয়ে আসার টার্গেট ঘোষণা করেছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি)।

সংস্থাটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মঈন উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন, প্রতি মাসে গড়ে ৩ লাখের বেশি গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হচ্ছে। রিকশা-ভ্যানে করে পাঁচ মিনিটে বিদ্যুৎ সংযোগ কার্যক্রম শুরু করেছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিগুলো। সারা দেশের ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিকে এমন কার্যক্রম শুরুর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এদিকে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আবেদনের সাত দিনের মধ্যে আবাসিক গ্রাহককে ও সর্বোচ্চ ২৮ দিনের মধ্যে শিল্প-কারখানায় হাইভোল্টেজের বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হবে। এর ব্যত্যয় যাতে না হয়, তা নিয়মিত মনিটরিং করা হবে। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিদ্যুৎ বিভাগ ২৪ ডিসেম্বর এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বিদ্যুৎ সচিব আহমদ কায়কাউসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, আবেদন করার সাত দিনের মধ্যে আবাসিক গ্রাহককে বিদ্যুতের সংযোগ দিতে হবে। সিটি কর্পোরেশন এলাকায় আবেদনের সঙ্গে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) ‘আবাস সনদ’ না পেলেও তাকে সংযোগ দিতে হবে। এ ছাড়া হাইভোল্টেজের বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার ক্ষেত্রে শর্তগুলো সহজ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বৈঠকে থেকে সেবা সহজ করতে বিদ্যুৎ সংক্রান্ত তথ্য গ্রাহকের মুঠোফোনে খুদে বার্তায় (এসএমএস) পাঠানো ও ইমেইলে মাসিক বিল পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এতে সহজে বিলের তথ্য জেনে যাবেন গ্রাহক। প্রাথমিকভাবে রাজধানীর দুই বিতরণী সংস্থা ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেড (ডেসকো) ও ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ডিপিডিসি) এ পদ্ধতিতে বিলের তথ্য দেবে।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, শীতকালে যেসব বাণিজ্যিক গ্রাহক বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার করবেন, তাদের বিশেষ প্রণোদনা দেয়ার কথাও ভাবছে সরকার। সারা দেশে চাহিদা কমে যাওয়ার কারণে শীত মৌসুমে বিদ্যুতের গড় উৎপাদন ৬ হাজার মেগাওয়াটের নিচে নেমে আসে। ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও এ সময় বিপুল পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায় না। ফলে অনেক কেন্দ্র বন্ধ রাখতে হয়।

অথচ উৎপাদন না করলেও বন্ধ থাকা ওই বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোকে ক্যাপাসিটি চার্জ বা কেন্দ্র ভাড়া দিতে হয়। কেন্দ্র ভাড়া বাবদ এই লোকসান কমিয়ে আনতে শীতকালে বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহারের উপায় খোঁজা হচ্ছে। বর্তমানে দেশে বিদ্যুতের স্থাপিত উৎপাদন ক্ষমতা ১৭ হাজার ৬৮৫ মেগাওয়াট।

বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, শিল্প খাতের হাইভোল্টেজের বিদ্যুতের দাম সমন্বয় করা যায় কিনা, সে জন্য ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থাগুলো আলোচনা করবে।

বিদ্যুৎ সচিব আহমদ কায়কাউস এ বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘মানুষ যাতে সহজে সেবা পেতে পারেন, সেজন্য বিতরণ সংস্থাগুলোকে আমরা বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছি। সেবা সংস্থাগুলোতে গিয়ে মানুষ যেন হয়রানিতে না পড়েন এবং এসব নির্দেশনা তারা পালন করছেন কিনা, তা আমরা তদারক করব।’

আরইবি সূত্রে জানা যায়, ২৪ ডিসেম্বর থেকে ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলা পল্লী বিদ্যুতের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) শেখ আবদুর রহমান ‘আলোর ফেরিওয়ালা’ নামে বাড়ি বাড়ি গিয়ে মাত্র পাঁচ মিনিটের মধ্যে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার কার্যক্রম শুরু করেন।

রিকশাভ্যানে মিটার, বিদ্যুতের তারসহ অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার এ কার্যক্রম ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়। এ অবস্থায় এটিকে মডেল হিসেবে নিয়ে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারা দেশের ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিকে এমন কার্যক্রম শুরুর নির্দেশ দেন। নির্দেশ পেয়ে রিকশাভ্যানে করে পাঁচ মিনিটে বিদ্যুৎ সংযোগ কার্যক্রম শুরু করেছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিগুলো।

৮ জানুয়ারি বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তাদের আলোর ফেরিওয়ালা কার্যক্রমটি সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×