বড়পুকুরিয়া দুর্নীতি মামলা

আদালতে আসতে অনিচ্ছুক খালেদা জিয়া : কারা কর্তৃপক্ষ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৪ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খালেদা জিয়া

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়া আদালতে আসতে অনিচ্ছুক বলে আদালতকে জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ।

তবে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা জানিয়েছেন, গুরুতর অসুস্থতার কারণেই খালেদা জিয়া আদালতে আসতে পারেননি।

খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে বুধবার এ মামলায় চার্জ শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। শুনানিতে খালেদা জিয়াকে হাজির করতে না পারায় আদালতে তার কাস্টডি পাঠানো হয়।

সিনিয়র জেল সুপার ইকবাল কবীর স্বাক্ষরিত কাস্টডিতে বলা হয়, সংশ্লিষ্ট বন্দি (খালেদা জিয়া) আদালতে আসতে অনিচ্ছুক। শুনানি শেষে রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত-২-এর বিচারক এইচএম রুহুল ইমরান পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ৯ এপ্রিল দিন ধার্য করেন।

এদিন বেলা ১১টা ১৫ মিনিটের দিকে আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়। শুরুতেই দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল আদালতের প্রতি চার্জ শুনানি শুরুর আবেদন জানান।

এ সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার আদালতকে বলেন, আমরা মামলার এজাহার, চার্জশিটসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ কাগজের জন্য আবেদন করেছি। এর মধ্যে কিছু কাগজপত্র আমরা পেয়েছি। তবে যেসব কাগজপত্র আমরা পেয়েছি, তা চার্জ শুনানির জন্য যথেষ্ট নয়। শুনানির জন্য সংশ্লিষ্ট আরও কিছু কাগজপত্র আমাদের প্রয়োজন। এ পরিপ্রেক্ষিতে মোশাররফ হোসেন কাজল আদালতকে বলেন, তাদের (আসামিপক্ষ) যেসব কাগজপত্র প্রয়োজন তা তারা নিয়েছেন।

এরপর মাসুদ তালুকদার বলেন, সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হক (আসামি) সিঙ্গাপুরে আছেন। সেখানে তার চিকিৎসা চলছে। সে জন্য তিনি আদালতে হাজির হতে পারেননি। এ জন্য সময় প্রয়োজন। এ সময় বিচারক আসামিপক্ষের এ আইনজীবীর উদ্দেশে বলেন, চিকিৎসা সংক্রান্ত কোনো কাগজপত্র আদালতে দাখিল করা হয়নি।

জবাবে মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, তার সঙ্গে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি। তিনি আজই (বুধবার) এ বিষয়টি জানিয়েছেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আসামিপক্ষের সময় আবেদন মঞ্জুর করে আদালত পরবর্তী শুনানির জন্য ওই দিন ধার্য করেন। আদালতের কার্যক্রম শেষে মাসুদ আহমেদ তালুকদার সাংবাদিকদের বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা ভালো না। তিনি গুরুতর অসুস্থ। এ কারণে কারা কর্তৃপক্ষ তাকে আজ (বুধবার) আদালতে উপস্থিত করতে পারেননি।

আদালত সূত্র জানায়, কনসোর্টিয়াম অব চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইম্পোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশনের (সিএমসি) সঙ্গে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির উৎপাদন, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণ চুক্তির মধ্য দিয়ে সরকারের প্রায় ১৫৮ কোটি ৭১ লাখ টাকার ক্ষতি হয়। এ অভিযোগে ২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মো. সামছুল আলম রাজধানীর শাহবাগ থানায় মামলাটি করেন।

মামলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া, সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান (মৃত), সাবেক স্থানীয় সরকার ও সমবায়মন্ত্রী আবদুল মান্নান ভূঁইয়া (মৃত), সাবেক শিল্পমন্ত্রী মতিউর রহমান নিজামী (যুদ্ধাপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত) ও সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী আলী আহসান মো. মুজাহিদসহ (যুদ্ধাপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত) ১৬ জনকে আসামি করা হয়। তদন্ত শেষে ওই বছরের ৫ অক্টোবর দুদকের উপ-পরিচালক মো. আবুল কাসেম আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ১৬ জন আসামির মধ্যে ৬ আসামি মারা গেছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : কারাগারে খালেদা জিয়া

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: jugan[email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×