নিউজিল্যান্ডের অস্ত্র আইন সংস্কার হচ্ছে

  যুগান্তর ডেস্ক ১৯ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিউজিল্যান্ডের অস্ত্র আইন সংস্কার হচ্ছে
ছবি-বিবিসি

নিউজিল্যান্ডের মন্ত্রিসভা অস্ত্র আইনে ‘নীতিগত’ পরিবর্তন আনতে সম্মত হয়েছে। সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে দেশটির অস্ত্র আইনে পরিবর্তন আনাসহ জঙ্গি নজরদারির তালিকা এবং জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়।

ওই বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরদার্ন সাংবাদিকদের এ কথা নিশ্চিত করেছেন। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে ভয়াবহ হামলার পর বন্দুক আইন কঠোর করছে দেশটি। এদিকে হামলার তিন মাস আগে ঘাতক ব্রেনটন টেরেন্ট অনলাইনে চারটি আগ্নেয়াস্ত্র কিনেছিল বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট দোকানের মালিক।

তবে হত্যাকাণ্ডের দায় নিতে অস্বীকার করেছেন তিনি। আদালতের শুনানিতে কোনো আইনজীবী নেবে না ব্রেনটন। নিজেই নিজের পক্ষে ওকালতি করবে বলে জানিয়েছে সে। নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলার পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ২২ মার্চ জরুরি বৈঠকে বসবে মুসলিম দেশগুলোর সংস্থা ওআইসি। খবর বিবিসি ও এএফপির।

শুক্রবার ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে ভিডিও গেমের মতো করে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা চালায় শ্বেতাঙ্গ খ্রিস্টান সন্ত্রাসী ব্রেনটন। হামলার ঘটনা ফেসবুকে সরাসরি সম্প্রচার করে সে। এতে নামাজরত অবস্থায় নিহত হন ৫০ মুসল্লি। গুরুতর আহত হন আরও ৫০ জন। হামলায় ব্রেনটন বৈধ অস্ত্র ব্যবহার করেছিল বলে জানান নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরদার্ন। তাই গুলি কিনতে তাকে সমস্যায় পড়তে হয়নি। শিগগির দেশটির অস্ত্র আইনে পরিবর্তন আনা হবে বলেও জানান তিনি।

সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে বারদার্ন বলেন, ‘আগামী ২৫ মার্চের মধ্যেই এ সংস্কারের বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে। আমরা আমাদের অস্ত্র আইন পরিবর্তন আনতে সক্ষম হব, যা আমাদের জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে বলে আমার বিশ্বাস।’

নিউজিল্যান্ডে প্রায় ১৫ লাখ ব্যক্তি মালিকানাধীন আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। অস্ত্রের মালিকানা পাওয়ার আইনত বৈধ বয়স ১৬। সামরিক ধাঁচের সেমি-অটোমেটিক বন্দুকের মালিকানার জন্য বৈধ বয়স ১৮। সব অস্ত্রের মালিকের লাইসেন্স প্রয়োজন হলেও প্রতিটি অস্ত্রই যে নিবন্ধনকৃত হতে হবে, এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই ব্যক্তির অতীত কার্যকলাপ এবং স্বাস্থ্য যাচাই করতে হবে।

একবার লাইসেন্স পাওয়ার পর অস্ত্রের মালিক যতগুলো ইচ্ছা ততগুলো অস্ত্র কিনতে পারেন। ব্রেনটন তিন মাসের ব্যবধানে একটি অস্ত্রের দোকান থেকে অনলাইনে চারটি অস্ত্র কিনেছিল। ক্রাইস্টচার্চ শহরের ‘গান সিটি’ নামে দোকানের স্বত্বাধিকারী ডেভিড টিপল জানান, ‘ব্রেনটন ২০১৭ সালের ডিসেম্বর ও ২০১৮ সালের মার্চে অনলাইনে চারটি আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি-বারুদ কিনেছিল।’ সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন ডেভিড।

তিনি বলেন, তবে ওইদিন ঘটনার সময় যে আধা স্বয়ংক্রিয় (সেমি-অটোমেটিক) অস্ত্রটি ব্যবহার করা হয়েছে বলে বলা হচ্ছে, সেটি তার দোকান থেকে কেনা হয়নি। ব্রেনটনের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ এনে শনিবার তাকে আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় তাকে অনুতপ্ত মনে হয়নি। বরং গণমাধ্যম কর্মীদের প্রতি তাকিয়ে হাসছিল সে। এদিন তার আইনজীবী হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করেন আইনজীবী রিচার্ড পিটার্স। এরপর নিজের আইনজীবীকে বাদ দিয়েছে সে এবং ৫ এপ্রিল পরবর্তী হাজিরার দিন আদালতে নিজেই নিজের পক্ষ হয়ে কথা বলার পরিকল্পনা করেছে। আদালত নিযুক্ত তার আইনজীবী পিটার্স সোমবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘ব্রেনটনের শারীরিক ও মানসিক অবস্থা ভালো মনে হয়েছে এবং সে নিজেই নিজের প্রতিনিধিত্ব করবে আদালতে।’

২২ মার্চ বৈঠকে বসবে ওআইসি : নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ হামলা ও এর পরিপ্রেক্ষিতে করণীয় নিয়ে আলোচনা করতে জরুরি বৈঠক ডেকেছে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর সংস্থা ওআইসি। আগামী ২২ মার্চ এ বৈঠক হবে জানিয়েছেন সংস্থার কর্মকর্তারা।

ইরানের আহ্বানে সংস্থাভুক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরে এ বৈঠকে মিলিত হবেন। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি রোববার এ কথা জানিয়েছেন। কোরেশি বলেন, সাম্প্রতিক হত্যাকাণ্ড নিয়ে তিনি নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন এবং সন্ত্রাসবাদের কোনো ধর্ম ও সীমানা নেই বলে উল্লেখ করেছেন। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, নিউজিল্যান্ডের হত্যাকাণ্ডে পাকিস্তানের নয় নাগরিক নিহত হয়েছেন। খবর আনাদোলু এজেন্সির।

খবরে বলা হয়েছে, রোববার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ঐক্যবদ্ধভাবে ইসলামভীতি ছড়ানোর রাশ টেনে ধরার কৌশল নিয়ে আসন্ন বৈঠকে আলোচনা করা হবে।’ তিনি জানান, তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগ্লুর সঙ্গে আলাপের পর ওআইসির বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, নিউজিল্যান্ডের ঘটনাসহ অস্ট্রেলিয়ার সিনেটরের বিদ্বেষী বক্তব্য ও লন্ডনের ঘটনায় বিক্ষিপ্তভাবে নানা ধরনের বক্তব্য দেয়া হচ্ছে।

কিন্তু যদি পুরো ওআইসি এবং মুসলিম উম্মাহ এক সুরে কথা বলে তাহলে তার গুরুত্ব অনেক বেশি হবে।

ঘটনাপ্রবাহ : নিউজিল্যান্ডে মসজিদে এলোপাতাড়ি গুলি

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×