নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলায় নিহতদের দাফন শুরু

বর্ণবাদের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক লড়াইয়ের ডাক নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রীর * হিজাব পরে হামলার প্রতিবাদ জানাবে নিউজিল্যান্ডের নারীরা * শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের রেডিও-টেলিভিশনে একযোগে জুমার আজান * ২ মিনিটের নীরবতা পালন করবে নিউজিল্যান্ড

  যুগান্তর ডেস্ক ২১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলায় নিহতদের দাফন শুরু
নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলায় নিহতদের দাফন শুরু। ফাইল ছবি

শোক-শ্রদ্ধা আর কান্নার থমথমে পরিবেশের মধ্যেই শুরু হল নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলায় নিহতদের দাফন। দেশটির ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পাঁচ দিন পর বুধবার নিহত স্বজনদের কবরে শুইয়ে দেয় দুঃখভারাক্রান্ত পরিবারগুলো।

সকালে জানাজা শেষে ক্রাইস্টচার্চের কবরস্থান ‘মেমোরিয়াল পার্ক সিমেটারি’তে অন্তত পাঁচজনকে সমাহিত করা হয়। সর্বপ্রথম সমাহিত করা হয় ১৫ বছর বয়সী সিরীয় শরণার্থী কিশোর হামজা মুস্তাফা ও তার বাবা খালেদ মুস্তাফাকে (৪৪)।

এদিকে সন্ত্রাসী হামলার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে নিউজিল্যান্ড। শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদী সন্ত্রাসকে আন্তর্জাতিক হুমকি অভিহিত করে এর বিরুদ্ধে বৈশ্বিক লড়াইয়ের ডাক দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরদার্ন।

নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর অংশ হিসেবে আগামীকাল শুক্রবার দুই মিনিটের নীরবতা পালন ও একই দিন দেশটির সরকারি বেতার ও টেলিভিশনে একযোগে জুমার নামাজের আজান সরাসরি সম্প্রচার করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। খবর এএফপি, আলজাজিরা ও রয়টার্সের।

১৫ মার্চ শুক্রবার রীতিমতো ঘোষণা দিয়ে ক্রাইস্টচার্চের দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা চালায় উগ্র মুসলিমবিদ্বেষী শ্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসী অস্ট্রেলীয় নাগরিক বেনটন টেরেন্ট। এতে নিহত হন ৫০ মুসল্লি। গুরুতর আহত হন আরও ৫০ জন।

নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তথ্যমতে, এখন পর্যন্ত ৩০ জনের লাশ শনাক্ত করা হয়েছে এবং ময়নাতদন্ত শেষে দাফনের জন্য সংশ্লিষ্ট পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম পর্বে বুধবার পাঁচজনের দাফন হয়েছে। বাকিদেরও শিগগিরই দাফন করা হবে।

এদিন সকালে ক্রাইস্টচার্চ মেমোরিয়াল পার্ক কবরস্থানে মুস্তাফা ও তার ছেলে হামজার দাফন সম্পন্ন হয়। এর আগে জানাজা ও দাফনের জন্য সাদা কাফনে জড়িয়ে তাদের মরদেহ নিয়ে আসা হয়। জানাজায় অংশ নেন কয়েকশ’ মানুষ।

হুইল চেয়ারে ভর করে বাবা ও ভাইয়ের জানাজায় হাজির হয় হামজার ছোট ভাই ১৩ বছরের জাইদ। শুক্রবারের হামলায় পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয় সে। এরপর সমাহিত করা হয় ৩৬ বছর বয়সী জুনাইদ ইসমাইল ও ৫৮ বছর বয়সী আশরাফ আলিকে। তবে পঞ্চমজনের নাম জানানো হয়নি।

এদিন কবরস্থান এলাকায় ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়। মোতায়েন করা হয় রাইফেল-রিভলভার সজ্জিত পুলিশ। দাফনের সময় সেখানে কয়েকশ’ লোক উপস্থিত ছিলেন। টুপি পরা পুরুষদের পাশাপাশি সালোয়ার, কামিজ ও হিজাব পরা অনেক নারীও ছিলেন।

লাশ কবরে নামানোর সময় তারা হাতে মাটি নিয়ে কবরের ওপর ছিটিয়ে দিচ্ছিলেন। এই শেষকৃত্যে যোগ দেয়ার জন্য অকল্যান্ড থেকে ক্রাইস্টচার্চে আসা গুলশাদ আলি বলেন, ‘লাশ কবরে শুইয়ে রাখা হচ্ছে, আমরা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছি, খুব কষ্ট হচ্ছে।’

হামলায় নিহতদের স্মরণে নিউজিল্যান্ডে দুই মিনিটের নীরবতা পালন করা হবে আগামী শুক্রবার। শ্রদ্ধা জানানোর অংশ হিসেবে এদিন দেশটির সরকারি বেতার ও টেলিভিশনে জুমার নামাজের আজানও সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। বুধবার ক্রাইস্টচার্চের একটি স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরদার্ন এ ঘোষণা দেন।

নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড বলছে, স্বাভাবিকভাবে যে কোনো প্রাণঘাতী নৃশংসতার পর এক মিনিটের নীরবতা পালনের রেওয়াজ থাকলেও ক্রাইস্টচার্চ হামলার ভয়াবহতার কারণে এবার দুই মিনিটের নীরবতা পালন করা হবে। এর আগে ২০১০ সালে পাইক রিভার বিস্ফোরণে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সর্বশেষ দুই মিনিটের নীরবতা পালন করে নিউজিল্যান্ড।

হামলার এদিন প্রথমবারের মতো বিবিসিকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন জাসিন্দা। সাক্ষাৎকারে বর্ণবিদ্বেষী ডানপন্থী মতাদর্শের শেকড় উপড়ে ফেলতে বৈশ্বিক লড়াইয়ের আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, অভিবাসন বৃদ্ধি জাতিগত বিদ্বেষে ইন্ধন জোগাচ্ছে- এমন ধারণাকে প্রত্যাখ্যান করছেন তিনি।

স্মরণকালের ইতিহাসের বর্বরোচিত এ হামলায় নিউজিল্যান্ডজুড়ে হিজাব পরে প্রতিবাদ জানানো হবে। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে নারীরা হিজাব পরে মুসলিমদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করবে। ‘সম্প্রীতির জন্য হিজাব’ নামে এই কর্মসূচিটি আগামী ২২ মার্চ শুক্রবার পালন করা হবে।

দীর্ঘদিন ধরে মুসলিমদের সঙ্গে কাজ করা থায়া আশমান নামের এক নারী অভিনব এ আয়োজনের উদ্যোক্তা। আশমান বলেন, আমি এক আতঙ্কিত নারীর কথা শুনেছি, যিনি হিজাব পরে বের হতে ভয় পাচ্ছেন।

কারণ হিজাব পরার কারণে সন্ত্রাসীরা তাকে লক্ষ্য করে হামলা চালাতে পারে। আমি বলতে চাই, ‘আমরা আপনার সঙ্গে আছি, আমরা চাই আপনি ঘরের মতো রাস্তাতেও যেন নিরাপদ বোধ করেন, আমরা আপনাকে ভালোবাসি, সমর্থন ও শ্রদ্ধা করি।’

ঘটনাপ্রবাহ : নিউজিল্যান্ডে মসজিদে এলোপাতাড়ি গুলি

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×