নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি

  যুগান্তর ডেস্ক ২৩ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি
নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরদার্নকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। টুইটারে ‘ইউ আর নেক্সট’ (এরপর আপনি) লেখা ক্যাপশনসহ একটি বন্দুকের ছবি পাঠিয়ে হুমকি দেয়া হয়েছে জাসিন্দাকে। এ ঘটনা খতিয়ে দেখছে দেশটির পুলিশ। শুক্রবার নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডের প্রতিবেদনে বলা হয়, সামাজিক মাধ্যমে বেশ কয়েকজন ওই পোস্টের বিরুদ্ধে রিপোর্ট করলে প্রায় ৪৮ ঘণ্টা পর টুইটার কর্তৃপক্ষ অ্যাকাউন্টটি বন্ধ করে দেয়। ক্রাইস্টচার্চের দুই মসজিদে হামলার এক সপ্তাহের মাথায় জাসিন্দাকে হত্যার এ হুমকি দেয়া হল।

ওই অ্যাকাউন্ট থেকে অন্য একটি পোস্টে প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা ও নিউজিল্যান্ড পুলিশকে উদ্দেশ করে একই ধরনের ছবি পোস্ট করে লেখা হয়, ‘পরবর্তীতে আপনি।’ বন্ধ করে দেয়া টুইটার অ্যাকাউন্টে মুসলিমবিরোধী বিভিন্ন বিষয় ছিল এবং সেখানে হোয়াইট সুপ্রিমেসি বা শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যের পক্ষ নিয়ে বিভিন্ন ঘৃণামূলক বিবৃতিও ছিল। এক বিবৃতিতে পুলিশের মুখপাত্র বলেন, টুইটারে যে মন্তব্য করা হয়েছে সে বিষয়ে সতর্ক রয়েছে পুলিশ। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

গত ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে হামলার ঘটনার পর মুসলিম সম্প্রদায়ের পাশে দাঁড়িয়েছেন জাসিন্দা। ঠিক এক সপ্তাহ পর শুক্রবার ক্রাইস্টচার্চের আল নূর মসজিদের পাশে হ্যাগলি পার্কে জুমার নামাজ আদায় করেন হাজার হাজার মুসলমান। খুতবার সময় উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা। এ সময় ৩০ সেকেন্ডের ভাষণে শান্তির ও ঐক্যের বার্তা শোনালেন তিনি। জাসিন্দা বলেন, ‘তোমাদের সঙ্গে আজ পুরো নিউজিল্যান্ড কাঁদছে। আমরা সবাই আজ এক।’ ঠিক এ সময়ই ১টা ৪৮ মিনিটের দিকে জাসিন্দাকে হত্যার হুমকির খবর সামনে আসে।

টুইটারের এক মুখপাত্র বলেন, ‘ওই ট্ইুট সম্পর্কে প্রথম রিপোর্ট পাওয়ার পরপরই আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করি। ক্রাইস্টচার্চে হামলা নিয়ে সব ধরনের নৃশংস ও অবৈধ পোস্ট টুইটার থেকে মুছে দিতে আমাদের কর্মীরা অত্যন্ত সক্রিয়ভাবে কাজ করছে। আমরা টুইটার ব্যবহারকারীদের এ ধরনের কিছু চোখে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে রিপোর্ট করার আহ্বান জানাচ্ছি, যাতে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারি। আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সব ধরনের তদন্ত কাজেও সহায়তা করছি।’

তবে সামাজিক মাধ্যম টুইটার ব্যবহার করে এ ধরনের পোস্ট করায় টুইটারের সমালোচনা করা হচ্ছে। অনেকেই বলছেন, এ ধরনের বর্ণবাদী এবং সহিংস বার্তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না টুইটার। এর আগে ক্রাইস্টচার্চে হামলার ঘটনা লাইভ করেছিল ২৮ বছর বয়সী হামলাকারী ব্রেনটন টেরেন্ট। ভয়াবহ ওই হামলার ঘটনা ফেসবুকে প্রায় ১৭ মিনিট লাইভ করা হয়। এ কারণেও ফেসবুকের বিরুদ্ধে সমালোচনা হয়েছে। ফেসবুকের দাবি, দুশ’ জনেরও কম মানুষ ওই লাইভ দেখতে সক্ষম হয়েছেন। আর লাইভের প্রায় ১২ মিনিট পর্যন্ত এর বিরুদ্ধে কেউ রিপোর্টও করেনি। পরে অবশ্য ফেসবুক ওই লাইভটি সরিয়ে নিয়েছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×