ক্রাইস্টচার্চ হামলা

ছেলেকে দাফনের পর হার্টঅ্যাটাকে মায়ের মৃত্যু

  যুগান্তর ডেস্ক ২৪ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মৃত্যু

ছেলের লাশ দাফনের পর হার্টঅ্যাটাকে মারা গেছেন মা। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন ফিলিস্তিনি কামেল দারবিশ (৩৮)। শনিবার তার দাফন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন মা সাউদ আবদেল ফাত্তাহ মহসিন আদওয়ান (৬৫)। সন্তান হারানোর পর অন্য মায়েদের মতোই তার হৃদয়ে ক্ষরণ হচ্ছিল। অবশেষে তিনি হার্টঅ্যাটাকে মারা গেলেন। শুক্রবার কামেলের মা জর্ডান থেকে নিউজিল্যান্ড যান।

নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড জানায়, নিহত কামেল দারবিশ একটি ডেইরি ফার্মে কাজ করতেন। তার তিনটি সন্তান রয়েছে। বড় ভাইয়ের সঙ্গে যোগ দিতে তিনি গত বছর জর্ডান থেকে নিউজিল্যান্ডে পাড়ি জমান। তার সঙ্গে থাকার জন্য ভিসা আবেদন করেছিলেন স্ত্রী ও সন্তানরা। গত ১৫ মার্চ শুক্রবার অন্য মুসলিমদের সঙ্গে তিনিও গিয়েছিলেন আল নূর মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে। হঠাৎই সেখানে সন্ত্রাসী হামলা চালায় ব্রেনটন টেরেন্ট। তার গুলিতে ঝাঁঝরা হয়ে নিহত হন ৫০ জন মুসলিম।

নিউজিল্যান্ডে অবস্থানরত কামেলের বড় ভাই ছোট ভাইকে দাফন করার পর এখন মায়ের মৃতদেহ জর্ডানে নিয়ে যাওয়ার আয়োজন করছেন। ক্রাইস্টচার্চের হামলার পর আরও দু’চারজন আত্মীয় হার্টঅ্যাটাকের শিকারে পরিণত হয়েছেন।

আল নূর মসজিদে গুলিতে মারাত্মক আহত হন বাংলাদেশের সাজেদা আখতার। এ খবরে বাংলাদেশে হার্টঅ্যাটাকে আক্রান্ত হন তার মা। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সৌদি আরবের নাগরিক মোহসিন আল হারবিও (৬১) হামলা থেকে রক্ষা পেয়েছেন। তার স্ত্রী মানাল এতে ভীষণ ভেঙে পড়েন। তাকে খুঁজতে গিয়ে তিনি হার্টঅ্যাটাকে আক্রান্ত হন। তাকেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×