আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কর্মীদের ফখরুল

খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই এ রায়

চেয়ারপারসনকে নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন : রিজভী * মুক্তি দাবি ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠকদের

  যুগান্তর রিপোর্ট ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির মামলায় সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, ‘এ রায় অবৈধ, বেআইনি ও আইনের লঙ্ঘন। যে ধারায় খালেদা জিয়াকে দণ্ড দেয়া হয়েছে, সেটা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ধারা নয়।’

শুক্রবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে মামলার রায় নিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কর্মীদের ব্রিফিং অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ব্রিফিংয়ে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ের আইনি দিক ও সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির সিনিয়র নেতারা।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কারাগারে খালেদা জিয়াকে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেয়া উচিত মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, এ রায়ের বিরুদ্ধে তারা উচ্চ আদালতে আপিল করবেন। সরকার বাধা না দিলে আমাদের চেয়ারপারসন প্রচলিত আইনেই বেরিয়ে আসবেন। রায়কে ঘিরে সারা দেশে বিএনপির তিন হাজার নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছে জানিয়ে সবার মুক্তি দাবি করেন তিনি।

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘দুর্নীতির সঙ্গে খালেদা জিয়ার কোনো সংযোগ নেই।’ তারেক রহমানকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করার বিষয়ে বিএনপি নেতারা বলেন, ‘দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ীই তাকে এ দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তার ও স্থায়ী কমিটির নেতৃত্বেই চলবে দল।’

ব্রিফিংয়ে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি, ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি, মার্কিন বার্তা সংস্থা এপি, চীনের সিনহুয়া, জার্মান গণমাধ্যম ডয়চে ভেলে, ভারতীয় গণমাধ্যম জি মিডিয়া, কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরা, মার্কিন গণমাধ্যম ভয়েস অব আমেরিকা ও পাকিস্তানি গণমাধ্যম জিও নিউজের বাংলাদেশ প্রতিনিধিরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপি নেতাদের মধ্যে স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নওশাদ জামিল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘চেয়ারপারসনকে নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। জানতে চাই, আমাদের চেয়ারপারসন কেমন আছেন। প্রিয়নেত্রী কেমন আছেন? আমরা সংবাদপত্রের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, তাকে সাধারণ কয়েদির মতো রাখা হয়েছে। কারাগারের ভেতরে কী ঘটছে, ম্যাডামের কী অবস্থান- আমরা কিছুই জানতে পারছি না।’

তিনি বলেন, ‘সাধারণ কয়েদির মতো রাখা হচ্ছে- এ কথা কেন সংবাদপত্রে আসছে? তিনবারের প্রধানমন্ত্রী এবং এ দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলের নেতা তিনি। সরকারের রুচি এতটা নীচ কেন? সরকার কী মনে করে এ হুঙ্কার, এ ধমক প্রতিদিন মানুষ শুনতে থাকবে আর হজম করতে থাকবে?’ খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে সাজা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করেছেন বলে দাবি করেন রিজভী।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, সহ-দফতর সম্পাদক বেলাল আহমেদ, সহ-শ্রমবিষয়ক সম্পাদক ফিরোজ মামুন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম, শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রিজভী আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরিশালের জনসভায় দাম্ভিকতার সঙ্গে বলেছেন, কোথায় আজ খালেদা জিয়া। তার এ বক্তব্যে মনে হয়েছে খালেদা জিয়াকে কারাগারে ঢুকিয়ে তার আত্মতৃপ্তি হয়েছে। তার বক্তব্যে উল্লাসের সুর ধ্বনিত হয়েছে। প্রতিহিংসার রায়ে সারা দেশ যখন বিষণœ বেদনায় মুষড়ে পড়েছে, তখন প্রধানমন্ত্রীর উল্লাসে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যে রায় দেয়া হয়েছে সেটি ফরমায়েশি রায়।’

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করা হয়েছে জানিয়ে রিজভী বলেন, চেয়ারপারসনের অনুপস্থিতিতে দলটির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন তিনি (তারেক রহমান)। তিনি (তারেক রহমান) ও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং স্থায়ী কমিটির সদস্যরা সমন্বয় করে দল পরিচালনা করবেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠকদের : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেছে বিভিন্ন ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠক। শুক্রবার এক বিবৃতিতে তারা এ দাবি করেন। বিএনপির ক্রীড়া সম্পাদক ও সাবেক জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক আমিনুল হক স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে বলা হয়, দেশের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আশা করেছিলেন, তিনি বেকসুর খালাস পাবেন। কিন্তু তাকে সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ রায় সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত। দেশের আপামর জনসাধারণের সঙ্গে তারাও মনে করেন, এ মামলা ছিল রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে করা। বিবৃতিদাতারা হলেন- বিএনপির সহ-ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আরিফুল হক প্রিন্স, বিসিবি পরিচালক শাহ নুরুল কবির শাহীন, বাফুফের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনজুর হোসেন মালু, সাবেক বিসিবি পরিচালক রফিকুল ইসলাম বাবু, সাঁতার ফেডারেশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আমিনুল হক দেওয়ান, অ্যাথলেট ফেডারেশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলি ইমাম তপন, ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন বুলবুল, সাবেক জাতীয় ফুটবলার এনামুল হক, মাসুদ রানা প্রমুখ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

E-mail: [email protected], [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter