সুপ্রভাত পরিবহনের ৯০ ভাগ বাসের বৈধ কাগজ নেই

  যুগান্তর রিপোর্ট ০২ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আবরারকে চাপা দেয়া সু-প্রভাতের সেই বাস।
আবরারকে চাপা দেয়া সু-প্রভাতের সেই বাস। ছবি-যুগান্তর

রাজধানীর সুপ্রভাত পরিবহনের প্রায় ৯০ শতাংশ বাসে রুট পারমিট, ফিটনেস সার্টিফিকেট এবং ড্রাইভারের পেশাদার লাইসেন্সসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নেই। নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই এতদিন এসব বাস রাস্তায় চলাচল করেছে।

প্রায় একই অবস্থা জাবালে নূর পরিবহন লিমিটেডের বাসগুলোর। বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) কর্তৃক গঠিত কমিটির তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমন ভয়াবহ চিত্র।

গত ১৯ মার্চ সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাসের চাপায় নিহত হন বিইউপির শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী। এ ঘটনায় বিআরটিএ সুপ্রভাত পরিবহনের রুট পারমিট স্থগিত এবং বাসের নিবন্ধন (ঢাকা মেট্রো ব-১১-৪১৩৫) এবং সংশ্লিষ্ট ড্রাইভারের ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল করে।

এর আগে ২০১৮ সালের ২৯ জুলাই দুপুরে রাজধানীর র‌্যাডিসন ব–­’র উল্টোদিকের রাস্তায় জাবালে নূর পরিবহনের বাসচাপায় নিহত হন শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী আবদুল করিম রাজীব (১৭) ও দিয়া খানম মিম (১৬)। ওই ঘটনায় আহত হন আরও ৯ জন।

ওই দিনই জাবালে নূর বাসের (ঢাকা মেট্রো বি-১১-৭৬৫৭) নিবন্ধন বাতিল করে বিআরটিএ। দেশব্যাপী শিক্ষার্থী আন্দোলন ও বিভিন্ন মহলের সমালোচনার মুখে গত ২০ মার্চ দুই কোম্পানির সব বাসের রুট পারমিট স্থগিত করে বিআরটিএ। পরদিন সংস্থাটি ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে।

জানা গেছে, কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী- সুপ্রভাত কোম্পানির মোট ১৬৩ বাসের মধ্যে মাত্র ১৮টির বৈধ কাগজপত্র রয়েছে। জাবালে নূর পরিবহনের ২৯টি বাসের মধ্যে শুধু ১৩টির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাওয়া গেছে।

সুপ্রভাত পরিবহনের ১৬৩টি বাসের মধ্যে ২৯টি বাসের ফিটনেস সার্টিফিকেট মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, ১৪টির ট্যাক্স টোকেন এবং দুটি বাসের রুট পারমিট মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। ১০৪ বাসের ড্রাইভারের প্রয়োজনীয় ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। ২৭টি বাসের ড্রাইভিং লাইসেন্সের শ্রেণী সঠিক ছিল না। আইন অনুযায়ী, ড্রাইভারের লাইসেন্সের যোগ্য হতে অন্তত ছয় বছরের ড্রাইভিং অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। পাশাপাশি বাস কোম্পানির ৩২ ড্রাইভারের ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিল না।

অন্যদিকে, জাবালে নূর পরিবহন কর্তৃপক্ষের ২৯টি বাসের মধ্যে মাত্র সাতটি বাসের কাগজপত্র জমা দেয়। এদের মধ্যে সব প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাওয়া যায় মাত্র ৬টি বাসের। কমিটি বিআরটিএ সার্ভারে সংরক্ষিত ২১টি অন্যান্য বাসের নথি পরীক্ষা করে দেখেছে।

এর মধ্যে ১০টি বাসের ফিটনেস সার্টিফিকেট, ট্যাক্স টোকেন এবং রুট পারমিট আপডেট পাওয়া গেছে। বাকি ১১ বাসের যথাযথ কাগজপত্র নেই। কমিটি এই ২১ বাসের ড্রাইভারের লাইসেন্স পরীক্ষা করতে পারেনি, কারণ এসব কোম্পানি তাদের বাসের চালকদের কোনো তথ্য দেয়নি।

ঘটনাপ্রবাহ : বাসচাপায় আবরার নিহত

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×