৭ শিক্ষার্থীসহ ১১ জন ধর্ষণের শিকার

বাগেরহাটে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ছাত্রীকে ধর্ষণ পল্লী চিকিৎসকের * চট্টগ্রামে কোচিং সেন্টারের মালিকের বিরুদ্ধে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ * বরগুনায় জোর করে বিয়ের নামে নির্যাতন * সেনবাগে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে ৩ দিন আটকে রেখে ধর্ষণ * বিভিন্ন স্থানে গ্রেফতার ১৬

  যুগান্তর ডেস্ক ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

৭ শিক্ষার্থীসহ ১১ জন ধর্ষণের শিকার
ছবি-যুগান্তর

দেশের বিভিন্ন স্থানে ৭ শিক্ষার্থীসহ ১১ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এরমধ্যে ঝিনাইদহের মহেশপুরে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে পল্লী চিকিৎসকের বিরুদ্ধে।

এছাড়া চুয়াডাঙ্গায় এসএসসি পরীক্ষার্থী, বরগুনায় নবম শ্রেণীর মাদ্রাসাছাত্রী, ময়মনসিংহের ইশ্বরগঞ্জে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী, চট্টগ্রামে নবম শ্রেণীর ছাত্রী, পটুয়াখালীতে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী, নোয়াখালীতে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী ও কিশোরী, রাঙ্গামাটিতে গৃহবধূ এবং নড়াইল ও লক্ষ্মীপুরে দুই শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। এসব ঘটনাসহ ধর্ষণ ও শ্লীলতাহানির মামলায় পুলিশ ১৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ঝিনাইদহ : মহেশপুরে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে পল্লী চিকিৎসক সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার বিকালে তাকে গ্রেফতারের পর সোমবার আদালতে পাঠানো হয়েছে। মহেশপুর থানার ওসি মো. রাশেদুল আলম জানান, উপজেলার সেজিয়া বাজারে পল্লী চিকিৎসক সাইফুলের একটি ফার্মেসি রয়েছে। রোববার সকাল ৯টার দিকে ওই ছাত্রী চিকিৎসার জন্য সেখানে যায়। এ সময় ঘুমের ওষুধ খাইয়ে তাকে ধর্ষণ করে সাইফুল।

ওসি আরও জানান, মেয়েটিকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় প্রথমে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম মহেশপুর উপজেলার নেপা ইউনিয়নের সেজিয়া গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে। ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছেন বলে জানান ওসি।

জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা) : জীবননগরে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। রোববার সন্ধ্যায় তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ অভিযুক্ত ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে। জীবননগর থানার ওসি শেখ গণি মিয়া জানান, উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের এসএসসি পরীক্ষার্থী ওই শিক্ষার্থীকে বৃহস্পতিবার বিকালে অপহরণ করে একই এলাকার গোলাম মোস্তফার ছেলে সাখাওয়াত হোসেন শহীদ ও তার সহযোগীরা।

এ ঘটনায় অপহৃত শিক্ষার্থীর বড় ভাই থানায় মামলা করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে রোববার সন্ধ্যায় ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে। এ সময় অপহরণকারী সাখাওয়াত হোসেনকেও আটক করে পুলিশ। পরে শিক্ষার্থীকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বরগুনা : পাথরঘাটায় মাদ্রাসায় যাওয়ার পথে নবম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগে পাঁচজনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে। ওই ছাত্রীকে অপহরণ করে বিয়ের নামে একাধিকবার যৌন নির্যাতন করা হয় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়। এছাড়া যৌন নির্যাতনের মুহূর্ত মোবাইল ফোনে ধারণ করা হয়েছে। মামলায় অভিযুক্তরা হল- পাথরঘাটা উপজেলার চর লাঠিমারা এলাকার আবু মিয়ার ছেলে জাকারিয়া (২০), জাকারিয়ার ভগ্নিপতি মাহবুব (৩২), সবুজ (২৪) এবং অজ্ঞাত পরিচয় আরও দু’জন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ১১ এপ্রিল সকালে বরগুনার বামনা উপজেলার বাড়ি থেকে মাদ্রাসায় যাওয়ার পথে অভিযুক্তরা ওই ছাত্রীকে অপহরণ করে পাথরঘাটা নিয়ে যায়। পরে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে স্থানীয় এক মৌলভীর মাধ্যমে জাকারিয়া ওই কিশোরীকে বিয়ে করে। পরদিন রাতে মাহবুব ও সবুজ ওই ছাত্রীর দুই হাত-পা চেপে ধরে এবং জাকারিয়া তাকে একাধিকবার যৌন নির্যাতন করে।

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) : ঈশ্বরগঞ্জে ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়ে ধর্ষকের হাত থেকে পালিয়ে বান্ধবীর বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে চিরকুট লিখে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। তাকে চিকিৎসার জন্য হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অভিযোগ উঠছে, স্থানীয় প্রভাবশালী মহল ধর্ষণের ঘটনাটি সালিশ বৈঠকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে। তাই এ ঘটনায় এখনও থানায় মামলা হয়নি। ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি আহাম্মদ কবির হোসেন জানান, পুলিশ অভিযুক্ত ধর্ষক কলেজছাত্র ইয়াসিনকে আটক করে সোমবার ৫৪ ধারায় আদালতে পাঠিয়েছে।

রামগতি (লক্ষ্মীপুর) : রামগতি উপজেলার আলেকজান্ডারের শিক্ষাগ্রামে ৭ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত যুবক মো. মোহনকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে ওই শিশুকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর আগে ১৮ এপ্রিল দুপুরে প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় শিশুটিকে বাগানে নিয়ে ওই বখাটে যুবক ধর্ষণ করে বলে পরিবারের অভিযোগ।

দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) : রোববার দেলদুয়ার উপজেলার ডুবাইল ইউনিয়নের কোপাখি গ্রামে ২য় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে। এ ঘটনায় দেলদুয়ার থানায় মামলা হয়েছে। মামলার বাদী ওই ছাত্রীর মা ও মামলা সূত্রে জানা যায়, দুপুরে কোপাখি গ্রামের মো. সেলিম মিয়ার ছেলে মো. কাইয়ুম (১৪) পাখির বাসা দেখানোর কথা বলে ছাত্রীটিকে বাড়ির পাশের কাঠ বাগানে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

দুমকি (পটুয়াখালী) : দুমকিতে অষ্টম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সোহেল চৌকিদার (১৯) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জানা যায়, জলিশা বোর্ড নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ওই ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে দুমকি ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম শ্রেণীর ছাত্র সোহেল। সে জলিশা গ্রামের আবুল হক চৌকিদারের ছেলে। পরে ছাত্রীর মা বাদী হয়ে দুমকি থানায় মামলা করেন। পুলিশ জানায়, ধর্ষণের শিকার ছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মানিকগঞ্জ : সিঙ্গাইরে প্রেমিককে বেঁধে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ ও মোবাইলে ধর্ষণের ভিডিও ধারণের ঘটনায় দুই ধর্ষক ও তিন সহযোগীকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া পুলিশ সেই ভিডিও উদ্ধার করেছে। মামলার বাকি দুই আসামিকে আটকের চেষ্টা চলছে। গ্রেফতার পাঁচ আসামি হল- দিপু (১৯), নাজমুল (২১), ফজর আলী (১৮), শিপন খান (১৮) ও নোমাজ আলী (২০)। আরেক ধর্ষক সুজন দেওয়ান (২৮) ও সহযোগী চানুকে (২২) গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এবং সিঙ্গাইর থানার ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বাগাতিপাড়া (নাটোর) : বাগাতিপাড়ায় ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গফুরাবাদ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের আবুল কালাম নামের এক সহকারী শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় রোববার অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। ঘটনা তদন্তে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ। অভিযুক্ত শিক্ষক আবুল কালাম উপজেলার চিথলিয়া গ্রামের মৃত আমিন সরদারের ছেলে এবং একই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবু সায়েমের ভাই।

কাউখালী (রাঙ্গামাটি) : কাউখালী উপজেলার কাউখালী বাজারে রোববার সন্ধ্যায় ১ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে এক বৃদ্ধকে আটক করেছে পুলিশ। মামলা সূত্রে জানা যায়, ওই শিশু বাজারের পাশে খেলা করছিল। এ সময় উপজেলা সদরের ঊষা আর্টের মালিক গোপাল কৃষ্ণ নাথ (৫৫) কৌশলে শিশুটিকে পাশের ভবনে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। শিশুটি চিৎকার করলে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে গোপাল কৃষ্ণ নাথ পালিয়ে যায়। পরে শিশুটির বাবা থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে গোপালকে আটক করা হয়।

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) : উলিপুরে ২য় শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে এক কিশোরের মাথা ন্যাড়া করে দিয়েছে গ্রাম্য মাতবররা। শনিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের চকচকার পাড় ফকিরপাড়া গ্রামের মহিজল মিয়ার ছেলে আইসক্রিম বিক্রেতা রতন মিয়া (১৪) শুক্রবার দুপুরে আইসক্রিম বিক্রি করতে পার্শ্ববর্তী ফকির মোহাম্মদ ছয়ানী গ্রামে যায়।

ওই গ্রামের এক শিশুকে আইসক্রিম খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় শিশুটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে রতন পালিয়ে যায়। পরে শিশুটির পারিবারের লোকজন তাকে আটক করে। কিন্তু স্থানীয় মাতবররা বিচারের কথা বলে রতনকে ছাড়িয়ে নেয়। এরপর ঘটনার বিবরণ না শুনেই প্রথমে তাকে মারধর করে, পরে মাথা ন্যাড়া করে জুতার মালা পরিয়ে দেয়।

রংপুর : তারাগঞ্জে দশম শ্রেণীর ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জানা গেছে, রোববার সকালে শিক্ষক ডালিম কুমার রায় (২৮) তারাগঞ্জ ডাঙ্গাপাড়ায় প্রাইভেট পড়ানোর সময় ওই ছাত্রীকে হয়রানি করে। ডালিম নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের মাঝাপাড়া গ্রামের সুরেশ চন্দ্র রায়ের ছেলে।

নড়াইল : সৎ বাবার বিরুদ্ধে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। শনিবার বিকালে শিশুর মা বাদী হয়ে তার স্বামীর বিরুদ্ধে লোহাগড়া থানায় মামলা করেন। এ ঘটনায় ধর্ষক পলাতক। শুক্রবার দুপুরে লোহাগড়া উপজেলার ছত্রহাজারী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

টেকেরহাট (মাদারীপুর) : শুক্রবার সকালে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বরইতলা গ্রামের চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রী মক্তব থেকে পড়া শেষ করে বাড়ি ফিরছিল। এ সময় একই গ্রামের রাজু শেখের ছেলে জামাল শেখ (৩৫) ওই ছাত্রীকে ফুসলিয়ে পার্শ্ববর্তী ঝোপে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে ওই ছাত্রী বাড়িতে এসে অসুস্থ হয়ে পড়লে রোববার পরিবারের লোকজন তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) : লোহাগাড়ায় বাড়িতে একা পেয়ে হাত-পা বেঁধে নবম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে এক কোচিং সেন্টারের মালিকের বিরুদ্ধে। ১২ এপ্রিল লোহাগাড়া উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর কোচিং সেন্টারটি বন্ধ রয়েছে। পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত কোচিং সেন্টারের মালিক সাইফুল ইসলাম। এ ঘটনায় ১৫ এপ্রিল লোহাগাড়া থানায় একটি মামলা করেছেন স্কুলছাত্রীর মা।

সেনবাগ (নোয়াখালী) : ৭ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে তুলে নিয়ে ৩ দিন ধরে ধর্ষণের অভিযোগে অটোচালক আবদুর রহমান ছোটনকে (২৩) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ছোটন উপজেলার কেশারপাড় বারিক হাজীর বাড়ির মৃত আবদুস ছাত্তারের ছেলে। স্কুলছাত্রীর মা জানান, ৪ দিন আগে স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে অটোচালক ছোটন জোর করে তার মেয়েকে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। পরে তাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। ছাত্রীর মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে রোববার গভীর রাতে সেনবাগ থানার এসআই জসিম উদ্দিন ধর্ষক ছোটনের দুলাভাইয়ের সহযোগিতায় তাকে আটক করে।

কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) : উপজেলার সিরাজপুর ইউনিয়নে বিয়ের প্রলোভনে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে নূর উদ্দিন হৃদয় নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে। সোমবার দুপুরে মামলার পর অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রাঙ্গামাটি : লংগদুতে জিনের আসর বসিয়ে স্বামীকে ফিরিয়ে এনে দেয়ার কথা বলে গৃহবধূকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভিকটিমের সঙ্গে তার স্বামীর দুই বছর ধরে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। ধর্ষককে আশ্রয় দেয়ার অভিযোগে তার তিন সহযোগীকে আটক করেছে পুলিশ। ১৫ এপ্রিল রাতে উপজেলার ইয়ারিংছড়ি এলাকায় চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটে। আটকরা হল- মো. নুর ইসলাম, তার স্ত্রী আয়েশা খাতুন ও শাশুড়ি রাহেলা খাতুন। ধর্ষক ওসমান প্রকাশ কবিরাজ ওসমান পলাতক।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×