গায়ের জোরের শাসন জনগণ মেনে নেবে না: ড. কামাল

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৬ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সংবাদ সম্মেলনে গণফোরামের নেতারা
সংবাদ সম্মেলনে গণফোরামের নেতারা। ছবি: যুগান্তর

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, সংবিধানে লেখা আছে দেশের মালিক জনগণ। কিন্তু সেই মালিকানা হরণ করা হয়েছে। অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে সংসদ গঠন করা হয়নি। গায়ের জোরের এ শাসন জনগণ মেনে নেবে না। স্বপ্নের গণতন্ত্র আমরা ফিরিয়ে আনবই।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। এ সময় আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়াকে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক করার ঘোষণা দেয়া হয়।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের পক্ষে দলের নতুন কমিটি ঘোষণা করেন নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী। ২৬ এপ্রিল দলটির বিশেষ কাউন্সিলে পাঁচ নেতাকে কমিটি করার ক্ষমতা দেয়া হয়।

সুব্রত চৌধুরী বলেন, নতুন কমিটির সভাপতি পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন ড. কামাল হোসেন। সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টুকে কেন্দ্রীয় কমিটির এক নম্বর সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে।

নতুন কমিটিতে নির্বাহী সভাপতি হিসেবে যাদের নির্বাচিত করা হয়েছে, তারা হলেন- অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ, অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী। সভাপতি পরিষদে আছেন-এএইচএম খালেকুজ্জামান, আবদুল আজিজ, মফিজুল ইসলাম খান কামাল, মোকাব্বির খান, মেজর জেনারেল (অব.) আমসা আ আমিন, অ্যাডভোকেট জগলুল হায়দার আফ্রিক, মহসিন ঘোষ, শফিক উল্লাহ, মেসবাহ উদ্দীন আহমেদ ও মোহাম্মদ জানে আলম। যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মোস্তাক আহমেদ, দফতর সম্পাদক আজাদ চৌধুরী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হয়েছেন খান সিদ্দিকুর রহমান।

পরে ড. কামাল হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, দেশে এখন গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা নেই। গায়ের জোরে শাসন চলছে। এ ধরনের শাসন এ দেশের জনগণ কোনো দিন মেনে নেয়নি। তারা গণতন্ত্রের জন্য আপসহীন আন্দোলন করেছে। জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে দেশের যে আকাক্সিক্ষত ভবিষ্যৎ, আমরা তা গড়ে তুলব। এক্ষেত্রে গণমাধ্যমেরও মুখ্য ভূমিকা রয়েছে এবং তারা সেই ভূমিকাই পালন করবে।

জনগণকে আন্দোলনে সক্রিয় হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, জনগণকে এ প্রতিশ্রুতি দিতে চাই যে, আমরা এ ব্যাপারে অবশ্যই ঝুঁকি নেব। অতীতে আমরা সফল হয়েছি। এ আন্দোলনেও আমরা সফল হব, এটা আমরা বিশ্বাস রাখি।

কামাল হোসেন বলেন, ‘আমরা যে লক্ষ্যগুলো নির্ধারণ করেছি সেগুলো সামনে রেখে জনগণকে আরও সুসংহত করতে পারলে ইনশাআল্লাহ, জনগণই ক্ষমতার মালিক হবে। এভাবেই আমরা আমাদের স্বপ্নের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে পারব।’

এর আগে লিখিত বক্তব্যে গণফোরামের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, পাঁচজনকে দয়া করে জাতীয় সংসদে ঢুকতে দিলে এ সংসদের বৈধতা হবে, তা ভুল ধারণা। দেশের মানুষকে এতটা বোকা মনে করা উচিত নয়। গণতন্ত্রের অন্যতম স্তম্ভ হল নির্বাচন ব্যবস্থা। ৩০ ডিসেম্বরের ‘নির্বাচন’ প্রশ্নে সারা দুনিয়ার সামনে প্রমাণিত হয়েছে, প্রকৃত গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা দেশে নেই। তাই গণতন্ত্রকে ফেরত আনতে হলে অনতিবিলম্বে একটি অংশগ্রহণমূলক নিরপেক্ষ সুষ্ঠু নির্বাচন প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, জনগণই দেশের মালিক। সেই মালিকানা তাদের ফেরত দিতে হবে। ভয়-ভীতি, মিথ্যা মামলা, হুমকি দিয়ে মানুষকে চুপ করানো যায়, কিন্তু মানুষের ভালোবাসা আস্থা, সম্মান আদায় করা যায় না।

রেজা কিবরিয়া বলেন, অর্থনৈতিক দুরবস্থা, আর্থিক বৈষম্য, পরিবেশ দূষণ, খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল, শিক্ষার নিম্নমান, সাইবার সিকিউরিটি, বেকারত্ব বৃদ্ধি, কৃষিতে দুরবস্থা, ব্যাংকিং খাতে অরাজকতা, শ্রমিকদের ন্যায্যমূল্য না দেয়া, উন্নয়ন সেক্টরে অরাজকতা, হত্যা-ধর্ষণ-যৌন অপরাধ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া, মাদক ব্যবসা বৃদ্ধি, রোহিঙ্গা সমস্যা, ব্যবসায়ীদের হয়রানি এসব বিষয় নিয়ে গবেষণা ভিত্তিক নীতিমালা তৈরি করতে হবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমাদের এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হল দেশে গণতান্ত্রিক অধিকার নেই, ভোটের অধিকার নেই। পাঁচজন সংসদে গেছে এতে কিছু আসে যায় না। দু’জনের বিষয়ে যদি জানতে চান, প্রথম জনের (সুলতান মোহাম্মদ মনসুর) বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে, ব্যাস। ওনাকে আগের কমিটি চিঠি দিয়ে বহিষ্কার করেছে। উনি যদি আবার দলে ফেরত আসতে চান, আসতে পারেন, আবেদন করতে পারেন। কথা বলতে পারেন, এটা উনার ব্যাপার। দ্বিতীয়জনকে (মোকাব্বির খান) নতুন কমিটিতে প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। ওনাকে (মোকাব্বির খান) আমরা শোকজ নোটিশ দিয়েছিলাম। উনি যে উত্তর দিয়েছেন, তাতে আমরা স্যাটিসফাইড।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×