দেশে ফিরেছেন ওবায়দুল কাদের

নতুন উদ্যমে কর্মীদের নিয়ে কাজ করার প্রত্যয়

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৬ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার সন্ধ্যা ৫টা ৫৫ মিনিটে ঢাকার হজরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান তিনি। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফের নেতৃত্বে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা তাকে স্বাগত জানান। পরে সেখান থেকে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে গিয়ে দলীয়প্রধান শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন সেতুমন্ত্রী।

এর আগে বিমানবন্দরের ভিভিআইপি লাউঞ্জে সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। এ সময় আবারও নতুন উদ্যমে নেতাকর্মীদের নিয়ে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, আমি না থাকার পরও নেতাকর্মীরা ইউনিটি ধরে রেখেছেন। যেভাবে টিমওয়ার্কের মাধ্যমে দলকে এগিয়ে নিয়েছেন, তা আমায় অভিভূত করেছে। আমরা এভাবেই শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করব। বিমানবন্দরে উপস্থিত হওয়ার জন্য নেতাকর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়ে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, রোজার মধ্যেও কষ্ট করে আপনারা এসেছেন। আমি সেজন্য কৃতজ্ঞ। আমি আপনাদের সঙ্গে আছি। আসুন আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের যে শক্তিশালী টিমওয়ার্ক এটাকে কাজে লাগিয়ে নতুন উদ্যমে এগিয়ে যাব। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করব।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের জীবনটাই হল স্রোতের বিপরীতে সাঁতার কাটার মতো। আমরা এটা শিখেছি বঙ্গবন্ধুর পরিবার থেকে; শেখ হাসিনার কাছ থেকে। আমি এ শিক্ষা পেয়েছি- একজন রাজনীতিবিদের সবচেয়ে বড় সত্য মানুষের ভালোবাসা। এটা থেকে শিক্ষা নিয়ে আমি আমার কাজ ও আচরণ দিয়ে মানুষের ভালোবাসা অর্জন করতে পেরেছি। মানুষের এত ভালোবাসা, এত দোয়া। আল্লাহ সবার দোয়া কবুল করেছেন। আজ আমি দুই মাস ১১ দিন পর দেশে ফিরে এসেছি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের প্রিয় নেত্রী পরম মমতায় আমার দেখভাল করেছেন। একজন মা সন্তানের জন্য যা করেন, শেখ হাসিনা আমার জন্য তাই করেছেন। তার কাছে কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা আমার জানা নেই। মমতাময়ী মা, যিনি সত্যিকার অর্থেই মাদার অব হিউম্যানিটি। তার কাছে ঋণের বোঝা আরও বেড়ে গেল। বঙ্গবন্ধুর আরেক কন্যা শেখ রেহানাও কোরআন শরীফ পড়ে আমার জন্য দোয়া করেছেন। তার কাছেও আমার কৃতজ্ঞতা।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় খোঁজখবর নেয়া ও দোয়া করার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, নেতাকর্মীরা হাসপাতালে ছুটে গিয়েছিলেন। যদিও সে সময় আমি আমার মধ্যে ছিলাম না। আমি জানতাম না তখন কী হয়েছে। আমি শুনেছি প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালে এসে আমাকে নাম ধরে ডাক দেন, তখন আমি নাকি কেবল তার ডাকে চোখ খুলে সাড়া দিয়েছিলাম। তবে সেসব আমার মনে নেই। সারা দেশে আমার দলের বাইরেরও অনেক মানুষ আমার জন্য দোয়া করেছেন। মসজিদ, মন্দির, গির্জায়, প্যাগোডায় প্রার্থনা করেছেন। সিঙ্গাপুরে আমাকে হাসপাতালে দেখতে প্রবাসীরা ছুটে গিয়েছেন। আমি সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, আমি অসুস্থ হওয়ার পর থেকে সব সময় গণমাধ্যমের বন্ধুরা আমার খোঁজখবর নিয়েছেন। সংবাদ পরিবেশন করেছেন। আমি তাদেরও ধন্যবাদ জানাই। এ সময় ভারতের চিকিৎসক দেবী শেঠিসহ চিকিৎসকদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানান মন্ত্রী।

এর আগে সিঙ্গাপুরের চাঙ্গি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি-০৮৫ ফ্লাইটটি বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা ১০ মিনিটে রওনা দেয়। সন্ধ্যা ৫টা ৫৫ মিনিটে ফ্লাইটটি হজরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক- মাহবুবউল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান, আইন বিষয়ক সম্পাদক এবং গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, সাংগঠনিক সম্পাদক- নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আহমেদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও বিএম মোজাম্মেল, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক আবদুস সবুর, শ্রমবিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, উপ-দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এসএম কামাল হোসেন, বদর উদ্দীন আহমদ কামরান, ইকবাল হোসেন অপু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, যুব মহিলা লীগ সভাপতি নাজমা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা অপু উকিল, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মোল্লা আবু কাওসারসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান।

৩ মার্চ হার্টঅ্যাটাক হওয়ায় ওবায়দুল কাদেরকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন ৪ মে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সিঙ্গাপুরে পাঠানো হয়। এরপর সেখানেই চিকিৎসাধীন ছিলেন ওবায়দুল কাদের। গত ২০ মার্চ সেখানকার মাউন্ট এলিজাবেথ হসপিটালে তার বাইপাস সার্জারি হয়। ৫ এপ্রিল তিনি হাসপাতাল ছাড়লেও সেখানে একটি ভাড়া বাসায় ওঠেন। সেখান থেকে তিনি ফলোআপ চিকিৎসা করান।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×