তিন বাংলাদেশিসহ নব্য জেএমবির চার সদস্য কলকাতায় গ্রেফতার

  কৃষ্ণকুমার দাস, কলকাতা থেকে ২৬ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তিন বাংলাদেশিসহ নব্য জেএমবির চার সদস্য কলকাতায় গ্রেফতার

তিন বাংলাদেশিসহ নব্য জেএমবির চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা পুলিশ। শিয়ালদহ ও হাওড়া স্টেশন থেকে মঙ্গলবার সকালে তাদের গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিশের এসটিএফ (স্পেশাল টাস্কফোর্স)। একইদিন তাদের আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৪ দিনের হেফাজতেও নিয়েছে এসটিএফ।

গ্রেফতার চারজন হলেন- বাংলাদেশের রংপুরের মামুনূর রশিদ, নবাবগঞ্জের জিয়াউর রহমান ওরফে মহসিন ওরফে জাহির আব্বাস, রাজশাহীর শাহিন আলম ওরফে আলামিন এবং ভারতের বীরভূমের রবিউল ইসলাম।

এর মধ্যে মামুনূর ও জিয়াউর রহমান ধরা পড়ে শিয়ালদহ স্টেশন চত্বরের পার্কিং এলাকা থেকে। আর শাহিন আলম ও রবিউল ইসলাম ধরা পড়ে হাওড়া স্টেশন চত্বরের পার্কিং এলাকা থেকে। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে তাদের ধরেন এসটিএফের গোয়েন্দারা। তাদের কাছ থেকে মোবাইল ফোন, একাধিক জিহাদি ভিডিও, কিছু নথি, ইসলামিক স্টেট (আইএস) সংক্রান্ত কিছু বই ও লেখা উদ্ধার করা হয়।

চার জঙ্গিকে জিজ্ঞাসাবাদের তথ্য দিয়ে পুলিশ জানায়, বীরভূম, পুরুলিয়া, হাওড়াসহ একাধিক জেলায় পশ্চিমবঙ্গ থেকে জঙ্গি মনোভাবাপন্নদের নিয়ে বড় গোষ্ঠী তৈরি করে জঙ্গি কার্যকলাপ চালানোর উদ্দেশ্য ছিল নব্য জেএমবির সদস্যদের। তারা সরাসরি আইএসের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে নাশকতা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল। পুলিশ আরও জানায়, জেএমবি থেকেই এরা উঠে এসেছে। তবে র‌্যাবের তৎপরতার জন্য বাংলাদেশে সহজে কাজ করতে পারছে না এই জঙ্গিগোষ্ঠী। ফলে তারা কলকাতা তথা পশ্চিমবঙ্গের দিকে ঝোঁকার চেষ্টা করেছে।

এ রাজ্য থেকে তহবিল সংগ্রহের কাজ চালাচ্ছিল তারা। ইতিপূর্বে ধরা পড়া জঙ্গিদের ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টাও করে। ধরা পড়া চারজন ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার কলকাতায় এসেছিল। গোয়েন্দা সূত্র জানায়, কলকাতাকে তারা মূলত সেফ করিডর হিসেবে ব্যবহার করছিল।

দু’বছর ধরে নিখোঁজ ছিল শাহীন : রাজশাহী ব্যুরো জানায়, ভারতের পশ্চিমবঙ্গে মঙ্গলবার গ্রেফতার হওয়া শাহীন আলম ওরফে আলামিন (২৫) গোদাগাড়ী পৌর এলাকার রিকশাচালক রফিকুল ইসলামের ছেলে। খবরটি ভারতীয় অনলাইনে প্রকাশের পর তা পুলিশ সদর দফতরের নজরে আসে এবং রাজশাহী জেলা পুলিশের কাছে শাহীনের বিষয়ে তথ্য চাওয়া হয়। বিষয়টি নিয়ে জেলা ও থানা পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

রাজশাহী জেলা পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতেখায়ের আলম বলেন, জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে শাহীনকে দুই বছর ধরে খুঁজছিল পুলিশ। তার বিষয়ে আরও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

শাহীন প্রকৃত নাম হলেও আলামিন তার সাংগঠনিক নাম হতে পারে বলে তিনি জানান। পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়রা জানান, শাহীন গোদাগাড়ী স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি কলেজে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অনার্স পড়ছিলেন।

২০১৭ সালের মাঝামাঝি দ্বিতীয় বর্ষে পড়া অবস্থায় শাহীন আকস্মিকভাবে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়ে যায়। খোঁজখবর করেও তার হদিস পায়নি পরিবার। শাহীনের বাবা ও মা মঙ্গলবার বিকালে জানান, শাহীন কাউকে কিছু না বলেই প্রায় দুই বছর আগে বাড়ি থেকে চলে গেছে। মঙ্গলবার দুপুরের পর বাড়িতে আসা পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছ থেকে তার ভারতে গ্রেফতার হওয়ার খবর পেয়েছেন।

রাজশাহী জেলা পুলিশ সূত্র জানায়, শাহীন ছাত্রাবস্থাতেই একই এলাকার নব্য জেএমবির জঙ্গি অমিজুল ইসলাম রনির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠেন। ২০১৭ সালের ১ মার্চ রাতে রনি বগুড়ায় পুলিশের ক্রসফায়ারে নিহত হয়। এরপরই শাহীন এলাকা ছেড়ে পালায়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×