২০ ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করল শিক্ষক

  সিদ্ধিরগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি ২৮ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

২০ ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করল শিক্ষক

ব্ল্যাকমেইল করে অন্তত ২০ ছাত্রীকে ধর্ষণকারী শিক্ষক গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছে। বৃহস্পতিবার সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি কান্দাপাড়ার অক্সফোর্ড হাইস্কুলে এ ঘটনা ঘটে।

ওই শিক্ষককে আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়ায় প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষককেও গণধোলাই দিয়েছেন এলাকাবাসী। র‌্যাব ও পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। এ সময় লম্পট দুই শিক্ষকের ফাঁসির দাবিতে র‌্যাব ও পুলিশের সামনে স্লোগান দিতে থাকেন বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।

কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, ৮ বছর ধরে সহকারী শিক্ষক হিসেবে অক্সফোর্ড হাইস্কুলে অঙ্ক ও ইংরেজি বিষয়ে শিক্ষকতা করছে আরিফুল ইসলাম। আরিফুল ইসলাম কৌশলে অসংখ্য ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর ছবি তুলেছে।

আর ওই ছবি প্রকাশ করার ভয় দেখিয়ে সে ওই ছাত্রীদের ধর্ষণ করেছে। ছাত্রীদের কোচিং করানোর জন্য নিজের বাসা ছাড়াও স্কুলের পাশে বুকস গার্ডেন এলাকায় একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নেয়। স্ত্রী, সন্তান না থাকলেও ওই ফ্ল্যাটে তিনটি খাট রয়েছে।

ওই ফ্ল্যাটেই চলত তার অপকর্ম। তিন দিন ধরে তার অনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিষয়টি এলাকায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। বিষয়টি জানতে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে এলাকাবাসী ওই স্কুলে গেলে আরিফুল দ্রুত নিজের মোবাইলে থাকা আপত্তিকর ছবিগুলো মুছে ফেলে।

এলাকাবাসী ওই মোবাইল সেটটি তার কাছ থেকে নিয়ে একটি মোবাইল দোকানে যায় এবং সফটওয়্যারের মাধ্যমে ছবিগুলো উদ্ধার করে। আপত্তিকর ওই ছবি দেখে এলাকাবাসী ক্ষোভে ফেটে পড়েন। এরপর ঐক্যবদ্ধ হয়ে তারা স্কুলে হামলা চালায়।

এ সময় তারা লম্পট আরিফুল ইসলাম ও প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জুলফিকারকে গণধোলাই দেয়। এলাকাবাসীর অভিযোগ, প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জুলফিকার লম্পট শিক্ষক আরিফুলকে সহযোগিতা করে আসছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অভিভাবক জানান, ৫ম শ্রেণীতে পড়ার সময় তার মেয়েকে শ্লীলতাহানি করে শিক্ষক আরিফুল। তার মেয়ে এখন ৯ম শ্রেণীতে পড়ছে। এখনও লম্পট ওই শিক্ষক আমার মেয়েকে ব্লাকমেইল করছে।

এত বছর পেরিয়ে গেলেও আমার সন্তান কিছু বলেনি। ২-৩ দিন আগে ব্যাপারটি জানতে পেরে এলাকার কয়েকজনকে বলেছি।

এলাকার কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, লম্পট আরিফুলকে সহযোগিতা করে আসছিল প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জুলফিকার। তিন মাস আগে স্কুলের এক শিক্ষিকাকে যৌন হয়রানি করে আরিফুল। ওই শিক্ষিকা এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অভিযোগ দিতে গেলে প্রধান শিক্ষক তাকে ফিরিয়ে আনে।

জানতে চাইলে র‌্যাব-১১-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মোবাইল থেকে ছাত্রীদের সঙ্গে অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অনেক ছবি ও ভিডিও উদ্ধার করেছি। শিক্ষক আরিফুল ব্ল্যাকমেইল করে ২০ জনের বেশি ছাত্রীকে ধর্ষণ করার কথা আমাদের কাছে স্বীকার করেছে।

আরও পড়ুন

'কোভিড-১৯' সর্বশেষ আপডেট

# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৩৩০ ৩৩ ২১
বিশ্ব ১৬,০৪,৫৩৫ ৩,৫৬,৬৬০ ৯৫,৭৩৪
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত