শাহীনের অবস্থার কিছুটা উন্নতি, হত্যাচেষ্টায় জড়িত গ্রেফতার ৩

  যুগান্তর ডেস্ক ০২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সাতক্ষীরা
গ্রেফতারকৃতরা। ছবি: যুগান্তর

সাতক্ষীরায় অটোরিকশাচালক কিশোর শাহীনকে হত্যাচেষ্টায় জড়িত ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় তার ছিনতাই হওয়া অটোরিকশাটিও জব্দ করা হয়েছে।

সোমবার রাতে সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান। তিনি বলেন, অভিযান অব্যাহত রয়েছে। শাহীন হত্যাচেষ্টার সঙ্গে জড়িত অন্যরাও অচিরেই গ্রেফতার হবে।

গ্রেফতার ৩ জন হল- যশোরের কেশবপুরের বাজিতপুর গ্রামের নাঈমুল ইসলাম ওরফে নাঈম, সাতক্ষীরার কলারোয়ার আলাইপুর গ্রামের আরশাদ পাড় ওরফে নুনু মিস্ত্রি ও সাতক্ষীরা সদর উপজেলার গোবিন্দকাটি গ্রামের বাকের আলি।

তাদের বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান পুলিশ সুপার। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুতমিস ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। যুগান্তর রিপোর্ট, যশোর ব্যুরো ও সাতক্ষীরা প্রতিনিধির পাঠানো খবর।

শাহীনের জ্ঞান ফিরতে সময় লাগবে : ছিনতাইকারীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত যশোরের অটোরিকশাচালক কিশোর শাহীন মোড়লের অবস্থা কিছুটা উন্নতির দিকে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন শাহীনের জ্ঞান না ফিরলেও সে মাকে ডাকছে, আল্লাহকে ডাকছে।

কেউ ডাকলে চোখ খুলে সাড়া দিচ্ছে। চিকিৎসকরা বলছেন, পুরোপুরি জ্ঞান ফিরতে কিছুটা সময় লাগবে। সোমবার বিকালে শাহীনকে দেখতে ঢামেকে যান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালিক। তিনি তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। আগের দিন শাহীনের মাথার সিটিস্ক্যান করা হয়।

ঢামেক হাসপাতালের নিউরোসার্জারির বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ডা. অসিত চন্দ্র সরকার বিকালে যুগান্তরকে বলেন, শাহীনের অবস্থার অবনতি হয়নি। তাকে ডাকার পর সে তাকিয়েছে, আবারও ঘুমিয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে দীর্ঘক্ষণ পড়ে থাকার কারণে তার মাথা থেকে অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে। নতুন করে রক্তক্ষরণের আশঙ্কা নেই। সকালে ডা. অসিত চন্দ্র সরকারের নেতৃত্বে শাহীনের চিকিৎসায় গঠিত ৭ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড শাহীনকে দেখতে আইসিইউতে যান। চিকিৎসক বোর্ড সূত্র জানায়, সিটিস্ক্যানের রিপোর্ট আগের চেয়ে ভালো। হার্টবিট বেড়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালিক ঢামেকে সাংবাদিকদের বলেন, শাহীনের চিকিৎসায় যা যা প্রয়োজন সবকিছু হাসপাতাল থেকে দেয়া হচ্ছে। আমাদের বিশেষ নজর আছে। শাহীনের লাইফ সাপোর্ট খুলে দেয়া হয়েছে। অক্সিজেন লাগানো আছে।

শাহীনের জ্ঞান ফেরার অপেক্ষায় ঢামেকে আছেন তার মা খাদিজা, চাচা মনসুর, খালু রবিউলসহ আত্মীয়স্বজনরা। শাহীনের চাচা মনসুর আলী বলেন, আমি অনেকবার শাহীনের রুমে গিয়েছি, তার জ্ঞান ফেরেনি। চিকিৎসকরা বলেছেন, শাহীনের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি। সে লড়ে যাচ্ছে।

এ পর্যন্ত তার মোট ৫ ব্যাগ এবি-পজিটিভ রক্ত দেয়া হয়েছে। যশোরের কেশবপুর উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের হায়দার আলী মোড়লের ছেলে শাহীন গোলাখালী মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র। কাজের পাশাপাশি সে ভ্যান চালাত। দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে সে সবার বড়।

অভাবের কারণে সে লেখাপড়া করতে পারছে না ঠিকভাবে। ২৮ জুন সকালে দুর্বৃত্তরা যাত্রীবেশে শাহীনের অটোরিকশা ভাড়া নেয়। সুযোগ বুঝে শাহীনের মাথায় উপর্যুপরি আঘাত করে অটোরিকশাটি নিয়ে পালিয়ে যায়। শাহীনকে প্রথমে খুলনা হাসপাতালে, শনিবার রাতে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

যশোরে মানববন্ধন : যশোর ব্যুরো জানায়, জেলার কেশবপুরের কিশোর ভ্যানচালক শাহীনের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ছাত্র কল্যাণ ফেডারেশন যশোর জেলা শাখা।

সোমবার দুপুরে যশোর প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন পালিত হয়। মানববন্ধনে বক্তব্য দেন সংগঠনের জেলা সভাপতি সাদিয়া মৌরিন, সহসভাপতি আবদুল্লাহ ও হাসিবুল হাসান বিপ্লব, সাধারণ সম্পাদক আকরামুল, ফেডারেশনের নেতা আবদুল্লাহ আরেফিন, আসিফ সোহান, এসএম মামুন, তানিশা রহমান, আহসান হাবিব প্রমুখ।

পুলিশ ব্যর্থ হয়েছে : সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, সোমবার সাতক্ষীরায় জেলা নাগরিক কমিটির উদ্যোগে মানববন্ধন হয়েছে। বক্তারা বলেছেন, শাহীনের ঘটনায় পুলিশ যথাযথ ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হয়েছে। মামলার পরও পুলিশ গ্রেফতার তো দূরের কথা, ভ্যান ছিনতাইকারীদের শনাক্ত পর্যন্ত করতে পারেনি পুলিশ।

কমিটির আহ্বায়ক অধ্যক্ষ আনিসুর রহিমের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাব সভাপতি অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, সাবেক সভাপতি সুভাষ চৌধুরী ও আবুল কালাম আজাদ, সাংবাদিক কল্যাণ ব্যানার্জি, প্রেস ক্লাব সেক্রেটারি মমতাজ আহমেদ বাপী, সাবেক সেক্রেটারি এম কামরুজ্জামান, উন্নয়নকর্মী মাধব দত্ত প্রমুখ।

শাহীনকে ৫০ হাজার টাকা দিলেন এক প্রবাসী : সোমবার সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাবে কথা হয় শাহীনের বাবা হায়দার আলী মোড়লের সঙ্গে। আপ্লুত হয়ে তিনি বলেন, আমার এক ছেলে, দুটি মেয়ে। ভালোই ছিলাম। কারও সঙ্গে কোনো বিরোধও নেই।

৪০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে একটি ব্যাটারিচালিত ভ্যান কিনেছিলাম আশা সমিতি থেকে। ছুটির দিন হলেই ভ্যানটি নিয়ে ভাড়ায় যায়। যা আয় হয় তা এনে আমার অথবা ওর মার হাতে দিত।

শুক্রবার সে আমাকে বলে, ‘আব্বা ৩৫০ টাকার একটি বড় ভাড়া পেয়েছি। ঘণ্টাখানেকের মধ্যে ফিরে আসব।’ এর দুই ঘণ্টা পর শুনি ছেলেটাকে কোপাইছে।

শাহীনের চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, পাটকেলঘাটা থানায় মামলা করেছি। কেউ গ্রেফতার হয়নি।

সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাব সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবু আহমেদ শাহীনের বাবার হাতে ৫০ হাজার টাকা তুলে দিয়ে বলেন, শাহিনের খবর শুনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ইতালি প্রবাসী এই টাকা পাঠিয়েছেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×