তারেক রহমানকে ফেরতের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে আদালত: ব্রিটিশ হাইকমিশনার

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৯ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারসন ডিকসন
ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারসন ডিকসন। ফাইল ছবি

ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারসন ডিকসন বলেছেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেবে যুক্তরাজ্যের আদালত। এক্ষেত্রে যুক্তরাজ্য সরকারের কোনো ভূমিকা নেই।

রাজধানীর ইন্সটিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) মিলনায়তনে সোমবার এক বক্তৃতায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। ‘ডিক্যাব টক’ নামে ওই বক্তৃতা অনুষ্ঠান আয়োজন করে ?

কূটনৈতিক সাংবাদিকদের সংগঠন ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ডিক্যাব)। এতে একমাত্র বক্তা ছিলেন ব্রিটিশ হাইকমিশনার। অনুষ্ঠানে স্বাগত জানান ডিক্যাব সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম হাসিব। সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সভাপতি রাহীদ এজাজ।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে তারেক রহমানকে দেশটির সরকার বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবে কিনা- এ প্রশ্নের উত্তরে ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেন, তারেক রহমানকে বাংলাদেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেবে যুক্তরাজ্যের আদালত। এক্ষেত্রে যুক্তরাজ্য সরকারের কোনো ভূমিকা নেই। এছাড়া যুক্তরাজ্য সরকার কোনো একক ব্যক্তির বিষয়ে মন্তব্য করে না।

প্রশ্নোত্তর পর্বসহ ব্রিটিশ হাইকমিশনার প্রায় ৪০ মিনিট বক্তৃতা করেন। সূচনা বক্তব্যে তিনি বাংলাদেশ-ব্রিটেনের ঐতিহাসিক সম্পর্কের বিভিন্ন দিক স্মরণ করেন। পাশাপাশি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিকদের যুক্তরাজ্যে উচ্চপদে সরকারি চাকরি করার কথাও তুলে ধরেন তিনি।

এছাড়া বাংলাদেশে কার্যকর গণতন্ত্র, মুক্ত গণমাধ্যম, কূটনৈতিক ও ব্যবসায়িক সম্পর্ক, উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে তার দেশের ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন। তার বক্তৃতায় উঠে আসে শিক্ষায় সহায়তা, রোহিঙ্গা সংকটে মানবিক সহায়তা নিয়ে পাশে থাকা, আন্তর্জাতিক এনজিও, উন্নয়ন সংস্থা ও অন্যদের নিয়ে রোহিঙ্গা সংকটে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এ ব্যাপারে সোচ্চার ভূমিকা রাখাসহ বিভিন্ন বিষয়ও।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের ফেরতের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক চীন সফর ও মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরে যে আলোচনা হয়েছে তা উৎসাহব্যঞ্জক। রোহিঙ্গা প্রশ্নে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের মধ্যে বিভক্তি আছে। তবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় চায়, রোহিঙ্গারা স্বেচ্ছায় ও মর্যাদার ভিত্তিতে রাখাইনে ফিরে যাবে। সে লক্ষ্যে সবাই কাজ করছে।

ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম রফতানির বাজার যুক্তরাজ্য। দুই দেশে গত বছর বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল ৬ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার। এছাড়া যুক্তরাজ্য থেকে রেমিটেন্স আয়ের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ৬ষ্ঠ বৃহত্তম দেশ। দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক বিভিন্ন ক্ষেত্রে অগ্রসর হচ্ছে।

বাংলাদেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বৈশ্বিক গণমাধ্যম বিষয়ক প্রতিবেদনে গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বাংলাদেশের অবস্থান ১৫০তম। আর যুক্তরাজ্যের অবস্থান ৩৩তম। এক্ষেত্রে যুক্তরাজ্যের অবস্থা খুবই ভালো না হলেও এ থেকেই আপনারা বিষয়টি বুঝে নিতে পারেন।

সূচনা বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন, কথা বলার স্বাধীনতা যে কোনো কার্যকর গণতন্ত্রের জন্য অত্যাবশ্যক দিক। যেহেতু বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে পৌঁছানোর যাত্রা অব্যাহত রেখেছে, তাই শক্তিশালী নাগরিক সমাজের জন্য জায়গা জরুরি।

যেখানে সাধারণ মানুষ বিশেষ করে তরুণ সমাজ আইনের মধ্যে থেকে তাদের শক্তি সঞ্চালন ও হতাশা প্রকাশ করতে পারে। বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে মুক্তভাবে আলোচনা ও বিতর্ক করার বিষয়ে মানুষকে অবশ্যই সুযোগ দিতে হবে। যেখানে তারা তাদের সরকারকে চ্যালেঞ্জ করতে পারবে।

ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেন, একটি সক্রিয়, অবগত, সৃজনশীল এবং সংযুক্ত নাগরিকের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম খুবই জরুরি। এটি সুশাসন, গণতন্ত্র, লিঙ্গ ও অন্যান্য সমতা এবং দারিদ্র্য নিরসনের জন্য একটি কার্যকর উপাদান। যুক্তরাজ্য গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের সুরক্ষার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

যুক্তরাজ্য আগামী ১০ ও ১১ জুলাই লন্ডনে ‘গ্লোবাল কনফারেন্স ফর মিডিয়া ফ্রিডম ২০১৯’-এর সহআয়োজক। সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে ছয়জন সাংবাদিক ও গণমাধ্যমকর্মী যোগ দিচ্ছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×