আদালতের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা জানতে চান হাইকোর্ট

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৮ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হাইকোর্ট

সুপ্রিমকোর্টসহ সারা দেশের আদালত প্রাঙ্গণ, বিচারক, বিচারপ্রার্থী ও আইনজীবীদের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে- তা জানাতে বলেছেন হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে কুমিল্লার আদালতে বিচারকের খাস কামরায় এক আসামি অন্য আসামিকে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় ঘটনাস্থলে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে- তাও জানাতে বলেছেন আদালত। আগামী ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষকে এসব তথ্য জানাতে বলা হয়েছে।

এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বুধবার বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

শুনানিতে উষ্মা প্রকাশ করে আদালত বলেন, আদালত অঙ্গন নিরাপদ না হলে বিচারক, আইনজীবী, বিচারপ্রার্থী সবাই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগবেন। স্বাধীনভাবে বিচারকাজ করা সম্ভব হবে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও সজাগ থাকতে হবে। আইনজীবী, বিচারকসহ সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। হত্যা মামলায় জামিনে থাকা দুই আসামি হাসান ও ফারুক সোমবার কুমিল্লার আদালতে হাজিরা দিতে যান। সম্পর্কে তারা মামাতো ও ফুপাতো ভাই।

পুলিশ জানায়, হত্যার দায় নিয়ে দুজনের মধ্যে বিরোধ ছিল। এর জের ধরে হাসান আদালত কক্ষে ফারুককে ছুরি মারেন। এতে আহত ফারুককে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

বুধবার আদালতে রিটের ওপর শুনানিতে অংশ নেন ইশরাত হাসান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এবিএম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। শুনানিতে ঘটনা দুটির প্রসঙ্গ টেনে আদালত বলেন, কুমিল্লার পর সুপ্রিমকোর্ট বারেও একই ঘটনা ঘটেছে। এ অবস্থায় আদালতে বিচারক, আইনজীবী ও কর্মকর্তাদের সিকিউরিটির জন্য কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে? রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বাশার বলেন, কুমিল্লা ও সুপ্রিমকোর্ট বারের দুটি ঘটনা ব্যক্তিগত।

এ সময় আদালত বলেন, ব্যক্তিগত হোক আর যাই হোক, আদালতের ভেতরে ছুরি নিয়ে কীভাবে যায়? পুলিশ কী করে? নিশ্চিতভাবে (ডেফিনেটলি) এটা পুলিশের গাফিলতি। এ সময় রিট আবেদনকারী আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেন, নিরাপত্তা তো সবার জন্য। তিনিও (রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী) এমন পরিস্থিতিতে পড়তে পারেন। তাই বিচারক, আইনজীবীসহ সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

আইনজীবী বাশার বলেন, আদালত অঙ্গনে সার্বিক নিরাপত্তা দিতে সরকার আন্তরিক। ইতিমধ্যেই সুপ্রিমকোর্টসহ সারা দেশে আদালতগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সুপ্রিমকোর্ট আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক কমিটির বৈঠক ডাকা হয়েছে। ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে দেশের সব আদালতে বিচারক, আইনজীবী ও কর্মকর্তাদের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এবং কুমিল্লার আদালতে ঘটনার দিন যারা নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে- তা জানাতে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে আদালত নির্দেশ দেন। মন্ত্রিপরিষদ, আইন ও স্বরাষ্ট্র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক ও র‌্যাব মহাপরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে।

রিটে বিচারাঙ্গনে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, প্রত্যেক বিচারককে গানম্যান দেয়া, বিচারকদের বাসভবন ও চেম্বার সুরক্ষিত করা, আদালত প্রাঙ্গণে মেটাল ডিটেক্টর ও দুই স্তরের পুলিশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা করার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি আদালত কক্ষের সামনে ভারি অস্ত্রসহ দক্ষ পুলিশ সদস্যদের নিয়োগের নির্দেশনা চাওয়া হয়।

কুমিল্লা ব্যুরো জানায়, আদালতে ছুরিকাঘাতে খুনের ঘটনার পর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ব্যাপক জোরদার করা হয়েছে। ঘটনার পর আদালতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হয়েছে। আদালতে প্রবেশের সময় ধাপে ধাপে শরীর ও ব্যাগ তল্লাশি করা হচ্ছে।

বুধবার কুমিল্লা আদালত প্রাঙ্গণ ছিল নিরাপত্তায় ঢাকা। প্রবেশপথে প্রথম দফা তল্লাশি করা হয়। এরপর আদালতে প্রবেশের আগে তল্লাশি করা হয়। এছাড়া কাউকে সন্দেহ হলে ব্যাগ ও দেহ তল্লাশি করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×